ঢাকা, সোমবার 16 September 2019, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে বন্দুকধারীদের হামলায় নিহত ৬

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভাল মাঠের নিকটবর্তী দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।জুমার নামাজের সময় মুসল্লিরা যখন সিজদারত ছিল তখন দুই বন্দুকধারী স্বয়ংক্রিয় বন্দুক দিয়ে তাদের উপর নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে পালিয়ে যায়।এতে কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়।আহত হয় বহু মুসল্লি।নিহতের সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

এই হামলায় অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। ক্রিকেটার তামিম ইকবাল টুইট করে জানিয়েছেন, সব ক্রিকেটারই সুরক্ষিত আছেন।

জানা গেছে, মসজিদের নিকটবর্তী মাঠে অনুশীলন শেষে তাঁরা ওই মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যান। মসজিদে প্রবেশের মুহূর্তে স্থানীয় একজন তাঁদের মসজিদে ঢুকতে নিষেধ করেন। বলেন এখানে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে।একথা শুনে খেলোয়াড়েরা তখন আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এবং দৌড়ে হ্যাগলি ওভালে ফেরত আসেন। খেলোয়াড়দের সবাইকে মাঠের ভেতর থাকতে বলা হয়েছে।

হতাহতের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে প্রত্যক্ষদর্শীদের অনেকেই বেশ কয়েকজন নিহতের আশঙ্কা করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ডের একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যম স্টাফ ডট কো জানিয়েছে স্থানীয় সময় বেলা ১টা ৩০ মিনিটে নামাজ শুরুর ঠিক দশ মিনিট পর একজন বন্দুকধারী সেজদায় থাকা মুসল্লিদের ওপর গুলি চালায়। এরপর জানালার কাচ ভেঙে হামলাকারী পালিয়ে যায়। তবে বিবিসি জানিয়েছে, একজন বন্দুকধারী তখনও সক্রিয় ছিল। তার হাতে অটোমেটিক রাইফেল ছিল। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের বরাত দিয়ে বিবিসি আরো জানিয়েছে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সুপারভাইজার টিভি  নিউজিল্যান্ডকে জানান, তিনি এক বন্দুকধারীকে সরাসরি এক মুসল্লির বুকে গুলি করতে দেখেছেন।এরপর কমপক্ষে ২০ মিনিট পর্যন্ত সে মুসল্লিদের উপর গুলি বর্ষণ করতে থাকে। এতে অন্তত ৬০ জন মুসল্লি হতাহত হয়।মসজিদের পুরুষ মুসল্লিদের উপর গুলি বর্ষণ শেষে সে মহিলাদের এরিয়াতে যায়  এবং একইভাবে গুলি বর্ষণ করতে থাকে।আমি গুলির শিকার এক নারীর আর্ত চিৎকার শুনতে পেয়েছি, যে মারা গিয়েছে।''

প্রসঙ্গত ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভাল মাঠে আগামীকাল বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় টেস্ট হওয়ার কথা রয়েছে।

দলের ম্যানেজার খালেদ মাসুদ পাইলট বলেন, দলের প্রতিটি খেলোয়াড় নিরাপদে আছেন। তাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। সবাই এখন হোটেলে অবস্থান করছেন।

শহরের মধ্যাঞ্চলে হ্যাগলি পার্কমুখী সড়ক দীন এভিনিউতে আল নুর মসজিদে এ হামলা হয়। পরে আশেপাশের স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেখানে জরুরি অবস্থা জারির প্রক্রিয়া চলছে।

ডিএস/এএইচ

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ