ঢাকা, মঙ্গলবার 15 October 2019, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলায় ৪ বাংলাদেশি নিহত, আরো বাড়ার আশংকা

ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ হামলায় নিহতদের স্মরণে নিউজিল্যান্ডে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। ছবি: এপি

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে ভয়াবহ হামলায় চার বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন।এ সংখ্যা আরো বেড়ে  ছয়জন পর্যন্ত হতে পারে।আজ রোববার পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছ বার্তা সংস্থা ইউএনবি।

শাহরিয়ার আলম জানান, হামলায় দুই বাংলাদেশি নিহতের খবর নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষ। এছাড়া স্থানীয় সম্প্রদায়ের মানুষ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী আরও দুই বাংলাদেশি নাগরিক নিহতের খবর পেয়েছেন তারা।

শনাক্ত হওয়া নিহত দুজন হলেন- ড. আব্দুস সামাদ ও হোসনে আরা আহমেদ।

প্রতিমন্ত্রী জানান, নিউজিল্যান্ড সরকার বাংলাদেশকে জানিয়েছে, নিহত প্রত্যেকের পরিবারের একজন ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ের কাছে তারা লাশ হস্তান্তর করবে এবং তারা লাশ দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবে।

শাহরিয়ার বলেন, ড. সামাদের পরিবার তাকে নিউজিল্যান্ডে কবর দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ও নিহতের বড় ছেলে বাংলাদেশ থেকে সেখানে যাবে।

শুক্রবার জুমার নামাজের সময় ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে নৃশংস হামলায় অন্তত ৫০ জন নিহত ও ৪৮ জন আহত হন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের হটলাইনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টরা যোগাযোগ করতে পাবে। নিউজিল্যান্ডে অনারারি কনসাল শফিকুর রহমানের সঙ্গে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা যাবে (+৬৪ ২১০২৪ ৬৫৮১৯)। জরুরি যোগাযোগের জন্য দুটি নম্বর হচ্ছে +৬১ ৪২৪ ৪৭২৫৪৪, +৬১ ৪৫০১৭৩০৩৫।

এক কর্মকর্তা জানান, এখনও বাংলাদেশি নাগরিক মো. ওমর ফারুক ও মোজাম্মেল নিখোঁজ রয়েছেন। সম্ভবত তারা মারা গেছেন। এছাড়া জাকারিয়া ভুইয়াও নিখোঁজ রয়েছেন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর তথ্য অনুযায়ী, আহতদের মধ্যে লিপির অবস্থা সংকটাপন্ন। তাকে আরেকটি অস্ত্রোপচার করা লাগতে পারে। এছাড়া পায়ে গুলিবিদ্ধ মুতাসসিম ও শেখ হাসান রুবেলের অবস্থা বিপদমুক্ত।

ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর, অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরাতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রবাসীদের বাংলাদেশির নিরাপত্তা জন্য নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যোগাযোগ রাখছে।

এদিকে, হাইকমিশন সরাসরি ও অকল্যান্ডে বাংলাদেশের অনারারি কনসুলারের মাধ্যমে নিউজিল্যান্ডে বসবাসরত বাংলাদেশিদের শান্ত থাকতে, বাড়ির ভেতরে থাকতে, জনসমাবেশ এড়াতে এবং দেশটির আইনি নির্দেশ মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বার্তা পাঠানো হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশির সব রকমের সহায়তার জন্য শফিকুর রহমান শনিবার সকালে ক্রাইস্টচার্চে যান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ