ঢাকা, সোমবার 25 March 2019, ১১ চৈত্র ১৪২৫, ১৭ রজব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

তৃতীয় ধাপেও ভোটার উপস্থিতি হতাশাজনক বর্জন-সংঘর্ষ-গুলী ও কারচুপি

স্টাফ রিপোর্টার: তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনেও ভোটারদের উপস্থিতি হতাশাজনক। আগের দুই ধাপের মতোই এবার গতকাল রোববার হওয়া নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল বেশ কম। তবে এবারের নির্বাচনে সংঘর্ষ, ভোট বর্জন, আগের রাতে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভরিয়ে ফেলার ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে গোলাগুলী হয়েছে, আহত হয়েছেন ভোটাররা। আর এসব কারণে ঘটেছে ভোট স্থগিতের ঘটনাও। ভোটচলাকালীন সময়ে চট্টগ্রামের চন্দনাইশে ভোট জালিয়াতি রুখতে গিয়ে গুলীবিদ্ধ হয়েছেন পুলিশ কনস্টেবল। আগের রাতে ব্যালট ভরিয়ে ফেলার অভিযোগে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার ভোট গ্রহণ স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে। ভোট জালিয়াতিতে যুক্ত থাকার দায়ে জেলার একজন এএসপি এবং ওসিকে প্রত্যাহারের ঘটনা ঘটেছে। একাধিক জায়গায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ভোট বর্জন করেছেন।
গতকাল রোববার উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে ১১৭ উপজেলায় ভোট গ্রহণ করা হয়। বিএনপিসহ কয়েকটি বিরোধী দল এ নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেওয়ায় এমনিতেই এর জৌলুশ কমে যায়। আগের দুই ধাপে দেখা গেছে, ভোটার উপস্থিতি বেশ কম। এবারের উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে ভোট পড়ে ৪৩ দশমিক ৩২ শতাংশ হারে। ১০ মার্চ এই ধাপে ভোট গ্রহণ হয় ৭৮টি উপজেলায়। দ্বিতীয় ধাপে ১৮ মার্চ ১১৬টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে গোলাগুলী ও প্রাণহানির ঘটনাকে কেন্দ্র করে পাঁচটি উপজেলার ভোটের হিসাব ইসিতে এসে পৌঁছেনি। বাকি ১১১টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ হয়েছে ৪১ দশমিক ২৫ শতাংশ হারে। দুই ধাপ মিলিয়ে ১৮৯ উপজেলায় ভোট পড়েছে ৪২ দশমিক ২৮ শতাংশ। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) তথ্যমতে, গতকালের নির্বাচনে ৩৪০ চেয়ারম্যান, ৫৮৪ জন ভাইস চেয়ারম্যান ও ৩৯৯ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এছাড়া ৫৫ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেছেন। তাদের মধ্যে ৩৩ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১৩ জন নারী ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন।
বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য নিয়ে নির্বাচনের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো:
ঝিনাইদহ : গতকাল রোববার সকাল ৮টা থেকে ঝিনাইদহের চারটি উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোট শুরুর তিন ঘণ্টা পরও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা চাপরাইল প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ভোটারের দেখা মেলেনি। তাই বাধ্য হয়ে পোলিং এজেন্ট প্রথম ভোটার হিসেবে ভোট দেন। এ কেন্দ্রে ৩১০০ ভোটার রয়েছে।
ভোটার না থাকায় পোলিং এজেন্ট ভোট দিলেন ঝিনাইদহ সদর, হরিণাকুন্ডু, শৈলকুপা ও কালীগঞ্জ এই চার উপজেলায় এক প্রকার নিরুত্তাপ ভোটগ্রহণ চলছে। কোনও কোনও কেন্দ্রে একজন ভোটারও এখন পর্যন্ত ভোট দেননি। চার উপজেলার ৪২৩ কেন্দ্রের মধ্যে ২৫৫টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন অফিস।
 ভোটার শূন্য কেন্দ্র ঝিনাইদহ সদর উপজেলা আরাপপুর নিউ একাডেমি কেন্দ্রে তিন ঘণ্টায় মাত্র ১৮টি ভোট পড়েছে। এখানে ভোটার রয়েছে প্রায় ১৩০০। কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর কেন্দ্রে ৩৪০৪ ভোটের মধ্যে ১১টা পর্যন্ত ৬টি ভোট পড়েছে। কালুখালী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বেলা ১১টা পর্যন্ত মাত্র ৪০ জন তাদের ভোট দিয়েছে। এখানে মোট ভোটার ২৯৭৮ ভোট। এরমধ্যে কয়েকটি বুথে একটি ভোটও পড়েনি। শৈলকুপা উপজেলার কবিরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেড় ঘণ্টায় ৩১২৭ ভোটের মধ্যে মাত্র দু’জন ভোট দিয়েছেন।
 জেলার হরিণাকুন্ডুসহ সব উপজেলার কেন্দ্রগুলোয় একই চিত্র দেখা গেছে। তবে এসব কেন্দ্রে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি দেখা গেছে।
এদিকে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে সাড়ে ৫ ঘণ্টায় ১০ ভোট পড়েছে। এ সময় কেন্দ্রে নিয়োজিত কর্মকর্তারা খোশগল্পে মসগুল এবং আনসার সদস্যদের ফোনে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। গতকাল রোববার দুপুরে এমন চিত্র দেখা গেছে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা এমএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মহিলা ভোটকেন্দ্রে। গতকাল রোববার বেলা দেড়টার সময় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, কর্মকর্তারা গল্পে মসগুল। এ ছাড়া নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যরা ফোনে ব্যস্ত সময় পার করছেন।
কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার আশরাফুল ইসলাম বলেন, দুপুর দেড়টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা এমএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মহিলা ভোটকেন্দ্রের ১নং বুথে দুটি, ২নং বুথে শূন্য, ৩নং বুথে শূন্য, ৪নং বুথে একটি ও ৫নং বুথে সাতটি ভোট পড়েছে। সাড়ে ৫ ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ১০টি।
বরিশাল
বরিশালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রে ভোটার খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। রবিবার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত অধিকাংশ কেন্দ্রই ফাঁকা ছিল। সকাল ৮টায় বরিশালের সাত উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।
সকাল সাড়ে ৮টায় বরিশালের উজিরপুর উপজেলার শিকারপুর জিজি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে কোনও ভোটর নেই। এই কেন্দ্রে মোট ভোটার ২ হাজার ৮৩৪ জন। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার জয়ন্ত বেপারী বলেন, আশা করছি বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটরদের উপস্থিতি বাড়বে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ কেন্দ্রে কোনও অনিয়ম হচ্ছে না। এখানে কোনও অনিয়ম করতে দেওয়া হবে না।
তৃতীয় ধাপে বরিশালের সাতটি উপজেলা পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নির্বাচনী এলাকায় শৃঙ্খলা বজায় রাখতে টহল দিচ্ছে বিজিবির ও কোস্টগার্ডের সদস্যরা। বরিশালের ১০ উপজেলার মধ্যে ৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও গৌরনদী এবং আগৈলঝাড়া উপজেলায় আওয়ামী লীগ দলীয় চেয়ারম্যান এবং পুরুষ ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হওয়ায় সাত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
বরিশালের উজিরপুর উপজেলায় মোট ভোটার এক লাখ ৮৫ হাজার ২৫৬ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৩ হাজার ৮১২ ও নারী ৯১ হাজার ৪৪৪ জন। ভোটকেন্দ্র ৮৩ ও ভোটকক্ষ ৪৯৫ টি। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল মজিদ সিকদার বাচ্চু ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হাফিজুর রহমান ইকবাল ও বাংলাদেশ জাসদের আবুল কালাম আজাদ বাদল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর এন আহম্মদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও লক্ষ্মীপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র দু’টিতে ভোটারদের কোনও লাইন চোখে পড়েনি। এ দুই কেন্দ্রে এক ঘণ্টায় ৪০ ভোট পড়েছে।
 ভোটার নেই কেন্দ্রে। লক্ষ্মীপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় পুরুষ ও নারী কেন্দ্রে ভোট ভোটার ৫ হাজার। লক্ষ্মীপুর এন আহম্মদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরুষ ও নারী দু’টি কেন্দ্র মোট ভোটার ৬৩৫০ জন। লক্ষ্মীপুর সরকারি বালিকা বিদ্যলয়ের প্রিজাইডিং অফিসার গিয়াস উদ্দিন জানান, প্রথম এক ঘণ্টায় ভোট পড়ছে ২২টি।
 জেলার ৫টি উপজেলায় ৪৬০টি কেন্দ্র ১২ লাখ ৩৪ হাজার ভোটার।
কিশোরগঞ্জ
অনিয়মের অভিযোগে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। বিভিন্ন কেন্দ্রে আগের রাতে ব্যালট পেপারে সিল মারার অভিযোগ পেয়ে, রবিবার সকালে ভোট স্থগিতের এ ঘোষণা দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. তাজুল ইসলাম। এ ঘটনায় পুলিশের দুজন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে জেলার অন্য ১২টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে।
রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. তাজুল ইসলাম জানান, কোটিয়াদী উপজেলায় মোট ৮৯টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। রাতে উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে সিল মারার অভিযোগ পেয়ে, পুরো উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তীতে পুননির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হবে। এছাড়া ভোটের অনিয়মে জড়িত থাকার অভিযোগে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম ও কটিয়াদী থানার ওসি মো. শামসুদ্দিনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
কিশোরগঞ্জের একটি ভোটকেন্দ্রজানা যায়, সকাল ৮টা থেকে জেলার ১৩টি উপজেলার ৮৩৮টি কেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। কটিয়াদী ছাড়া অন্য উপজেলাগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। তবে নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের মধ্যে যে ধরনের উৎসাহ-উদ্দিপনা থাকার কথা তা দেখা যাচ্ছে না।
কিশোরগঞ্জের ১৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৫ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাছাড়া নিরাপত্তা রক্ষায় ৩৯ প্লাটুন বিজিবি ও র‌্যাবের ২৬টি টিম কাজ করছে। পুরো জেলায় ভোটার সংখ্যা প্রায় ২২ লাখ।
চট্টগ্রাম
 কেন্দ্র দখলে বাধা দেওয়ায় চট্টগ্রামর চন্দনাইশে পুলিশের সঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর অনুসারীদের গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। রবিবার সকাল ৯টার দিকে পূর্ব চন্দনাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এতে এক পুলিশ সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আফরুজুল হক টুটুল এ তথ্য জানিয়েছেন। গুলিবিদ্ধ পুলিশ সদস্যের নাম ফরহাদ। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
আফরুজুল হক বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী এ কে এম নাজিম উদ্দিনের অনুসারীরা এ হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় আমরা একজনকে আটক করেছি। বাকিদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে।
চন্দনাইশে এবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন একে এম নাজিম উদ্দিন। গোলাগুলির বিষয়ে জানতে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
গাজীপুর: গাজীপুরের শ্রীপুর, কাপাসিয়া, কালিয়াকৈর ও সদর উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল থেকে কেন্দ্রগুলোতে ভোটাদের উপস্থিতি একেবারেই কম দেখা গেছে। গাজীপুরের একটি ভোট কেন্দ্রের চিত্রশ্রীপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, কেওয়া (মাওনা চৌরাস্তা) তমির উদ্দিন আলিম মাদ্রসা কেন্দ্র, ভাংনাহাটি পশ্চিম খ- রেজিস্ট্রেশন প্রাথমিক বিদ্যালয়, বৈরাগীরচাল উচ্চ বিদ্যালয়, কেওয়া ফোরকানীয়া মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করে দেখা গেছে, ভোটারদের উপস্থিতি একেবারেই কম।
সকাল পৌনে ৯টায় শ্রীপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ওই কেন্দ্রে মোট ভোটার ৬ হাজার ৭০০। ভোট পড়েছে মাত্র ১৭৫টি। সকাল সাড়ে ১০টায় কেওয়া (মাওনা চৌরাস্তা) তমির উদ্দিন আলিম মাদ্রসা কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ২ হাজার ৫১১ ভোটের মধ্য ৫৯৫ টি ভোট পড়েছে। এ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার জয়নাল আবেদীন জানান, ভোটারররা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিচ্ছে। তবে পুরুষ ভোটারদের চেয়ে নারী ভোটারের উপস্থিতি বেশি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ
বাবগঞ্জের চার উপজেলায় তৃতীয় ধাপে ভোটগ্রহণ চলছে। রবিবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহন শুরু হলেও কেন্দ্রগুলোয় ভোটার উপস্থিতি কম। তবে দু-একটি কেন্দ্রে ভোটারদের লাইন দেখা গেছে। কেন্দ্রে পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটারদের উপস্থিতি বেশি।
 ভোটার শূন্য কেন্দ্র
ছত্রাজিতপুর উচ্চ বিদ্যালয়, রসুলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিবগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়সহ আশেপাশের বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায় ভোটার উপস্থিতি অত্যন্ত কম। এছাড়া নাচোল,ভোলাহাট ও গোমস্তাপুর উপজেলার অধিকাংশ কেন্দ্রেই ভোটারদের উপস্থিতি কম বলে জানা গেছে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
নারী ভোটারদের লাইনতবে শিবগঞ্জ উপজেলার জালমাছমারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ভোটারদের দীর্ঘ লাইন। এই উপজেলায় নৌকার মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ নজরুল ইসলামের বাড়ি এই এলাকায় হওয়ায় ভোটার উপস্থিতি বেশি বলে জানান কর্মকর্তারা।
সাতক্ষীরা
বেলা বাড়লেও বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি অনেক কম। রিটার্নি কর্মকর্তা ও প্রার্থীরা আশা করছেন বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে। কিন্তু প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পার হলেও সেটা লক্ষ করা যায়নি।
সরেজমিনে দেখা গেছে, সাতক্ষীরার কালিগঞ্জর উপজেলার মহৎপুর কেন্দ্রে ভোটারদের কোনও লাইন নেই। তিন ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ৪৫টি। একই উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিন ঘণ্টায় মাত্র ভোট পড়েছে ৫১টি। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মাহমুদপুর সরকারি বিদ্যালয় কেন্দ্রেও ভোটারদের লাইন চোখে পড়েনি। এ কেন্দ্রে চার ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ২০০টি। সাতক্ষীরা সদরের বাঁকাল মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট পড়েছে ১৩৫টি। এই কেন্দ্রে মোট ভোট ২২৫৭। তবে এখন পর্যন্ত সহিংসতার কোনও খবর পাওয়া যায়নি।
সাতক্ষীরা কালিগঞ্জের দক্ষিণ শ্রীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কোন ভোটারের উপস্থিতি নেইভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী ছাড়া অন্য কোনও দলের প্রার্থী না থাকায় সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আগ্রহ কমে গেছে। সাতক্ষীরার সাতটি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। জেলায় মোট ১৫ লাখ ৬০ হাজার ৬৫০ জন ভোটার এবং কেন্দ্র ৫৯৭টি। এর মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ৪২৯টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
কক্সবাজার
কক্সবাজারের পেকুয়ার মগনামা ইউনিয়নের দক্ষিণ মগনামা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জোর করে ব্যালট পেপারে সিল মারা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের চারজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ভোট শুরুর পর, রবিবার সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
গুলিবিদ্ধরা হলেন আবুল হোছেন, ছাদেক, বদি, রমিজ। তারা মগনামা এলাকার বাসিন্দা। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় পরিবেশ এখন শান্ত রয়েছে।
এই কেন্দ্রে গোলাগুলীর ঘটনা ঘটেস্থানীয়রা জানিয়েছেন নৌকার প্রার্থী আবুল কাশেমের পক্ষে স্থানীয় চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ ওয়াসিম লোকজন নিয়ে কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালট পেপারে সিল মারার চেষ্টা করে। এ সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের লোকজন বাধা দেন। এতে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। গোলাগুলি শুরু হলে, উভয় পক্ষের চারজন গুলিবিদ্ধ হন। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ওসমান গনি বলেন, ‘কেন্দ্রটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। বাইরে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে বলে শুনেছি। যার কারণে ভোটার শূন্য অবস্থায় রয়েছে কেন্দ্রটি। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।’
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ‘কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া, পাল্টা-ধাওয়া ও গুলিবিদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। তাৎক্ষণিক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। এখন ওই কেন্দ্রে ভোটাররা উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দিচ্ছেন। এ ছাড়াও জেলার অন্যান্য কেন্দ্রে অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।’
মানিকগঞ্জ
মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল কাদের ও আমিনুর রহমান ভোট বর্জন করেছেন। ভোট কারচুপির অভিযোগে তারা ভোট বর্জন করেছেন বলে জানান।
এদিকে, দৌলতপুর উপজেলার জিয়নপুর ২ নম্বর কেন্দ্রে নৌকায় সিল মারার অভিযোগে কেন্দ্রটির সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার রুহুল আমিনকে আটক করা হয়েছে। রবিবার সকাল ৯টায় এই ঘটনা ঘটে। জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস এই তথ্য জানিয়েছেন।
সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও দৌলতপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুল মোমিন বলেন, ‘ওই কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিড়ে নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার চেষ্টা করছিল রুহুল আমিন। তিনি দৌলতপুরের খোর্দ ছাতিয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। বিষয়টি কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে আসলে তারা তাকে আটক করে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানায়। পরে বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানালে তাকে আটক করা হয়।’
মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মত্ত সরকারি প্রাথমিক বালক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) যান্ত্রিক ত্রুটি থাকায় ২ ঘণ্টা ২০ মিনিট দেরিতে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোট কেন্দ্রেটির প্রিজাইডিং অফিসার আবু বকর সিদ্দিক এই তথ্য জানান। এছাড়া সদর উপজেলার আরও ৪-৫টি কেন্দ্রে ইইভএম মেশিনে যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। পরে অবশ্য তা ঠিক করে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।
মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মত্ত সরকারি প্রাথমিক বালক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘ইভিএম মেশিনের যান্ত্রিক সমস্যা থাকায় নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণ সম্ভব হয়নি। পরে সেনা সদস্যরা মেশিনটি ঠিক করলে বেলা ১০টা ২০ মিনিট থেকে ভোট শুরু করা হয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘ বেলা পৌনে ১১টা পর্যন্ত ওই ভোটকেন্দ্রে ৪২টি ভোটগ্রহণ করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ