ঢাকা, সোমবার 1 April 2019, ১৮ চৈত্র ১৪২৫, ২৪ রজব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ভেনেজুয়েলায় মাদুরো সমর্থকদের সমাবেশ বিদেশি হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি

 ৩১ মার্চ, আনাদোলু এজেন্সি, রয়টার্স : ভেনেজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সমর্থনে এক বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাদুরোর নিজ দল ইউনাইটেড সোশ্যালিস্ট পার্টি অব ভেনেজুয়েলা (পিএসইউভি) এর আয়োজন করে। সমাবেশে বক্তারা মাদুরোকে সমর্থন দেওয়ার পাশাপাশি ভেনেজুয়েলায় বিদেশি হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সি।

নির্বাচনি কারচুপির অভিযোগ আর অর্থনৈতিক সংকট ভেনেজুয়েলার জনগণকে তাড়িত করেছে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে। বিক্ষোভের সুযোগে গত ২৩ জানুয়ারি নিজেকে অন্তর্র্বতীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদো। এরপরই তাকে স্বীকৃতি দেয় যুক্তরাষ্ট্রসহ ৫০টিরও বেশি দেশ। এরপর দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি শোডাউনের মধ্যেই গত ৮ মার্চ বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে ভেনেজুয়েলার অর্ধেকেরও বেশি এলাকা। দেশটির ২৩টির মধ্যে ১৮টি রাজ্যেই অন্ধকারে কাটাতে হয় বাসিন্দাদের। কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, সরকারবিরোধীরা এই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। এর মধ্যেই পাল্টাপাল্টি সমাবেশ করে আসছে বিবদমান দুই পক্ষ।

শনিবারের সমাবেশে দেওয়া বক্তব্যে ইউনাইটেড সোশ্যালিস্ট পার্টি অব ভেনেজুয়েলা-র উপপ্রধান দায়োসদাদো কাবেলো বলেন, ভেনেজুয়েলায় যারা বিদেশি সামরিক হস্তক্ষেপের আহ্বান জানাচ্ছে তাদের শত্রু হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী দেশে শুধু একজন রাষ্ট্রপ্রধান থাকবেন। সংবিধানে যুক্তরাষ্ট্রকে ভেনেজুয়েলার জনগণের প্রতিনিধিত্ব করার কথা বলা হয়নি।

দায়োসদাদো কাবেলো বলেন, তার দল যে কোনও ধরনের সামরিক হুমকি মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছে।

এর আগে এ মাসেই রাশিয়ার প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা ও প্রায় শখানেক সেনাসদস্য বহনকারী দুইটি বিমান ভেনেজুয়েলায় অবতরণ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভেনেজুয়েলার ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যেই রাশিয়ান এয়ার ফোর্সের বিমানে সেনাদের ভেনেজুয়েলা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় মস্কো।

ফ্লাইট ট্র্যাকিং-এর সঙ্গে যুক্ত একটি ওয়েবসাইটে দেখা গেছে, রাশিয়ার মিলিটারি এয়ারপোর্ট থেকে ভেনেজুয়েলার রাজধানী কারাকাসের উদ্দেশে যাত্রা করে দুটি বিমান। তবে রয়টার্সের পক্ষ থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও এ বিষয়ে ভেনেজুয়েলার তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেও এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর প্রতি সমর্থনের বার্তা দিতে তিন মাস আগে দেশটিতে যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নেয় রুশ বাহিনী। তবে ওই মহড়াকে অঞ্চলটিতে রাশিয়ার অনধিকার চর্চা হিসেবে আখ্যায়িত করে এর সমালোচনা করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ