ঢাকা, রোববার 7 April 2019, ২৪ চৈত্র ১৪২৫, ৩০ রজব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি হলে গণপরিবহনে নৈরাজ্য সৃষ্টি হবে

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ অটোরিকশা অটোটেম্পো পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় পরিবহন নেতারা বলেন, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি করা হলে জীবনযাত্রায় বিরূপ প্রভাব পড়বে। গ্যাসচালিত সব শিল্পের খরচ বাড়বে। সেই সঙ্গে গণপরিবহনসহ সব সেক্টরে নৈরাজ্য দেখা দেবে।
গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ অটোরিকশা অটোটেম্পো পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় এইসব কথা বলেন নেতারা। সভায় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক, কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, অধ্যাপক শামসুল আলম, জোনায়েদ সাকি, হারুন অর রশিদ, আবুল হোসেন, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাজেকুজ্জামান রতনসহ অটোরিকশা অটোটেম্পো পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের নেতারা।
সাংবাদিক কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, সরকার দেশের ১৬ কোটি মানুষকে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে জরিমানা করছে। সরকার জনগণকে জেলে বন্দী না করেই গ্যাসের দাম বারানোর মাধ্যমে জেলের জরিমানা করছে। গ্যাস খাতে যে দুর্নীতি হয় তা সরকার বন্ধ করতে পারলে গ্যাসের দাম বারানোর কোনো প্রায়োজন নেই। গ্যাস খাতে দুর্নীতি বন্ধ করা জরুরী।
 জোনায়েদ সাকি বলেন, গত ১০ বছরে গ্যাসের মূল্য বেড়েছে ছয়বার। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি করা গণমানুষকে শোষণ ছাড়া কিছুই নয়। সরকার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি না করে, দেশের সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে থেকে ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধ করলেই সোনার বাংলায় রূপান্তরিত হবে এই দেশ।
সভায় লিখিত বক্তব্যে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক বলেন, সরকার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির জন্য গণশুনানি করেছে। গণশুনানিতে জনগণের কথা রাখা হয় না, তাহলে গণশুনানি কেন? গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শিল্প কারখানার উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাবে। পরিবহনসহ বিভিন্ন সেক্টরে সিএনজি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি করলে গণপরিবহনসহ সব সেক্টরে নৈরাজ্য দেখা দেবে। নিজ নিজ অবস্থান থেকে দাবি আদায়ের পক্ষে কাজ করতে হবে, উল্লেখ করে তিনি বলেন, লক্ষ লক্ষ অটোরিকশা শ্রমিক ও গণমানুষের কথা বিবেচনায় রেখে পরিবহনসহ সকল শিল্পকারখানা সচল রাখার লক্ষ্যে এবং সকল সেক্টরে বিশৃঙ্খলা হাত থেকে রক্ষা করতে সরকার গণবিরোধী সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে আসবে। অন্যথায় মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গণআন্দোলন গড়ে তোলা ছাড়া আমাদের অন্য কোনো বিকল্প থাকবে না। তাই সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে এই দাবির পক্ষে কাজ করতে হবে।
বক্তারা বলেন, বর্তমানে একজন অটোরিকশাচালক গ্যাস ক্রয় বাবদ দৈনিক ৩০০ টাকা ব্যয় করেন। তবে সরকার যে হারে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির পাঁয়তারা করছে তাতে একজন চালকের গ্যাস ক্রয়ের খরচ বেড়ে দাঁড়াবে প্রায় ৬০০ টাকার ওপর। বক্তারা আরও বলেন, অটোরিকশা শ্রমিক ও গণমানুষের কথা বিবেচনায় রেখে পরিবহনসহ সব শিল্প কারখানা সচল রাখতে এবং সব সেক্টরে বিশৃঙ্খলা থেকে রক্ষায় গণবিরোধী সিদ্ধান্ত পরিহার করতে হবে। অন্যথায় মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গণআন্দোলন গড়ে  তোলা ছাড়া বিকল্প থাকবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ