ঢাকা, মঙ্গলবার 9 April 2019, ২৬ চৈত্র ১৪২৫, ২ শাবান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীরীদের বিশেষ অধিকার বাতিলের প্রতিশ্রুতি মোদির

বিজেপির নির্বাচনী ইশতেহার হাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও দলীয় সভাপতি অমিত শাহ                         -রয়টার্স

৮ এপ্রিল, রয়টার্স : অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণের প্রতিশ্রুতি এবারও দলের ইশতিহারে অন্তর্ভুক্ত করেছে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। গতকাল সোমবার প্রকাশিত দলটির ইশতিহারে এই প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়।

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ইশতিহার প্রণয়নের জন্য গঠিত কমিটির প্রধান ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণে সম্ভাব্য ও সহায়ক সব উপায় অবলম্বন করা হবে।

গতকাল সোমবার দুপুরে নয়াদিল্লিতে বিজেপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই ইশতেহার প্রকাশ করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজসহ দলের শীর্ষ নেতারা।

দলটির নির্বাচনী ইশতিহারের নাম দেয়া হয়েছে এবার ‘সংকল্প পত্র’। ৪৫ পাতার ইশতেহারে ‘নতুন ভারত’-এর জন্য ৭৫টি অঙ্গীকার নেওয়া হয়েছে বলে জানান দলটির সভাপতি অমিত শাহ।

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মিরের বাসিন্দাদের বিশেষ অধিকার বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি(বিজেপি)। লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের ইশতেহারে বলা হয়, এই বিশেষ অধিকারের কারণে দেশের বাকি জনগণের অধিকার ক্ষুন্ন হয় এবং দেশের উন্নয়ন ব্যহত হয়। ইশতেহার প্রকাশের সময় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, জাতীয়তাবাদই আমাদের অনুপ্রেরণা।

ভারতীয় সংবিধানের ৩৫-এ ধারা অনুযায়ী কাশ্মীরবাসীরা বিশেষ অধিকার পেয়ে থাকেন। এ ধারা অনুযায়ী জম্মু-কাশ্মির সরকার ঠিক করে যে কারা সেখানকার স্থায়ী নাগরিক। তারাই বাড়তি সুবিধা পান। অন্য রাজ্যের বাসিন্দারা সেখানে জমি কিনে বসবাস করতে পারেন না। ১৯৫৬ সালে জম্মু-কাশ্মীরে গৃহীত সংবিধানে স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে বিবেচিত হতে হলে কী কী শর্ত তার উল্লেখ রয়েছে। ৩৫-এ ধারা অনুসারে জম্মু-কাশ্মিরের জন্য ওই বিশেষ ব্যবস্থা স্বীকৃতি পেয়েছে।

মোদির বিজেপি অনেকদিন ধরেই এই বিশেষ অধিকার বাতিলের পক্ষে কথা বলে আসছে। তাদের দাবি ওই ধারা অনুযায়ী দেশের অন্য রাজ্যের জনতার অধিকার ক্ষুণœ করছে। বিজেপির নির্বাচনি ইশতেহারে বলা হয়, আমরা মনে করি ৩৫-এ অনুচ্ছেদ দেশের উন্নয়নের অন্তরায়।  

মুসলিম অধ্যুষিত কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতারা অবশ্য সতর্ক করেছেন যে এমন পদক্ষেপ সেখানে অস্থিরতার তৈরি করতে পারে। আন্দোলন ছড়িয়ে পড়তে পারে।

বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশের নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হবে ১১ এপ্রিল, চলবে ১৯ মে পর্যন্ত। এই নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা প্রায় ৯০ কোটি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ