ঢাকা, রোববার 14 April 2019, ১ বৈশাখ ১৪২৬,৭ শাবান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে খুলনায় প্রাথমিকের পরীক্ষা

খুলনা অফিস : খুলনায় সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা আগের নিয়মেই। সম্প্রতি মন্ত্রণালয়ের গৃহীত সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করা হচ্ছে। সিদ্ধান্ত অনুসরণ না করে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা আগের নিয়মে উপজেলার প্রশ্নে হবে। পরবর্তী পরীক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুসারে বলে জানিয়েছেন জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা। উপ-পরিচালক বলেছেন এই পরীক্ষাই বাস্তবায়ন করতে হবে মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত। জানা গেছে, গত ৮ এপ্রিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বিভাগীয় উপ-পরিচালকগণের দ্বিমাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল সাময়িক ও বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র স্ব স্ব বিদ্যালয় কর্তৃক প্রণয়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এ বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে গত ১০ এপ্রিল জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের নোটিশ জারী করেন খুলনা বিভাগীয় উপ-পরিচালক মেহেরুন নেছা। বিষয়টি অতীব গুরুত্বপূর্ণ বলেও উল্লেখ করা হয়। 

এদিকে ১১ এপ্রিল খুলনা জেলাধীন সকল উপজেলার সরকারি, শিশু কল্যাণ ট্রাস্ট ও অন্যান্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম সাময়িক পরীক্ষার সময়সূচিসহ বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়ে নোটিশ জারী করেন খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। সেখানে পরীক্ষা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে পরীক্ষার প্রশ্নপত্র গ্রহণের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এ ধরনের নোটিশ সকল সহকারী থানা শিক্ষা অফিসারদেরও প্রেরণ করা হলেও জানেন না খুলনা সদর থানা সহকারী শিক্ষা অফিসার নূরে লায়লা।

দৌলতপুর পাবলা সবুজ সংঘ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খাদিজা বেগম বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে সিনিয়র শিক্ষকদের দ্বারা প্রশ্ন সংগ্রহ করা হয়েছে। সেগুলো ইতোমধ্যে থানা শিক্ষা অফিসে জমা দেওয়া হয়েছে। স্ব স্ব বিদ্যালয়ের প্রশ্নে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। থানা শিক্ষা অফিস থেকে প্রশ্ন নিয়ে পরীক্ষা গ্রহণের নির্দেশনা রয়েছে।

খুলনা সদর থানা সহকারী শিক্ষা অফিসার নূরে লায়লা বলেন, কোন প্রশ্নে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা হবে তা তিনি জানেন না। এ ধরনের কোনো নির্দেশনা তিনি পাননি। বিষয়টি নিয়ে থানা শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলার জন্য বলেন তিনি।

খুলনা সদর থানা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার কামরুন্নাহার বলেন, থানা শিক্ষা অফিস থেকে প্রথম সাময়িকের প্রশ্ন সরবরাহ করা হবে। প্রশ্ন ইতোমধ্যে প্রেসে চলে গেছে। অনেক ছাপাও হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা এ পরীক্ষায় অনুসরণ করা সম্ভব না হলেও আগামীতে অনুসরণ করা হবে।

খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এএসএম সিরাজুদ্দোহা বলেন, এ ধরনের কোনো চিঠি পাওয়া যায়নি। তবে তিনি বিষয়টি শুনেছেন। এবার এ সিদ্ধান্ত অনুসরণ করা হবে না। আগামীতে এ বিষয়টি অনুসরণ করা হবে। প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের খুলনা বিভাগীয় উপ-পরিচালক মেহেরুন নেছা বলেন, মন্ত্রণালয়ে বিভাগীয় উপ-পরিচালকদের সভায় স্ব স্ব বিদ্যালয়ের প্রশ্নে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। এবার থেকেই এ সিদ্ধান্ত কার্যকরী করতে হবে। তার নোটিশটি সম্পর্কে সবাই না জানার ব্যাপারে তিনি বলেন, তারা এখনও চিঠি না পেতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ