ঢাকা, বুধবার 24 April 2019, ১১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৭ শাবান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

জোড়ালাগা সেই শিশু দুইটির পাশে দাঁড়ালেন জলঢাকার ইউএনও

নীলফামারী সংবাদদাতা : নীলফামারীর জলঢাকায় একটি ক্লিনিকে জন্ম নেওয়া সেই জোড়ালাগা জমজ শিশু দুইটির পাশে দাড়ালেন জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সুজাউদৌলা। শনিবার দুপুরে শিশু দুইটির বাড়ী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের যদুনাথপাড়ায়  গিয়ে তিনি সহযোগিতার হাত বাড়ান। এসময় জোড়ালাগানো নবজাতকদের কোলে তুলে নিয়ে তাদের নাম দেন ইউএনও সুজাউদ্দৌলা। একজনের নাম রাখেন লামিশা অপরজনের লাবিবা। ইউএনও সুজাউদৌলা তাদের চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। জানা যায়, গত ১৫ এপ্রিল জলঢাকা পৌরশহরের একটি ক্লিনিকে জন্ম নেয় জোড়ালাগা জমজ শিশু দুটি। পরে শিশু দুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণের নির্দেশ দেন। কিন্তু গার্মেন্টস শ্রমিক দরিদ্র পিতার পক্ষে তা সম্ভব নয়। তাই বাধ্য হয়েই আবার জলঢাকায় নিজ বাড়ীতে ফিরে আসেন এ দম্পতি। শিশু দুটির পিতা লাল মিয়া জানায় ডাক্তার বলেছেন ঢাকা ছাড়া এমন জটিল অপারেশন সম্ভব নয়। কিন্তু আমার মত একজন গার্মেন্টস শ্রমিকের পক্ষে এতগুলো টাকা যোগান দেওয়া সম্ভব নয়। তাই আবার জলঢাকায় নিয়ে এসেছি। লাল মিয়ার স্ত্রী মনুফা আকতার বলেন, গত বছর ৮ জুলাই আমাদের বিয়ে হয়। অভাব অনটনের মধ্যে চলে আমাদের সংসার জীবন। তিনি আরও বলেন, আমাদের মত হতদরিদ্র পরিবার কিভাবে সন্তান দুটির চিকিৎসা করবো? তাই সমাজের বিত্ত্ববানদের সহযোগিতার জন্য এগিয়ে আসার আহবান জানান তারা। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সুজাউদ্দৌলা বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করে শিশু দুটির পাশে এসে দাড়িয়েছি। দরিদ্র পরিবারের পক্ষে তাদের চিকিৎসা করা সম্ভব নয়। তাই যত দ্রুত সম্ভব সবার সহযোগিতা নিয়ে ঢাকায় প্রেরণের ব্যবস্থা করতেছি। এ বিষয়ে ওই ক্লিনিকের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সেলিম শাহ্ জানান, দ্রুত শিশু দুটিকে ঢাকায় নেয়া হলে অপারেশনের মাধ্যমে তাদের আলাদা করা যেতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ