ঢাকা, রোববার 21 July 2019, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সিরিয়ায় বিমান হামলার পর 'একমাত্র জীবিত' শিশু

 বিমান হামলায় খাদিজার পরিবারের বাকি সব সদস্যই নিহত হয়েছে

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলের বিদ্রোহী অধ্যূষিত এলাকার একটি শহরে প্রেসিডেন্ট আসাদ সমর্থিত বাহিনীর বিমান হামলার পর একটি পরিবারের 'একমাত্র' জীবিত সদস্য ছিল দুই বছর বয়সী একটি শিশু।

শিশুটির পরিবারের বাকি সব সদস্য বিমান হামলায় নিহত হয়েছে।

আট বছরের সিরিয়া যুদ্ধের পর ইদলিব এবং হামা এলাকার কয়েকটি অঞ্চলই জিহাদি ও বিদ্রোহীদের শেষ ঘাঁটি হিসেবে রয়ে গেছে।

সেসব এলাকায় সিরিয়া ও রুশ সেনাবাহিনী বিমান হামলা জোরদার করেছে।

ঐ এলাকার একটি গ্রামে চালানো সবশেষ বিমান হামলায় ৩০ জন বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন এবং আরো ৪০ জন আহত হয়েছেন বলে খবরে বলা হচ্ছে।

বেঁচে যাওয়াদের মধ্যে একজন দুই বছর বয়সী খাদিজা-আল-হামদান।

খাদিজার পরিবার তাদের গ্রাম থেকে পালিয়ে এসে ঐ এলাকায় বাস করছিল।

তারা একটি মুরগির খামারের দেখাশোনা করতো এবং ঐ খামারের ভেতরেই থাকতো।

খাদিজার দাদা নিশ্চিত করেন যে বিমান হামলায় খাদিজা বাদে তার ছেলের পরিবারের বাকি সবাই মারা গেছে।

"আমার ছেলে, তার স্ত্রী এবং আরো দুই সন্তানের সবাই মারা গেছে। তাদের দেহ আমরা হাসপাতাল থেকে নিয়ে এসেছি। খাদিজাই একমাত্র জীবিত সদস্য", বলেন খাদিজার দাদা।

সিরিয়া ভিত্তিক জিহাদি গ্রুপ হায়াত তাহরির আল-শামস 'লোহা এবং আগুন'এর মাধ্যমে এই বিমান হামলার জবাব দেবে বলে হুমকি দিয়েছে।

সিরিয়ায় যুদ্ধ থামার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। এখন সিরিয়ার ইদলিবে হাসপাতাল, স্কুল লক্ষ্য করে হামলা করা হচ্ছে বলে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন সহ বেশিরভাগ সদস্য অভিযোগ করেছে। তবে রাশিয়া ও চীন তা সমর্থন করে না।

এই যুদ্ধ শুরু হয়েছিল ২০১১ সালে।

তখন প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ শুরু হয় সিরিয়ার দক্ষিণের শহর 'ডেরা'য়।

বিক্ষোভ শুরুর অনেক আগে থেকেই কর্মসংস্থানের অভাব, দুর্নীতির মত নানা কারণে অস্থিরতা বিরাজ করছিল দেশটিতে।

এই বিক্ষোভকে 'বিদেশী মদদপুষ্ট সন্ত্রাসবাদ' আখ্যা দেন প্রেসিডেন্ট আসাদ। বিক্ষোভ দমন করতে আসাদ সরকারের বাহিনী অভিযান চালায় বিক্ষোভকারীদের ওপর।এর ফলে বিক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো দেশে।বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে সরকারের অভিযানও জোরদার হয়।বিদ্রোহীরা শুরুতে নিজেদের জীবন রক্ষার্থে অস্ত্রধারণ করে। পরে তার একত্রিত হয়ে নিজেদের এলাকার সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করে।এক পর্যায়ে দেশজুড়ে গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হয় সিরিয়ায়।

সূত্র: বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ