ঢাকা, রোববার 12 May 2019, ২৯ বৈশাখ ১৪২৬, ৬ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আমরা এই বিষফোঁড়াকে উপড়ে ফেলতে চাই -হানিফ

চট্টগ্রাম ব্যুরো : আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য মাহাবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত হলো বিষফোঁড়া। এরা যতদিন থাকবে বাংলাদেশের মানুষের উপর ততদিন আঘাত করবে। উন্নয়ন অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত করবে। বাংলাদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে আমরা এই ক্যান্সার বিষফোঁড়াকে উপড়ে ফেলতে চাই।গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম মহানগরীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে চট্টগ্রাম বিভাগের সাতটি সাংগঠনিক জেলা নিয়ে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনি সভাপতির বক্তব্যে কথাগুলো বলেন।
চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর, দক্ষিণ, কক্সবাজার, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবন জেলা আওয়ামী লীগের এই বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দলের সভাপতিম-লীর সদস্য আবদুল মতিন খসরু। বর্ধিত সভায়  তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, বিভাগীয় সমন্বয়কারী আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম, সমন্বয়ক মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, চট্টগ্রাম বিভাগের সাত সাংগঠনিক জেলা চট্টগ্রাম মহানগর, দক্ষিণ জেলা, উত্তর জেলা, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি জেলার নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এছাড়া সাংসদ নজরুল ইসলাম, এম এ লতিফ, মাহফুজুর রহমান মিতা, সাইমুম সরওয়ার কমল, উত্তর জেলার সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, সাংসদ ওয়াসিকা আয়শা খানম ও খাদিজাতুল আনোয়ার সনি উপস্থিত ছিলেন।
 হানিফ বলেন, পরিষ্কার জানিয়ে দিতে চাই, লন্ডনে বসে ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না। খুনি, সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজ তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচার করব ইনশাল্লাহ। বিচারের রায় কার্যকর করব। তিনি বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা মানসিকতাই উন্নয়ন বিরোধী। যোগাযোগ ব্যবস্থা যত উন্নত হবে অর্থনীতি তত এগিয়ে যাবে। ক্ষমতায় থেকে এরা দেশকে পিছিয়ে দিয়েছে। এখন বাইরে থেকে আঘাত করছেন। তাদের সবসময় লক্ষ্য দেশকে কিভাবে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করা যায়।
হানিফ বলেন, মির্জা ফখরুল বলেছেন মামলা হওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে, ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন। তার চোখে পানি এসে গেছে। কেন মামলা হয়েছে? তারা পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করেছে, তাই মামলা হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতাদের যখন প্রকাশ্যে গুলী করে, বোমা মেরে, কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছিল তখন কোথায় ছিল আপনার চোখের পানি? ২১ অগাস্ট নেত্রীর ওপর গ্রেনেড হামলা হলো। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্বে কোথাও এমন হামলা হয়নি। তখন কোথায় ছিল আপনার চোখের পানি? চোখের পানি সবে আশা শুরু হয়েছে, আরও আসবে।
এর আগে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন উড়িয়ে সভা উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য মাহাবুবুল আলম হানিফ ও জেলা নেতৃবৃন্দ। আগামী অক্টোবরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে দলকে তৃণমূলে চাঙা করতে এ বর্ধিত সভা আয়োজন করা হয়েছে। সভায় সাত সাংগঠনিক জেলা থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রায় ৭০০ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ