ঢাকা, রোববার 12 May 2019, ২৯ বৈশাখ ১৪২৬, ৬ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

টানা দেড় মাস ধরে কমছে ডিএসইর বাজার মূলধন

স্টাফ রিপোর্টার: অর্ধেকের বেশি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পরও গত সপ্তাহে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন প্রায় তিন’শ কোটি টাকা কমেছে। ডিএসইর বাজার মূলধন কমা কিছুতেই ঠেকানো যাচ্ছে না। এ নিয়ে টানা দেড় মাস ধরে কমছে ডিএসইর বাজার মূলধন।
গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৫৯২ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ২৮৬ কোটি টাকা। বাজার মূলধন হারালেও গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনের অংশ নেয়া অর্ধেকের বেশি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৫১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে ১৭৯টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। অন্যদিকে দাম কমেছে ১৫১টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির দাম। বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পরও গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ১০ দশমিক ৯২ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ২০ দশমিক ৫৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৯ শতাংশ।
অপর দুটি মূল্যসূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের তুলনায় কমেছে ১৯ দশমিক ২৩ পয়েন্ট বা ১ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৬ দশমিক ৬৪ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৬ শতাংশ। আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক কমেছে ৪ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৮ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ১০ দশমিক ১০ পয়েন্ট বা দশমিক ৮৩ শতাংশ।
এদিকে সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪২৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৩৮৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ৪৫ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বা ১১ দশমিক ৯০ শতাংশ।
আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ১৪৪ কোটি ৮১ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ১ হাজার ৫৩৩ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ৬১১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বা ৩৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ। গত সপ্তাহের আগের সপ্তাহে এক কার্যদিবস কম লেনদেন হওয়ায় মোট লেনদেনের হার বেশি।
গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৮০ দশমিক ৭৯ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। এছাড়া বাকি ১১ দশমিক ২৬ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ৭ দশমিক ১৫ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের এবং দশমিক ৮০ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের।
সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৩২ কোটি ৯৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৬ দশমিক ২০ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা মুন্নু সিরামিকের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৬৮ কোটি ২৮ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ১৮ শতাংশ। ৬৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এস্কয়ার নিট কম্পোজিট। লেনদেনে এরপর রয়েছে- বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস, ন্যাশনাল টিউব, ন্যাশনাল পলিমার, জিনেক্স ইনফোসিস এবং লিগ্যাসি ফুটওয়্যার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ