ঢাকা, বৃহস্পতিবার 16 May 2019, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১০ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

হরিপুরে করলার বাম্পার ফলন

হরিপুরে একটি করলার ক্ষেতে করলা ঝুলছে।

জে.ইতি হরিপুর (ঠাকুরগাঁও): ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায় এবার করলার বাম্পার ফলন হওয়ায় চাষির মুখে সন্তুষ্টির হাসি ফুটেছে। ফলন ভালো হওয়ায় দূরদূরান্তের পাইকাররা এসে করলা কিনছেন। এরপর তারা ট্রাকযোগে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করছেন। আবার স্থানীয় পাইকাররা কৃষকের কাছ থেকে ১৪৫০ থেকে ১৩৫০ টাকা মণ দরে করলা কিনছেন। তারাও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা করলা ব্যবসায়ীদের কাছে বেশি দামে বিক্রি করছেন।
জানা গেছে, বিঘাপ্রতি খরচ হয়েছে ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা। আর ১ বিঘা জমির করলা বিক্রি হচ্ছে বর্তমান বাজারে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকায়। দাম ভালো থাকায় বর্তমানে চাষিরা ঘরে বসে থাকার সময় পাচ্ছেন না। কেউ করলার ক্ষেত পরিচর্যাও কাজ করছেন,কেউ ক্ষেতের করলা তুলছেন, আবার কেউ বিক্রির জন্য আড়তদারের কাছে নিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলার খুচরা পাইকারগুলো জানান, কৃষকের কাছ থেকে শত শত মণ করলা কিনে রানীশংকৈলে নিয়ে যায়, সেখানে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার পাইকারগুলো করলা কিনে ট্রাক যোগে নিয়ে যায়। তারাঁ আরো জানান, এবছর করলা ব্যবসা করে আমরা যথেষ্ট লাভবান হয়েছি। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানায়, চলিত মৌসুমে হরিপুর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে প্রায় ৮০ থেকে ১০০ হেক্টর জমিতে করলার চাষাবাদ হয়েছে। কৃষকের মাঝে সার, বীজ প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ধরণের সহায়তা দেওয়ায় এ বছর করলার বাম্পার ফলন হয়েছে। উপজেলার টেংরিয়া গ্রামের কৃষক শাহাজান, মসলিম, মানিকসহ আরো কয়েকজন করলা চাষী বলেন, এ বছর ১ বিঘা করে জমিতে করলার চাষ করছেন। বিঘাপ্রতি খরচ হয়েছে ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা। ১ বিঘা জমির করলা ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন। উপজেলা কৃষি অফিসার নঈমুল হুদা সরকার বলেন, করলা চাষ এ বছর উপজেলার কৃষকের ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে এ অঞ্চলের কৃষক অলাভজনক আবাদ ছেড়ে করলা চাষে ঝুঁকে পড়বেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ