ঢাকা, শুক্রবার 24 May 2019, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৮ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিশ্বকাপে খেলতে মনিকাদের টপকাতে হবে জাপান-অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস রিপোর্টার: এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের চূড়ান্ত পর্বে চেনা অস্ট্রেলিয়া, জাপান ও আয়োজক থাইল্যান্ডকে পেয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। গত আসরে একই টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত পর্বের আসরে জাপান-অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে খেলেছিল মনিকা-মারিয়ারা। বিশ্বকাপে খেলতে হলে এএফসির এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলতে হবে মেয়েদের।সেপ্টেম্বরে শুরু হবে থাইল্যান্ড পর্ব। এদিকে মারিয়া-মনিকারা নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ায় ব্যস্ত। এখন ঈদের ছুটিতে যে যার বাসায় আছেন ফুটবলাররা। ঈদের ছুটি কাটিয়ে ফিরবেন মাঠে। গতকাল বৃহস্পতিবার চূড়ান্ত পর্বে কে কার প্রতিপক্ষ হচ্ছে সেটা নির্ধারণ হয়ে গেছে। থাইল্যান্ডের চনবুড়ির ওয়াকার্ড হোটেলে গতকাল দুপুরে ড্র হয়।যেখানে বাংলাদেশ ও প্রথমবারের মতো এএফসির চূড়ান্ত পর্বে পা রাখা ভিয়েতনাম ছিল পট চারে। আয়োজক থাইল্যান্ড ও ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন দল উত্তর কোরিয়া থাকছে পট একে। দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান পট দুইয়ে। চায়না ও অস্ট্রেলিয়া পট তিনে। ড্রয়ে এ গ্রুপে পড়েছে বাংলাদেশ। এই গ্রুপে অন্য তিনটি দল হচ্ছে আয়োজক দেশ থাইল্যান্ড, জাপান ও অস্ট্রেলিয়া। এর আগেও ২০১৭ সালেও এএফসির চূড়ান্ত পর্ব বসেছিল থাইল্যান্ডে। যা ছিল বিশ্বকাপের এশিয়া অঞ্চলেরও চূড়ান্ত বাছাই। চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়া, রানার্সআপ দক্ষিণ কোরিয়া ও তৃতীয় জাপান উঠেছিল উরুগুয়ে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে। ওই আসরে খেলেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। ‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিল উত্তর কোরিয়া, জাপান ও অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচে ৯-০ গোলে হেরেছিল উত্তর কোরিয়ার কাছে। দ্বিতীয় ম্যাচে জাপানের কাছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা হেরেছিল ৩-০ গোলে। তবে বাংলাদেশের মেয়েরা চমক দেখিয়েছিল শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। তীব্র লড়াই করে হেরেছিল ৩-২ গোলে।এবারও ২০২০ সালে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের এশিয়ান অঞ্চলের চূড়ান্ত বাছাইপর্ব। এখান থেকে দুটি দল বিশ্বকাপে পা রাখবে। বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন কী পূরণ করবে মেয়েরা!দলের প্রধান কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন জানান, ‘কঠিন হবে এবার। সহজভাবে নেয়ার কিছু নেই। তিনটা দলই কঠিন। তবে, অস্ট্রেলিয়া ও জাপানের সঙ্গে গতবার খেলেছিলাম। এবার আরও ভালো করার চেষ্টা করবো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ