ঢাকা, মঙ্গলবার 18 June 2019, ৪ আষাঢ় ১৪২৬, ১৪ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সভাপতির ইস্তফা গ্রহণ করল না কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী কমিটি

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:পরাজয়ের সব দায় নিজের উপর নিয়ে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধি। এ নিয়ে গোটা রাজনৈতিক মহলে জল্পনার শেষ ছিল না।

প্রত্যাশামতোই কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে ইস্তফা দিতে চাইলেন রাহুল গান্ধী। কিন্তু সভাপতির ইস্তফা নিতে রাজি হয়নি দল।

দিল্লিতে চলমান কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভার শুরুতেই সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করতে চেয়ে কমিটির কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দেন রাহুল। 

সভায় সোনিয়া গান্ধী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, প্রিয়াঙ্কা গান্ধীসহ দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব উপস্থিত রয়েছেন। এখনও ওয়ার্কিং কমিটির সভা চলছে।

এর আগে,‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ প্রচারের মাধ্যমে ১৭তম লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতা পুনরুদ্ধারের মিশনে নামে কংগ্রেস। সভাপতি রাহুল গান্ধীর এ পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। কংগ্রেসের ঘাঁটি আমেথিতে স্মৃতি ইরানির কাছে নিজেও পরাজিত হন। দল এবং দলের বাইরে প্রশ্নের মুখে তার নেতৃত্ব।

‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ এ স্লোগান নিয়ে বিতর্কও কম হয়নি। এ স্লোগানের জেরেই সুপ্রিম কোর্টে ক্ষমা চাইতে হয়েছে কংগ্রেস সভাপতিকে। আবার রাহুলের এই স্লোগানকে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুড়ে টুইটারে চৌকিদার অভিযান শুরু করেছিলেন মোদী। উনিশের রায়ে রাহুলের ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ মুখ থুবড়ে পড়েছে।

 

রাহুলের এই স্লোগানের জেরেই এবার ভোটের লড়াইয়ে হেরেছে হেরেছে কংগ্রেস, এমনটাই মনে করছেন কংগ্রেসেরই কয়েকজন শীর্ষ নেতা। ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগান মানুষ ভালো ভাবে নেননি, যার ফলে কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্কে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

নিরঙ্কুশ জয়ের পর আজ বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন এনডিএ জোটের নির্বাচিত এমপিরাও। বৈঠকে নেতা নির্বাচিত হলে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাষ্ট্রপতির কাছে সরকার গঠনের অনুমতি চাইবেন নরেন্দ্র মোদি। ধারণা করা হচ্ছে ৩০ মে নতুন সরকার শপথ নেবে।

এবারের মন্ত্রিসভায় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ’র যোগদানের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। দলটিতে নতুন প্রশ্ন কার হাতে যাচ্ছে বিজেপির ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ