ঢাকা, মঙ্গলবার 28 May 2019, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২২ রমযান ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আবারও সাম্প্রদায়িকতার রঙ!

ভারতের ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ফল বিপর্যয় নিয়ে কবিতা লিখেছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। কবিতার কথায় পরে আসছি। এর আগে বলার বিষয় হলো, ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে ৩৪টিই পেয়েছিল মমতার তৃনমূল কংগ্রেস। এবার সেখানে মাত্র ২২টি আসন পেয়েছে মমতার দল। অন্যদিকে গত নির্বাচনে রাজ্যে মাত্র দু’টি আসনে জয় পাওয়া বিজেপি এবার ছিনিয়ে নিয়েছে ১৮টি আসন। লোকসভা নির্বাচনের পর ক্যামেরার সামনে আসেননি তৃনমূল নেত্রী মততা। ফল প্রকাশের পরদিন শুক্রবার আড়ালে থেকে তিন ভাষায় কবিতা লিখে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন তিনি। আর ভোটের ফল প্রকাশের দিন এক টুইটে বুঝিয়ে দেন নিজের বক্তব্য। বৃহস্পতিবার লিখেছিলেন, ‘সব হারই পরাজয় নয়।’ শুক্রবার লিখলেন, ‘মানিনা’ শিরোনামের কবিতা। শুধু বাংলায় নয়, ইংরেজি ও হিন্দিতে এর অনুবাদও পোস্ট করেছেন। আর সেই কবিতার মধ্য দিয়ে বোঝাতে চেয়েছেন, তিনি সব ধসের সমন্বয় চান। উল্লেখ্য যে, মমতা সাধারণত কবিতা লেখেন বাংলায়। তবে এবার তিন ভাষায় পোস্ট করে হয়তো নিজের বার্তা জাতীয় পর্যায়ে পৌঁছে দিতে চেয়েছেন মমতা। এই প্রথম কবিতার মাধ্যমে নিজের মতো করে লিখেছেন- ‘সাম্প্রদায়িকতার রঙে আমি বিশ্বাস করি না।’
মমতা সাম্প্রদায়িকতার রঙে বিশ্বাস না করলে কি হবে, ভারতের গেরুয়া মহল তো সাম্প্রদায়িকতার রঙে ঘোর বিশ্বাসী। ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল সামনে আসতে না আসতেই আবারো তা-ব শুরু হয়েছে গোরক্ষকদের। এনডিটিভি’র খবরে বলা হয়, গরুর গোশত পাচারের অভিযোগে এক নারীসহ তিন মুসলিমকে গাছে বেঁধে বেদম প্রহার করা হয়েছে। মধ্য প্রদেশের সিডনিতে এ ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মারধরের শিকার মুসলিমরা জানান, তাদের শুধু গাছে বেঁধেই প্রহার করা হয়নি, বরং ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান দিতেও বাধ্য করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাটিতে ফেলেও প্রচ- মারধর করা হয় ওদের। রাস্তায় দাঁড়িয়ে এ দৃশ্য দেখেছেন অনেকে। কিন্তু কেউই এগিয়ে আসেনি। নির্বাচনের সময় এবং পরে গেরুয়া মহলের যে আস্ফালন লক্ষ্য করা যাচ্ছে তা ভারতের জন্য এক অশনি সংকেত। মোদি সরকার কি পদক্ষেপ নেয়, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ