ঢাকা, বুধবার 12 June 2019, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৮ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ঈদের চাঁদ দেখার বিভ্রান্তি নিয়ে উত্তপ্ত সংসদ

সংসদ রিপোর্টার : পবিত্র ঈদুল ফিতরের চাঁদ দেখার বিভ্রান্তি নিয়ে উত্তপ্ত হয়েছে সংসদ। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা ঈদের আগের রাতে ১১টার সময় চাঁদ দেখার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেন। সেই সাথে ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন।
গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাড়িঁয়ে বিএনপির বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ বলেন, ঈদের আগের রাতে আমরা সবাই এশার নামায পড়ে তারাবিহর নামাযের জন্য অপেক্ষা করছি। তখন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ঘোষণা দিলেন চাঁদ দেখা যায়নি। আমরা তারাবিহর নামায পড়লাম। অনেকে সেহেরি খাওয়ার জন্য ঘুমিয়ে পড়লেন। পরে রাত ১১টায় তিনি চাঁদ দেখা যাওয়ার ঘোষণা দিলেন। প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে চাঁদ দেখা কেন হয়নি। মানুষের ধর্মীয় অনুভূতি নিয়ে তামাশা করা ঠিক নয়। ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ব্যর্থ হওয়ায় তিনি তার পদত্যাগ দাবি করেন।
তিনি আরো বলেন, সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। অথচ বিসমিল্লাহর যে অর্থ দেয়া হয়েছে সংবিধানে তা সঠিক নয়। সঠিক অর্থ দেয়া হোক। আর সংবিধানের মূলনীতিতে আল্লাহর উপর আস্থা ও বিশ্বাস ছিল, তা উঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এ বিষয়গুলো পুনরায় সংযোজন করার দাবি করেছেন তিনি।
‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’ এ স্লোগানের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এ স্লোগানটি ইসলাম বিরোধী ও ধর্মীয় অবমাননার শামিল। ইসলাম ধর্মে তার কোন সুযোগ নেই। সুতরাং ধর্ম যার যার উৎসব সবার এ স্লোগান দিয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত না দেয়ার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।
পরে রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, চাঁদ দেখার বিষয়ে ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর আরো সচেতন হওয়ার প্রয়োজন ছিল। তিনি অপেক্ষা করে পরেই ঘোষনা দিতে পারতেন। কিন্তু দু’বার দু ধরনের সিদ্ধান্ত দেয়ায় বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে। এতে মানুষের ভোগান্তি হয়েছে। এ বিষয়ে তিনি ধর্মপ্রতিমন্ত্রী তীব্র সমালোচনা করেন।
জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফজলুর রহমান বলেন, ঈদের আগের রাতে সাধারণত হানিফ সংকেত বিটিভিতে আনন্দ মেলার আয়োজন করেন। কিন্তু এবার চাঁদ দেখা নিয়ে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ঈদের আগের রাতে আনন্দ মেলার আয়োজন করেছেন। সেহেরী খাওয়ার সময় ও সকালে ঘুম থেকে উঠে যখন জানতে পারলেন ঈদের খবর, তখন তা অনেক বিনোদন হয়েছে। এসব বিনোদন দিয়েছেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী। এ ধরনের বিনোদন দেয়া থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহবান জানান।
তিনি আরো বলেন, রূপপুর পারমানিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আবাসিক ভবনে বালিশ কান্ড নিয়ে তুঘলকি কান্ড ঘটে গেছে। এঘটনা নিয়ে পূর্তমন্ত্রীর ৩শ বিধিতে বিবৃতি দাবি করেছেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ