ঢাকা, বৃহস্পতিবার 13 June 2019, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৯ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আমিরের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে অস্ট্রেলিয়া অলআউট ৩০৭ রানে

রফিকুল ইসলাম মিঞা : পাকিস্তানকে ৩০৮ রানের টার্গেটই দিল চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। টার্গেটটা আরো বড় দিতে পারত দলটি। শুরুটা সে ভাবেই করেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ওয়ার্নারের সেঞ্চুরির পরও অস্ট্রেলিয়ার স্কোর থেমে যায় ৩০৭ রানে। আমিরের বোলিং আক্রমণে এক ওভার বাকি থাকতে অস্ট্রেলিয়া অলআউট হয় ৩০৭ রান করে। মূলত অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন-আপ গুঁড়িয়ে বড় সংগ্রহ করতে দেননি মোহাম্মদ আমির। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে তিনি ১০ ওভারে ৩৫ রান দিয়ে নিয়েছেন ৫ উইকেট। চলতি আসরে বিশ্বকাপে তৃতীয় বোলার হিসেবে ৫ উইকেট নিলেন আমির। এর ফলে ৩ ম্যাচে সর্বোচ্চ ১০ উইকেট নিয়ে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী এখন তিনি। শাহীন শাহ আফ্রিদি নেন দুই উইকেট। ফলে জয়ের জন্য পাকিস্তান পায় ৩০৮ রানের টার্গেট। গতকাল টন্টনে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। আর আগে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই রানের গতি বাড়িয়ে নেয়ার চেস্টা করেন দুই ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নার। ফলে ওপেনিং জুটি থেকে অস্ট্রেলিয়ার আসে ১৪৬ রান। উদ্বোধনী জুটিতে নতুন রেকর্ড গড়েন অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার ও এ্যারন ফিঞ্চ। কারণ চলতি বিশ্বকাপে উদ্বোধনী জুটিতে এটাই সর্বোচ্চ রানের জুটি। পেসার মোহাম্মদ আমির ৮২ রান করা ফিঞ্চকে আউট করে ভাংগেন এই ওপেনিং জুটি। মোহাম্মদ হাফিজের ক্যাচ বানিয়ে এই ভয়ঙ্কর জুটি ভাঙেন তিনি। আউট হওয়ার আগে ৬ চার ও ৪ ছক্কায় ৮৪ বলে ৮২ রান করেন ফিঞ্চ। দলীয় ১৮৯ রানে স্মিথের বিদায়ে অস্ট্রেলিয়া হারায় দ্বিতীয় উইকেট। মাহাম্মদ হাফিজের বলে আসিফ আলীর হাতে ক্যাচ হওয়ার আগে অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ করেন ১০ রান। ব্যাট করতে নেমে বড় স্কোর গড়তে পারেনি গ্রেন ম্যাক্সওয়েল। ১০ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ২০ রান করে দ্রুত বিদায় নেন তিনি। তবে দলের পক্ষে সেঞ্চুরি করেই মাঠ ছাড়েন ওপেনার ওয়ার্নার। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৫তম এবং ২০১৯ বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরি পান তিনি। ১০২ বলে ১০১ রান করে সেঞ্চুরি তুলে নেন ওয়ার্নার। সেঞ্চুরি করতে তিনি হাঁকিয়েছেন ১১ চার ও ১ ছক্কা। তবে সেঞ্চুরি পর বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেননি ওয়ার্নার। দলীয় ২৪২ রানের মাথায় ১১১ বলে ১০৭ রান করে তিনি ফেরত যান শাহীন আফ্রিদির বলে ইমাম-উল-হককে ক্যাচ দিয়ে। ওয়ার্নারের বিদায়ের পর রানের গতি কমতে থাতে অস্ট্রেলিয়ার। পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে দ্রুত সাজঘরে ফিরতে থাকেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা। তবে শন মার্শ ২৩ রান ও উসমান খাজা ১৮ রান করে কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন। আর উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স ক্যারির ২০ রানের ওপর ভর করে তিনশ’ রানের ঘরে পৌছে অস্ট্রেলিয়া। তবে ক্যারির বিদায়ের পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে চ্যাম্পিয়নরা। শেষ পর্যন্ত এক ওভার বাকি থাকতে দলটি অলআউট হয় ৩০৭ রানে। নাথান কোল্টার নাইন ও পেট কামিন্সের ব্যাট থেকে আসে ২ রান করে। ৩ রান করেন মিচেল স্টার্ক। কেন রিচার্ডসন অপরাজিত থাকেন ১ রানে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ