ঢাকা, বুধবার 24 July 2019, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আজ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই একটা বাড়তি উত্তেজনা। দুদলের কেউ ভালো ফর্মে থাকুক বা না থাকুক, তাদের মধ্যকার ম্যাচের আগেই অনলাইন আর অফলাইনে ছড়িয়ে যায় উত্তেজনা।তাই বলা যায়, বিশ্বকাপের সবচাইতে আকর্ষণীয় ম্যাচে আজ মুখোমুখি হতে যাচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে এই হাইভোল্টেজ ম্যাচ শুরু হবে বিকেল সাড়ে ৩টায়।

এর আগে তিন ম্যাচ খেলা ভারত দুটিতে জয় পেয়েছে এবং অপর ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়েছে। তাই বলতে গেলে অপরাজিত থেকেই পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে তারা।

অপরদিকে, চার ম্যাচের মাত্র একটিতে জয় নিয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে দাঁড়াবে পাকিস্তান। তাদের দুই হারের পাশাপাশি একটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে গেছে।

বিশ্বকাপে ভারতকে কখনো হারাতে পারেনি পাকিস্তান। ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় এ আসরে ছয়বারের মুখোমুখিতে প্রতিবার জয় পেয়েছে ভারত। তাই এবার জয় পেতে মরিয়া থাকবে সরফরাজ আহমেদের দল।

ওল্ড ট্রাফোর্ডের যে ভেন্যুতে রবিবার ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ১৯৯৯ সালের ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে সে ভেন্যুতেই পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪৭ রানের জয় পেয়েছিল ভারত।

তবে অতীত ফলাফল বা পরিসংখ্যান যাই থাকুক না কেন পাকিস্তান আত্মবিশ্বাস পেতে পারে সর্বশেষ অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিন্স ট্রফির ফাইনাল থেকে। কারণ সে ফাইনালেই ফখর জামানের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় পাকিস্তান।

এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে এ পর্যন্ত ১৩১ বার দুদল মুখোমুখি হয়েছে। এতে পাকিস্তান ৭৩টি এবং ভারত ৫৪টি জয় পায়। বাকি চার ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়।

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে বিরাট কোহলি বাহিনীর জন্য সবচেয়ে বড় দুঃসংবাদ হলো তাদের অন্যতম ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে ছাড়াই খেলতে হবে তাদের।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হাতে চোট পাওয়ার কারণে তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে শিখরকে। তার বদলি হিসেবে ভারত ইতোমধ্যে দেশ থেকে ঋশব পন্তকে ডেকে পাঠিয়েছে। দিনেশ কার্তিক অথবা মুরালি বিজয়ও প্রবেশ করতে পারেন একাদশে। তবে ধাওয়ানের স্থানে ওপেন করার সম্ভাবনা লোকেশ রাহুলেরই বেশি। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে চারে নেমে দুর্দান্ত শতক তুলে নিয়েছিলেন তিনি।

এবারের বিশ্বকাপে ভারতীয়দের সবচেয়ে বড় শক্তি বৈচিত্র্যময় বোলিং। অন্যদিকে সবশেষ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে কোহলিদের হারানোর সুখসৃতি বড় অনুপ্রেরণা পাকিস্তানের।

গত দুই ম্যাচে রান না পাওয়া শোয়েব মালিকের জায়াগা হারানোর গুঞ্জন থাকলেও ভারতের বিপক্ষে ব্যাট হাতে খুবই সফল তিনি। ৪১ ম্যাচে ৪৮.৬১ গড়ে ১৭৮২ রান এসেছে তার উইলো থেকে। ভারত-পাকিস্তান এই দ্বৈরথে বৃষ্টি বাধার প্রবল সম্ভাবনাও থাকছে।

ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ ধসিয়ে দিতে সরফরাজ আহমেদ অবশ্য তার দুই পেসার- মোহাম্মাদ আমির ও ওয়াব রিয়াজের ওপর আস্থা রাখতে চাইবেন। দুজনেরই ভারতের বিপক্ষে আগ্রাসী বোলিংয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ