ঢাকা, বুধবার 24 July 2019, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আজ জয়ের বিকল্প নাই

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বকাপে নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। টনটনের সমারসেট ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩ টায়। সেমিফাইনালে যাবার লক্ষ্যে এ ম্যাচে জয়টা খুবই বেশি প্রয়োজন হয়ে পড়েছে টাইগারদের। তাই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দল জয় ছাড়া অন্যই কিছুই ভাবছে না বলে জানালেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

আর জয়ের জন্য ইতিহাস ও পরিসখ্যান- দুই’ই বাংলাদেশের পক্ষে। ২০১৮ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মে- এই ১০ মাসে বাংলাদেশ আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আর এই গত মাসে আয়ারল্যান্ডে হওয়া তিন জাতি টুর্নামেন্ট মিলে ৯ বার মুখোমুখি হয়েছে। তাতে বাংলাদেশের পাল্লা অনেক ভারী। টাইগাররা সাতবারই জিতেছে।

এমন নয়, এই জয়গুলো শুধু দেশের মাটিতে। গত বছরের জুলাই মাসে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে গিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২-১’এ সিরিজ হারিয়ে এসেছে। আর তার মাত্র পাঁচ মাস পর দেশের মাটিকে ঠিক একই ব্যবধানে উইন্ডিজকে হারিয়েছে মাশরাফির দল। সবশেষ গত মাসে আয়ারল্যান্ডে তিন জাতি আসরে রবিন লিগে দুইবার এবং ফাইনালেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়েছে বাংলাদেশ।

তবে, শুধু পরিসংখ্যান নিয়ে আত্মতুষ্টিতে থাকলে চলবে না বলেও সতর্ক করে দিলেন মাশরাফি।তিনি বলেন, ‘ভুলে গেলে চলবে না, এটা দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নয় যে, আগের সুখস্মৃতি কাজে দেবে। বিশ্বকাপে টানা ৯ দলের সাথে খেলা। সেটাও এক ভেন্যুতে নয়। ভিন্ন ভিন্ন ভেন্যু তথা ভিন্ন পরিবেশে। অতীতে কি হয়েছে? তা ভেবে ও ঐ চিন্তায় খেললে কার্যকর ফল পাওয়া যাবে না। এখানে এক ম্যাচ খেলার পর অন্য দল আর ভিন্ন ভেন্যুতে খেলা। এক ম্যাচের পরই অন্য দল ও কন্ডিশনে খেলার কথা ভাবতে হচ্ছে। সেখানে অতীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে কিভাবে জিতেছিলাম- তা ভেবে বসে থাকলে তো আর চলবে না।’

তিনি বলেন, মাশরাফি বলেন, ‘প্রথম ও শেষ কথা হলো জয় প্রয়োজন। আমরা যদি আরো একটি ম্যাচ জিতে থাকতাম, তারপরও এই ম্যাচে জয় খুবই প্রয়োজন থাকতো। তাই জয়ের কোন বিকল্প কিছু নেই। শারীরিকভাবে সবাই ঠিক থাকার কথা। ছোট-ছোট ইনজুরি থাকবেই এটা স্বাভাবিক। বিশ্বকাপে ভালো করতে হলে এক জন, দু’জন নয়, সবারই দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। যতদূর সম্ভব দলের বেনিফিট হয়, সেটা লক্ষ্য রাখা দরকার অধিনায়ক হিসেবে। আমি সেটা চেষ্টা করেছি। আশা করি, এটা দলকে আরও বেশি উৎসাহী করবে। এই মুহূর্তে আমার কাছে মনে হয়, সকলের নিজের পারফরমেন্স নিয়ে ভাবা উচিত। এমন চিন্তা আসাটাই স্বাভাবিক।’

পাশাপাশি জেতার জন্য পরিকল্পনা থাকা প্রয়োজন উল্লেখ করে টাইগার অধিনায়ক বেলন,  মাশরাফি বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলতে গেলে যেকোন দলকে পরিকল্পনা করেই খেলতে হয়। কারণ তারা টি-২০ মেজাজে খেলে থাকে। ওয়ানডেতেও মারমুখী মেজাজে খেলে তারা। এসময় বোলারদের জন্য চ্যালেঞ্জ থাকে। নিজের উপর আস্থা রাখতে হবে। ইতিবাচক ব্যাপার হচ্ছে, তারা যেহেতু বড় শট খেলবে তাই আউটেরও সুযোগ আছে। ঐ সুযোগগুলো যদি আমরা নিতে পারি, তবে উইকেট নিতে পারি।’

নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে বিধ্বস্ত করতে প্রধান ভূমিকা ছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের। পাকিস্তানকে ১০৫ রানেই অলআউট করে দেয় ক্যারিবীয় বোলাররা। তাই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের নিয়ে দলের ব্যাটসম্যানদের সতর্ক থাকতে বললেন মাশরাফি, ‘তাদের বোলিং অ্যাটাককে আমরা খেলে এসেছি। আগে সাফল্য পেলেও, কাল নতুন একটা ম্যাচ। এখন তারা বোলিং অ্যাটাকে ভালো করছেও। তাই আমাদের ব্যাটসম্যানদের সেটা মাথায় রেখে খেলতে হবে। শুরুতে ব্যাটসম্যানদের সতর্ক থাকতে হবে। আবার বোলারদের মাথায় রাখতে হবে যাতে আমরা উইকেট নিতে পারি।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ