ঢাকা, বুধবার 24 July 2019, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ইরানের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যে মার্কিন ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের সঙ্গে আমেরিকার উত্তেজনা বৃদ্ধির একই সময়ে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেছেন মার্কিন ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্যাট্রিক শানাহান। কথিত ইরানি হুমকির মুখে মার্কিন স্বার্থ রক্ষা করার লক্ষ্যে মধ্যপ্রাচ্যে অতিরিক্ত এক হাজার সেনা পাঠানোর ঘোষণা দেয়ার দু’দিনের মাথায় নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শানাহান।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার এক টুইটার বার্তায় দায়িত্ব থেকে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সরে দাঁড়ানোর খবর জানিয়ে বলেন, তিনি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা মার্ক এস্পারকে ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিতে যাচ্ছেন।

আমেরিকার আইন অনুযায়ী, সিনেটের অনুমোদন পাওয়ার আগ পর্যন্ত প্রেসিডেন্টের নিয়োগপ্রাপ্ত মন্ত্রীকে ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যেতে হয়। প্যাট্রিক শানাহান সে অনুমোদন পাওয়ার আগেই সরে গেলেন।

গত বছরের ডিসেম্বরে পদত্যাগ করেন জিম ম্যাটিস

প্যাট্রিক শানাহান পদত্যাগের আগের দিন সোমবার জানিয়েছিলেন, মধ্যপ্রাচ্যে আরো এক হাজার সেনা পাঠাচ্ছে আমেরিকা। তিনি দাবি করেন, মধ্যপ্রাচ্যে নতুনকরে সেনা মোতায়েনের লক্ষ্য হচ্ছে মার্কিন স্বার্থ নিশ্চিত করা। তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, প্রায় এক হাজার অতিরিক্ত সেনা পাঠানোর অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এসব সেনা আকাশ, নৌ ও স্থল হুমকি মোকাবেলায় কাজ করবে। ইরান ও ইরান-পন্থি গ্রুপগুলো মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনা এবং স্বার্থের জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে বলে তিনি আবারও দাবি করেন।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের পদ্ধতি নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে মতবিরোধের জের ধরে পদত্যাগ করেছিলেন তৎকালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জিম মেটিস। তারপর এই পদে শানাহান নিয়োগ পেয়েছিলেন।

তবে ট্রাম্পের এমন সিদ্ধান্তে দেশটির নিরাপত্তা ব্যবস্থার সর্বোচ্চ মহলে এক অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন গণমাধ্যমগুলো। গত সোমবার (১৭ জুন) ওমান উপকূলে দুই মার্কিন ট্যাংকারে হামলার পর পর প্রতিরক্ষা দপ্তরের সর্বোচ্চ পদে এমন পরিবর্তনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া এসেছে দেশটিতে। এ হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করে ওই অঞ্চলে অতিরিক্ত এক হাজার সেনা মোতায়েনের আদেশ দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের আড়াই বছরের শাসনামলে এ নিয়ে বহু মন্ত্রী ও শীর্ষ পদের বহু কর্মকর্তা হয় পদত্যাগ করলেন না হয় বরখাস্ত হলেন।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ