ঢাকা, শনিবার 22 June 2019, ৮ আষাঢ় ১৪২৬, ১৮ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

হংকংয়ে এবার পুলিশ সদরদপ্তর ঘিরে বিক্ষোভ

২১ জুন, বিবিসি : বিতর্কিত প্রত্যর্পণ বিল বাতিলের দাবিতে হংকংয়ের হাজার হাজার মানুষ পুলিশের প্রধান কার্যালয় ঘিরে রেখে আন্দোলন করছে।

আন্দোলনকারীদের কারণে ‘গুরুত্বপূর্ণ জরুরি সেবা’ ব্যাহত হচ্ছে জানিয়ে পুলিশ তাদের শান্তিপূর্ণভাবে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বলে গতকাল শুক্রবার জানায় বিবিসি।

হংকং সরকার প্রস্তাবিত একটি প্রত্যর্পণ বিল নিয়ে গত সপ্তাহ থেকে এশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ এই বাণিজ্য নগরীতে টানা বিক্ষোভ চলছে। কোথাও কোথাও বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে,আটক করা হয়েছে কয়েকজনকে। প্রস্তাবিত ওই বিলে হংকংয়ের আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত সেখানকার যে কোনো বাসিন্দাকে তাইওয়ান,ম্যাকাউ কিংবা চীনের মূলভূখণ্ডে বিচারের জন্য পাঠানোর সুযোগ রাখা হয়।

বেইজিংপন্থি হংকং সরকারের যুক্তি ছিল, প্রত্যর্পণের সুযোগ না থাকায় হংকং চীনের অন্যান্য অংশের অপরাধীদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে।

অন্যদিকে, সমালোচকদের আশঙ্কা, ওই আইন ব্যবহার করে চীন হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থি রাজনীতিবিদদের ওপর ছড়ি ঘোরাতে পারবে। সেইসঙ্গে হংকংয়ের বেইজিংবিরোধী হিসেবে পরিচিতরা কমিউনিস্ট পার্টির নিয়ন্ত্রণাধীন চীনের বিচার ব্যবস্থার জালে আটকা পড়ে যাবেন।

বিলের বিরুদ্ধে লাখ লাখ মানুষ বিক্ষোভ শুরু করলে হংকংয়ের প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম শুরুতে বিলটি স্থগিত করেন। কিন্তু তাতে বিক্ষোভকারীদের মন গলেনি। তারা বিলটি পুরোপুরি বাতিল করা এবং ক্যারি লামের পদত্যাগ দাবি করেন। গণবিক্ষোভের মুখে গত রোববার হংকং সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে ক্যারি লাম বিতর্কিত বিলের জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

যুক্তরাজ্য ১৯৯৭ সালে চীনের শাসনে হংকংকে ফিরিয়ে দেওয়ার পর থেকে হংকংয়ে ‘এক দেশ, দুই ব্যবস্থাপনার’ নীতি চলছে। তবে স্বাধীন বিচার ব্যবস্থাসহ কিছু ক্ষেত্রে সেখানে স্বাধীনতা আছে। এশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ এ বাণিজ্য নগরীরতে প্রায় ৭০ লাখ মানুষ বাস করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ