ঢাকা, মঙ্গলবার 23 July 2019, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

গোলাম আযমের স্ত্রী আফিফা আযমের ইন্তিকাল: শনিবার নামাজে জানাযা

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমীর, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ইসলামী চিন্তাবিদ ও ভাষা আন্দোলনের নেতা অধ্যাপক গোলাম আযমের সহধর্মিনী বেগম আফিফা আযম আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টায় ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তিকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না-ইলাইহি রাজিঊন)। তিনি ফুসফুসের সংক্রামণসহ নানা জটিল রোগে ভুগছিলেন। তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। তিনি ৬ পুত্র ও বহু নাতী-নাতনী এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গিয়েছেন। তার ইন্তিকালে জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। 
জানা যায়, তার প্রথম পুত্র আব্দুল্লাহিল মামুন আল আযমী, দ্বিতীয় পুত্র আব্দুল্লাহিল আমিন আল আযমী, তৃতীয় পুত্র আব্দুল্লাহিল মোমেন আল আযমী, চতুর্থ পুত্র সাবেক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহিল আমান আল আযমী, পঞ্চম পুত্র আব্দুল্লাহিল নোমান আল আযমী, ষষ্ঠ পুত্র আব্দুল্লাহিল সালমান আল আযমী। তার ৪র্থ পুত্র সাবেক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহিল আমান আল আযমীকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ২০১৬ সালের আগস্ট মাসে তার বাড়ী থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত তার কোন খবর পাওয়া যায়নি।

মরহুমা আফিফা আযমের নামাযে জানাযা আগামীকাল শনিবার রাত সাড়ে ৮ টায় মগবাজারস্থ কাজী অফিস লেন জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। 


শোকবাণী: বেগম আফিফা আযমের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ ও সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান যুক্ত শোকবাণী দিয়েছেন। 
শোকবাণীতে তারা বলেন, বেগম আফিফা আযমের ইন্তিকালে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আমরা আমাদের একজন অতি আপনজনকে হারানোর গভীর বেদনা অনুভব করছি। জামায়াতের একজন মহিলা সদস্যা (রুকন) হিসাবে তিনি সারা জীবন ইসলামী সমাজ কায়েম করার জন্য সংগ্রাম করে গিয়েছেন। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীরসহ জামায়াতে ইসলামীর বিভিন্ন দায়িত্ব পালনকালে তিনি অধ্যাপক গোলাম আযম রাহিমাহুল্লাহকে সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করে গিয়েছেন। তিনি তার সারা জীবন যে ত্যাগ স্বীকার করে গিয়েছেন তার কোন তুলনা হয় না। তার ৪র্থ পুত্র সাবেক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহিল আমান আযমীকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ২০১৬ সালের আগস্ট মাসে তার বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে। পুত্র শোকের বিরাট বেদনা নিয়েই তিনি ইন্তিকাল করেছেন। 
শোকবাণীতে তারা আরো বলেন, বেগম আফিফা আযম (রাহিমাহুল্লাহ)-কে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা ক্ষমা ও রহম করুন এবং তাকে নিরাপত্তা দান করুন। তাকে সম্মানিত মেহমান হিসেবে কবুল করুন ও তার কবরকে প্রশস্ত করুন। তার গুণাহখাতাগুলোকে নেকিতে পরিণত করুন। তার জীবনের নেক আমলসমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফিরদাউসে স্থান দান করুন। 
শোকবাণীতে তার শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে তারা বলেন, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা তাদেরকে এ শোকে ধৈর্য ধারণ করার তাওফিক দান করুন। 


ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের শোক : বেগম আফিফা আযমের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর নূরুল ইসলাম বুলবুল এবং কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ যুক্ত শোকবাণী দিয়েছেন। 
শোকবাণীতে তারা মরহুমার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে বলেন, আল্লাহ তা’আলা তাদেরকে এ শোকে ধৈর্য ধারণ করার তাওফিক দান করুন।

জামায়াতের মহিলা বিভাগের শোক : অধ্যাপক গোলাম আযমের স্ত্রী আফিফা আযমের ইন্তিকালে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন জামায়াত ইসলামীর মহিলা বিভাগের সেক্রেটারী মিসেস শামসুন্নাহার নিজামী। মিসেস নিজামী তার বিবৃতিতে সরকারের প্রতি মানবিক দিক বিবেচনায় মরহুমার গুম হওয়া সন্তানকে মুক্তি দিয়ে জানাযার নামাযে অংশগ্রহন করার সুযোগ করে দেয়ার আহবান জানান। 
মিসেস নিজামী আরও বলেন, আফিফা আজমের মৃতুতে ইসলামী আন্দোলন একজন অভিভাবকে হারাল। মরহুমা তার দীর্ঘ সাংগঠনিক ও সাংসারিক জীবনে ইসলামী আন্দোলনের জন্য যে ত্যাগ-কোরবানী ও সবরের পরিচয় দিয়েছেন, যুগে যুগে তা ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। বিশেষ করে জীবনের শেষ প্রান্তে এসে কারান্তরীন মজলুম স্বামীর শাহাদাত ও চোখের সামনে সন্তানের হৃদয়বিদারক গুমের ঘটনার পরও একাকী দেশে থেকে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে যেভাবে আল্লাহর উপর ভরসা করে ধৈর্য ধারন করেছেন তা একজন উঁচু স্তরের ইমানদারের পক্ষেই সম্ভব। 
তিনি বলেন, আল্লাহ তায়ালার কাছে এই ফরিয়াদই করছি যেন তিনি মরহুমাকে ক্ষমা করে জান্নাতুল ফিরদাউসে মজলুম জননেতা অধ্যাপক গোলাম আযমের সাথে একত্রিত করে দেন এবং মরহুমার শোক সন্তপ্ত মজলুম পরিবারকে ধৈর্য ধরার তাওফিক দান করেন।

শিবিরের শোক : জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমীর, বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম শীর্ষ নেতা অধ্যাপক গোলাম আযম রহেমাহুল্লাহর সহধর্মিণী আফিফা আযমের ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। 
গতকাল দেয়া যৌথ শোক বার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. মোবারক হোসাইন ও সেক্রেটারি জেনারেল মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, ইসলামী আন্দোলনের পথে অবিচল থাকার কারণে অবৈধ জালিম সরকার তাঁর পরিবারের উপর বিভিন্নভাবে জুলুম অব্যাহত রেখেছে। প্রথমে বিনা অপরাধে সাজানো অভিযোগে তাঁর স্বামী মরহুম অধ্যাপক গোলাম আযম পরিবারের সান্নিধ্য ও উন্নত চিকিৎসা বঞ্চিত হয়ে কারাবন্দী অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। এর কিছুদিন পরেই তাঁর আদরের সন্তান সাবেক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমান আল আযমীকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে গুম করা হয় এবং এখন পর্যন্ত তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। অন্যান্য সন্তানরাও জুলুমের শিকার হয়ে বিদেশে অবস্থান করতে বাধ্য হচ্ছেন, দেশে আসতে পারছেন না। জীবনের শেষ প্রান্তে তিনি এহেন মজলুম অবস্থায় দুনিয়া থেকে বিদায় নিলেন। তাঁর এই বেদনাদায়ক ইন্তিকালে ছাত্রশিবিরের প্রতিটি দায়িত্বশীল-কর্মী মর্মাহত ও গভীরভাবে শোকাহত। 
নেতৃদ্বয় মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবার যেন ধৈর্য ধারণ করতে পারে সে জন্য মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ