ঢাকা, বুধবার 10 July 2019, ২৬ আষাঢ় ১৪২৬, ৬ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

যন্ত্রপাতি না কিনেই ১৬ কোটি টাকার বিল উত্তোলন!

খুলনা অফিস : যন্ত্রপাতি না কিনেই মিথ্যা দরপত্র ও রশিদ দেখিয়ে ১৬ কোটি ৬১ লাখ টাকার বিল উত্তোলনের অভিযোগে সাতক্ষীরার সাবেক সিভিল সার্জন ডা. তওহীদুর রহমানসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুদকের খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করেন প্রধান কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক জালাল উদ্দিন। দুদকের সংশোধিত বিধিমালা অনুযায়ী, এখন থেকে সমন্বিত জেলা কার্যালয়েই মামলা করা যাবে। এ বিধিমালা অনুযায়ী, সেখানে প্রথমবারের মতো মামলা দু’টি দায়ের করা হলো।
একইদিন গ্রামীণ ব্যাংকের ১ লাখ ৬৯ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সাবেক জ্যেষ্ঠ কেন্দ্র ব্যবস্থাপক কে এম মশিউর রহমানের নামে আরও একটি মামলা হয়েছে। এ মামলার বাদী খুলনা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক তরুণ কান্তি ঘোষ।
সাতক্ষীরার সিভিল সার্জনের বিরুদ্ধে মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, সাবেক সিভিল সার্জন ডা. তওহীদুর রহমানসহ অন্য আসামীরা সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যন্ত্রপাতির কোনো চাহিদাপত্র না থাকা সত্ত্বেও দরপত্র আহ্বান, সংগ্রহ, মূল্যায়ন ও কার্যাদেশ দিয়ে তিনটি মিথ্যা বিলের বিপরীতে মোট ১৬ কোটি ৬১ লাখ ৩১ হাজার ৮২৭ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।
মামলার অন্য আসামীরা হলেন, সিভিল সার্জন অফিসের স্টোরকিপার এ কে এম ফজলুল হক, হিসাবরক্ষক আনোয়ার হোসেন, মেসার্স বেঙ্গল সায়েন্টিফিক কোম্পানির মালিক জাহের উদ্দিন সরকার, আবদুর ছাত্তার সরকার, আসাদুর রহমান, কাজী আবু বকর উদ্দিন ও স্বাস্থ্য প্রকৌশলের সাবেক সহকারী প্রকৌশলী আবদুল কুদ্দুস।
অন্যদিকে, টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দ্বিতীয় মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গ্রামীণ ব্যাংকের সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার মথুরেশপুর শাখার জ্যেষ্ঠ কেন্দ্র ব্যবস্থাপক ছিলেন কে এম মশিউর রহমান। সেখানে তিনি ২০১০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের ১৪ আগস্ট পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। এ সময় বিভিন্ন কেন্দ্রের সদস্যদের কাছ থেকে ঋণের কিস্তি, ডিপিএস ও এককালীন ঋণের টাকা আদায় করে ব্যাংকে জমা না রেখে ১ লাখ ৬৯ হাজার ৯০০ টাকা আত্মসাৎ করেছেন মশিউর রহমান।
দুদকের খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাজমুল হাসান বলেন, নতুন বিধিমালা অনুযায়ী খুলনাতেই মামলা নিয়েছি। এখন ঢাকা প্রধান কার্যালয়ের অনুসন্ধান বিভাগ থেকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হবে। তদন্ত শেষে বিশেষ জজ আদালতে চার্জশিট দাখিল হবে।

ধর্ষকদের বিচার দাবিতে ব্যতিক্রমধর্মী মানববন্ধন
দক্ষিণবঙ্গ স্বেচ্ছাসেবী ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ব্যতিক্রমধর্মী মানববন্ধন করে ধর্ষকদের বিচার চাইলো খুলনার তরুণ সমাজ। মঙ্গলবার বিকেলে মহানগরের শিববাড়ি মোড়ে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেয় খুলনা ব্লাড ব্যাংক, সাতক্ষীরা ব্লাড ফাউন্ডেশন, বন্ধন ব্লাড ডোনার ক্লাব, শিশুদের জন্য আমরা, আলোর মিছিল, নিবেদীতা, অন্তদর্পন, সেবক, খালিশপুর ব্লাড ব্যাংক, রক্তের বন্ধন যুব সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠন। মানববন্ধনে ‘আমার সোনার বাংলায় ধর্ষকদের ঠাঁই নাই’ ধর্ষকদের আবাদ উপড়ে ফেলো, ধর্ষণমুক্ত বাংলাদেশ গড়, আমরা ৯ টাকায় এক জিবি চাই না, আমার বোনের নিরাপত্তা চাই, একজন পুরুষই পারে আগামী কালের একটি সম্ভাব্য ধর্ষণ বন্ধ করতে, শিশুবান্ধব পরিবেশ চাই’ ইত্যাদি স্লোগান সম্বলিত ব্যানার, ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে হাজির হয় তরুণ সমাজের সদস্যরা। মানববন্ধনে ছাত্র-শিক্ষক-পেশাজীবীরাও অংশ নেন।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গোপনে ‘ক্রসফায়ার’ নয়, ধর্ষকদের বিচার হতে হবে প্রকাশ্যে, জনসম্মুখে। একই সঙ্গে ধর্ষকদের প্রশ্রয়দাতাদেরও আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে।
এসময় স্কুলশিক্ষক জিয়াউর রহমান স্বাধীনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- গ্লোবাল খুলনার আহ্বায়ক শাহ মামুনুর রহমান তুহিন, জন উদ্যোগ খুলনার সদস্য সচিব মহেন্দ্রনাথ সেন, নারী নেত্রী লুৎফুন্নেছা, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে তোহা খান, গাজী আশরাফ, শেখ তারেক, শেখ মাসুদ আহমেদ, শুভ্র দত্ত, নাদিম, রাকিব রাহয়হান রনি, নাজমুল ইসলাম প্রমুখ।
মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা শিববাড়ি মোড়ের পাবলিক হলের (জিয়া হল) সামনের বিজয় স্তম্ভের পাশ দিয়ে গোলাকার হয়ে দাঁড়িয়ে সবাইকে ধর্ষকদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার শপথ নেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ