ঢাকা, সোমবার 15 July 2019, ৩১ আষাঢ় ১৪২৬, ১১ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ব্যাংকে উচ্চ সুদহার বাস্তবায়নের প্রতিযোগিতা

স্টাফ রিপোর্টার: ছয় থেকে নয় শতাংশ সুদহার বাস্তবায়নে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে বার বার চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু এর ধারে কাছেও নেই বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো। এ মুহূর্তে ৯ থেকে ২০ শতাংশ সুদহার বাস্তবায়নের প্রতিযোগিতা চলছে ব্যাংক খাতে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায় ৪ থেকে ২০ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণ করছে বিভিন্ন ব্যাংক।
কৃষি খাতে ৯ শতাংশের উপরে ঋণ বিতরণ না করলেও ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে ৯ থেকে ২০ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফা আদায় করছে অনেক ব্যাংক। এর মধ্যে রয়েছে এবি ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, ব্র্যাক ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, ডাচ-বাংলা, ইস্টার্ন, এক্সিম, আইসিবি ইসলামী, আইএফআইসি, যমুনা, মিডল্যান্ড, মার্কেন্টাইল, মেঘনা, মধুমতি, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট, ন্যাশনাল, এনসিসি, এনআরবি, এরআরবি কমার্শিয়াল, ওয়ান ব্যাংক, পদ্মা, প্রিমিয়ার, প্রাইম ব্যাংক, সাউথ-বাংলা এগ্রিকালচার, শাহজালাল ইসলামী, সোশ্যাল ইসলামী, সাউথইস্ট, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, দি সিটি ব্যাংক, ইউসিবি, ইউনিয়ন ও উত্তরা ব্যাংক উল্লেখযোগ্য। শুধু ক্ষুদ্র ও মাঝারি ঋণে নয় বৃহৎ শিল্প ঋণ, বাণিজ্য ঋণ ও গৃহ নির্মাণ ঋণেও একই অবস্থা।
এদিকে স্প্রেড হার এখন পর্যন্ত নির্ধারিত পরিসংখ্যানের বাইরে। আমানতকারীদের যে হারে সুদ বা মুনাফা দেওয়া হয় এবং ঋণগ্রহীতাদের কাছ থেকে যে হারে সুদ নেওয়া হয় এ দুই হারের পার্থক্য বা স্প্রেড ৪ শতাংশের মধ্যে রাখার কথা থাকলেও এখনও তা বাস্তবায়ন করতে পারেনি বেশিরভাগ ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকগুলো এই নীতি পালন করলেও এখানে ব্যর্থ হচ্ছে অধিকাংশ বেসরকারি ও বিদেশি ব্যাংক।
সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ৩২টি ব্যাংকের স্প্রেডসীমা এখনও নির্ধারিত সীমার উপরে। এর মধ্যে ৭টি বিদেশী ও ২৫টি বেসরকারি ব্যাংক।
বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতে ঋণ ও আমানতের সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় বেশি। খেলাপি ঋণের আধিক্য, সঞ্চয়পত্রের সুদহার বাজারভিত্তিক না হওয়া, অসহনীয় মূল্যস্ফীতি, উচ্চ পরিচালন ব্যয় ও অতি মুনাফার প্রবণতাকে দায়ী করছেন অর্থনীতিবিদরা। তবে ব্যাংকাররা বলছেন, ঘোষণা দিয়ে কখনো স্প্রেড কমানো সম্ভব নয়। করাণ এটা নির্ভর করে ব্যাংক খাতের ঋণের চাহিদা ও সরবরাহের ওপর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ