ঢাকা, সোমবার 15 July 2019, ৩১ আষাঢ় ১৪২৬, ১১ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

জাহালমকে ক্ষতিপূরণ ও দুদককে জবাবদিহিতায় আনার তাগিদ টিআইবি’র

স্টাফ রিপোর্টার : দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা ২৬টি মামলায় ‘ভুল আসামী’ হিসেবে বিনা দোষে তিন বছর কারাভোগকারী জাহালমের ঘটনায় দুদকের তদন্ত কমিটি কর্তৃক সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দায় নিশ্চিত হওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। পাশাপাশি বিনা অপরাধে কারাভোগের মত অন্যায় ও দুঃখজনক ঘটনায় পাটকল শ্রমিক জাহালমের জন্য ন্যায্য ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত ও এর সাথে জড়িত প্রত্যেককে দৃষ্টান্তমূলক জবাবদিহিতার আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।
সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনায় দুদকের তদন্ত কমিটির অনুসন্ধানে জাহালমের ঘটনার ক্ষেত্রে দুদকের অনুসন্ধানকালীন বিভিন্ন পর্যায়ে ত্রুটি-বিচ্যুতি, দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের গাফলতি ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে সমন্বয়হীনতাকে দায়ী করে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।
দুদকের অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের একমাত্র ইতিবাচক দিক তদন্তের দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তার যথাযথ ভূমিকা উল্লেখ করে গতকাল প্রকাশিত এক বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ বিচ্যুতির দায় চিহ্নিত করে দুদকের এ প্রতিবেদন একদিকে জনগণের প্রত্যাশার প্রতিফলন এবং অন্যদিকে গভীরভাবে উদ্বেগজনক। এতে দুদকের মত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের হাতে জাহালমের সাথে ঘটে যাওয়া দুঃখজনক অন্যায়ের ক্ষেত্রে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি, এ প্রতিবেদন দুদকের অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীলতার কার্যকর চর্চা নিশ্চিতে দুদকের ব্যাপক ঘাটতির নির্দেশ করে।
তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে এ ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সুপারিশসমূহকে প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে ড. জামান আরো বলেন, ‘এ প্রতিবেদন দুর্নীতি প্রতিরোধের দায়িতপ্রাপ্ত বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানের ওপর দেশের মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনায় সহায়ক হবে, জনগণের মধ্যে এরূপ আশার সঞ্চার হবে। বিশেষ করে, প্রতিবেদনে দুদকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একাংশের গাফিলতি ও অন্যান্য সংস্থার সাথে সমন্বয়হীনতাজনিত যে কারণ উদঘাটিত হয়েছে, তা দুদকে দীর্ঘকালের পুঞ্জীভূত সমস্যা হিসেবে সর্বজনবিদিত। পাশাপাশি, প্রতিবেদনটি দুদককে এ ধরণের গাফলতি ও অন্যায় রোধে শক্ত পদক্ষেপ গ্রহণে প্রয়োজনে শুদ্ধি অভিযান পরিচালনায় উদ্বুদ্ধ করবে বলে টিআইবি প্রত্যাশা করছে।’ এছাড়া দুদকের কর্মকর্তাদের এ বিব্রতকর ব্যর্থতার পেছনে মূল অপরাধী চক্রের সাথে দুদকের কর্মকর্তাদের যোগসাজসের সম্ভাবনাও খতিয়ে দেখতে হবে।
বিবৃতিতে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, যদিও জাহালমকে যে অবর্ণনীয় ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে তার প্রকৃত ক্ষতিপূরণ কখনই সম্ভব নয়, তথাপি দুদকের এ প্রতিবেদনে নিরপরাধ জাহালমের ক্ষতিপূরণ বিষয়ে একটি আশাব্যঞ্জক সমাধানে উপনীত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক বলেন, দুদকের নিজ দায়িত্বে এ ধরণের ঘটনায় ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করতে পারলে ভবিষ্যতেও এ ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে তা গুরুত্বপূর্ণ প্রভাবক হিসেবে কাজ করবে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।
প্রতিবেদনে জাহালমের ঘটনায় ব্যাংকসমূহের দায়িত্বে গাফলতি, ভিন্ন খাতে প্রবাহ ও পাবলিক প্রসিকিউটরসহ বিভিন্ন পক্ষের সাথে সমন্বয়হীনতাকে দুঃখজনক অভিহিত করে ড. জামান আরো বলেন, ‘পুরো প্রক্রিয়ায় যেকোন একটি পক্ষ সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করলে হয়তো জাহালমকে এ ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হতোনা।প্রতিবেদনে বিভিন্ন পর্যায়ে দুদকসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দায়িত্বে অবহেলা, ত্রুটিপূর্ণপদক্ষেপ, অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় একটি চক্রের যোগসাজস চিহ্নিত হয়েছে যাদেরকে যথাযথ প্রক্রিয়ায় কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। যোগসাজসে দুদকের কর্মকর্তাদের অংশগ্রহন ছিল কিনা, ও কতটুকু, তাও বিশেষভাবে দুদককেই খতিয়ে দেখতে হবে।আইনের শাসনে সমুন্নত রাখতে প্রচলিত ব্যবস্থায় এ ধরণের ত্রুটি সংশোধন ও সার্বিক শৃংখলা প্রতিষ্ঠায় জড়িতদের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক ও জবাবদিহিমূলকপদক্ষেপের কোন বিকল্প নেই।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ