ঢাকা, মঙ্গলবার 16 July 2019, ১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

খুলনা-কলকাতা ট্রেন সার্ভিস প্রতিদিন চালুসহ ৬ দফা দাবি খুলনা চেম্বারের

খুলনা অফিস : প্রতিদিন খুলনা-কলকাতা ও কলকাতা-খুলনা ট্রেন সার্ভিস চালু, যাত্রী হয়রানি বন্ধ, পণ্য আমদানিতে জটিলতাসহ সরাসরি এ্যাম্বুলেন্স কলকাতা যাওয়ার সুযোগসহ ৬ দফা দাবি জানিয়েছেন খুলনা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। নগরীর ডাকবাংলা মোড়ের চেম্বার ভবনে এক মতবিনিময় সভায় এ দাবিগুলো জানানো হয়।
সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা চেম্বার সভাপতি কাজি আমিনুল হক। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় এ্যাসিসটেন্ট হাই কমিশনার রাজেশ কুমার রায়না। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ডা. কাজি আরিফ উদ্দিন আহমেদ, এ্যাটাচি এ্যাসিসটেন্ট হাই কমিশন অফ ইন্ডিয়া প্রাভীন শর্মা ও মনোজ কুমার পান্ডা।
চেম্বার সভাপতি কাজি আমিনুল হক সভায় ৬ দফা দাবিগুলো উপস্থাপন করেন। দাবিগুলো হলো-খুলনা স্টেশন ও কলকাতা স্টেশনে ভারত-বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন যৌথভাবে করা, ভারতীয় চেকপোস্ট সমূহে বিসনেজ ভিসার জন্য আলাদা কাউন্টার রাখার এবং বাংলাদেশ থেকে এ্যাম্বুলেন্সে রোগীরা কলকাতার বিভিন্ন হাসপাতালে যেতে পারে তার ব্যবস্থা করার, প্রতিদিন খুলনা-কলকাতা ও কলকাতা-খুলনা ট্রেন সার্ভিস চালু, ভারত থেকে বাংলাদেশে আসার সময় ভারতীয় রূপি বিনিময়ের সময় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হই, লাগেজ তল্লাশির নামে ইন্ডিয়ান সীমান্তে ভারতীয় কাস্টমস্ ও বিএসএফ দ্বারা ব্যাপকভাবে হয়রানি বন্ধ করা এবং সীমান্ত এলাকায় যখন ডলারের মূল্য অপেক্ষাকৃত রূপি দেয়াসহ ও ইনক্যাশমেন্ট সার্টিফিকেট না দেয়ার প্রতিবাদ করেন। সর্বশেষে তিনি বলেন, ঘোজাডাঙ্গায় একটি সংঘবদ্ধ চক্র স্বার্থ হাসিলেন জন্য ব্যক্তিগত পার্কিং ব্যবস্থা করে ২৫ দিন পর্যন্ত ট্রাক আটকে রেখে ট্রাক ডিটেনশন তৈরি করে, ব্যবসায়ীরা যেকোন ল্যান্ডর্পোট ও বিমানবন্দর দিয়ে ভারতে যেতে পারে তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা, যাত্রীদের সুবিধার্থে ভারতীয় চেকপোস্ট ‘বেনাপোল-হরিদাশপুর ও ভোমরা-ঘোজাডাঙ্গা’ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পরিবর্তে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ, এবং সকল পাসপোর্ট হোল্ডাররাদের জন্য পাঁচ হাজার ভারতীয় রূপি বহন করতে পারে তার সুযোগ সৃষ্টি করা।
প্রধান অতিথি ভারতীয় এ্যাসিসটেন্ট হাই কমিশনার রাজেশ কুমার রায়না চেম্বার নেতাদের দাবিগুলো সেদেশের ঊর্ধ্বতন মহলকে অবগত করবেন বলে সভায় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সভাটি পরিচালনা করেন চেম্বারের পরিচালক মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল। উপস্থিত ছিলেন চেম্বারের উর্ধ্বতন সহ-সভাপতি শেখ আসাদুর রহমান, সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বিশ্বাস বুলু, সহ-সভাপতি মো. মোস্তফা জেসান ভুট্টো, পরিচালকবৃন্দ গোপী কিষণ মুন্ধড়া, জেড এ মাহামুদ ডন, এস এম ওবায়দুল্লাহ, মো. সিরাজুল হক, কাজী মাসুদুল ইসলাম, মো. মোশাররফ হোসেন, শেখ আল্লামা ইকবাল তুহিন, মো. আবুল হাসান, মো. ইসলাম খান, খান সাইফুল ইসলাম, মো. মনিরুল ইসলাম মাসুম, মো. মাহবুব আলম, চৌধুরী মিনহাজ উজ জামান এবং খুলনা ডিস্ট্রিক্ট ইম্পোটার্স গ্রুপ এর সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ সরদার ও সাধারণ সম্পাদক কাজী নাসিবুল হাসান সান্নু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ওলিয়ার রহমান চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. আমিনুর রহমান সুমনসহ খুলনার আমদানিকারক, রফতানিকারক, ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ