ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 July 2019, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

পাসের হারে যশোর বোর্ডে সেরা খুলনা জেলা

খুলনা অফিস : গত বছরের মতো এবারও এইচএসসি পরীক্ষায় পাসের হারে বিভাগের ১০ জেলার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে খুলনা জেলা। এ বছর খুলনার ১০১টি কলেজ থেকে ২৪ হাজার ৭৬৬ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাস করেছে ২০ হাজার ২৩৯ জন শিক্ষার্থী। পাসের হার ৮৩ দশমিক ২৫ শতাংশ।  গতবছরও পাসের হারে বিভাগের সেরা ছিলো খুলনা। গত বছর খুলনার ৯৯টি কলেজ থেকে ২০ হাজার ৪২৪ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলো। এর মধ্যে পাস করেছিল ১৩ হাজার ৯৮০ জন শিক্ষার্থী। পাসের হার ছিলো ৬৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ।
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন ১০টি জেলার এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে শীর্ষে খুলনা ও সবার নিচে আছে নড়াইল। যশোর শিক্ষাবোর্ডে এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৭৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছেন। গত বছর পাসের হার ছিল ৬০ দশমিক ৪০ শতাংশ।
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র সাংবাদিকদের বলেন, এবার যশোর বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫ হাজার ৩১২ জন। যশোর বোর্ডে খুলনার পর দ্বিতীয় বাগেরহাট, তৃতীয় যশোর, চতুর্থ সাতক্ষীরা, পঞ্চম মাগুরা, ষষ্ঠ মেহেরপুর, সপ্তম ঝিনাইদহ, অষ্টম কুষ্টিয়া, নবম চুয়াডাঙ্গা ও সবার শেষে রয়েছে নড়াইল জেলা।
শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, খুলনার ১০১টি কলেজের ২৪ হাজার ৩১২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ২০ হাজার ২৩৯ জন। পাসের হার ৮৩ দশমিক ২৫ শতাংশ। বাগেরহাটের ৪৬টি কলেজের ৮ হাজার ৫৬৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ৫১৯ জন। এ জেলায় পাসের হার ৭৬ দশমিক ১১ শতাংশ। তৃতীয় স্থানে থাকা যশোর জেলার ১১৫টি কলেজের ২২ হাজার ৪৬৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ১৭ হাজার ৪৬ জন। পাসের হার ৭৫ দশমিক ৮৭ শতাংশ। সাতক্ষীরা জেলার ৭০টি কলেজের ৬ হাজার ২২৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ১০ হাজার ৩৮৫ জন। পাসের হার ৭৫ দশমিক ৭৮ শতাংশ। মাগুরার ৩৮টি কলেজের ৭ হাজার ৬৬৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৫ হাজার ৬৩৪ জন। পাসের হার ৭৩ দশমিক ৫১ শতাংশ। ষষ্ঠ স্থানে থাকা মেহেরপুর জেলার ২০টি কলেজের ৪ হাজার ৬৭৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৩ হাজার ৪২১ জন। পাসের হার ৭৩ দশমিক ১৫ শতাংশ। ঝিনাইদহ জেলার ৭২টি কলেজের ১৭ হাজার ৫০৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ১২ হাজার ৭০৪ জন। এ জেলায় পাসের হার ৭২ দশমিক ৫৭ শতাংশ। কুষ্টিয়ার ৬৭টি কলেজের ১৩ হাজার ৪৪৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৯ হাজার ৭৫৩ জন। পাসের হার ৭২ দশমিক ৫৩ শতাংশ। চুয়াডাঙ্গার ২৩ কলেজের ৭ হাজার ৭৪০ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৫ হাজার ৫২৮ জন। এ জেলায় পাসের হার ৭১ দশমিক ৪২ শতাংশ। দশম স্থানে থাকা নড়াইল জেলার ২৪ কলেজের ৬ হাজার ১৪৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৪ হাজার ২৬৬ জন। পাসের হার ৬৯ দশমিক ৪০ শতাংশ।
এদিকে খুলনা সিটি কলেজই সর্বোচ্চ সংখ্যক জিপিএ-৫ পেয়েছে বলে জানা গেছে। কলেজগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত দিনে বোর্ডে শীর্ষে অবস্থান করা কলেজগুলো এবারও ভালো ফলাফল করেছে। তবে পাসের হার ও জিপিএ-৫ পাওয়ার হার গতবারের চেয়ে কমেছে। খুলনা সরকারি সিটি কলেজ, খুলনা পাবলিক কলেজ, খুলনা সরকারি মহিলা কলেজ, পাইওনিয়ার সরকারি বালিকা মহাবিদ্যালয়, এমসিএসকে অন্যান্য বারের মতো সেরা তালিকায় রয়েছে।
নতুন কলেজ হিসেবে এবার তুলনামূলক ভাল ফলাফল করেছে জেলা প্রশাসন পরিচালিত খুলনা কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ। কলেজটি থেকে এবারই প্রথম ৪৩ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে, জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ জন, এ-পেয়েছে ৩০ জন শিক্ষার্থী।
কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর সঞ্জিব কুমার ঘোষ বলেন, অন্য সরকারি কলেজগুলোতে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীরাই ভর্তি হয়। কিন্তু নতুন কলেজ হওয়ায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অপেক্ষাকৃত খারাপ ছাত্ররাই এখানে ভর্তি হয়েছিলো। জিপিএ-৫ পাওয়া ৪ জনের মধ্যে ৫ জনই এসএসসি ‘এ’ পেয়েছিল। এই ফলাফলে আমরা অনেক খুশি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ