ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 July 2019, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আজ প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি দেবে বিনিয়োগকারীরা

স্টাফ রিপোর্টার: সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস গতকাল প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচক কিছুটা বেড়েছে। তবে অব্যাহত রয়েছে লেনদেন খরা। শেয়ারবাজারের চলমান দুরবস্থা কাটাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনায় আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি দেবে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ।
সংগঠনটির সভাপতি মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী জানান, শেয়ারবাজারের মন্দার কারণে আমরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছি। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনের পদত্যাগ অথবা অপসারণসহ বেশি কিছু দাবি তুলে ধরেছি। কিন্তু আমাদের কোনো দাবিই মানা হচ্ছে না। পুঁজিবাজার ঠিক করতে এখন আমরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আশাকরি, প্রধানমন্ত্রী আমাদের ডাকা সাড়া দেবেন। তিনি দেশের উন্নয়নে যেমন ভূমিকা রাখছেন, তেমনি শেয়ারবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের পুঁজি রক্ষায়ও এগিয়ে আসবেন। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) বিকেল ৩টায় আমরা সচিবালয়ে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়ে আসবো।
স্মারকলিপিতে কী থাকবে-জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা বিএসইসির চেয়ারম্যান পদ থেকে খায়রুল হোসেনের আপসারণ চাইব। সেইসঙ্গে পুঁজিবাজারের উন্নয়নে আগে আমরা যেসব দাবি তুলে ধরেছি, সেগুলোও প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরব। আমাদের দাবিগুলো মানা হলে শেয়ারবাজার অবশ্যই ভালো হবে। এদিকে গত কয়েকদিনের মতো বুধবারও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে মানববন্ধন করেছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। এ বিষয়ে মিজান রশিদ বলেন, আজও আমরা মানবন্ধন করেছি। তবে পুলিশ আমাদের মাইক ব্যবহার করতে দেয়নি।
তিনি বলেন, বিএসইসি প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) এর কোটা, শেয়ার লকিং এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লভ্যাংশের বিষয়ে কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও আমাদের দাবি মানা হয়নি। আমরা আইপিওতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য ৮০ শতাংশ কোটা চেয়েছিলাম এবং উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের শেয়ারে ৫ বছর লকিং চেয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের এ দাবি মানা হয়নি।
গতকাল বুধবার লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের তুলনায় ৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ১৩৩ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৮৩০ পয়েন্টে উঠে এসেছে। আর শরিয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১৭৬ পয়েন্টে।
সব সূচকের উত্থানের পাশাপাশি বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ১৯৬ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার বিপরীতে কমেছে ১১৮টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৮টির।
মূল্য সূচক ও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পাশাপাশি আজ ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। তবে অব্যাহত রয়েছে লেনদেন খরা। দিনভর বাজারটিতে ৩০৯ কোটি ৬০ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ২৭১ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। অর্থাৎ লেনদেন বেড়েছে ৩৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।
টাকার অংকে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজের শেয়ার। কোম্পানিটির ২৩ কোটি ১৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশনের ৯ কোটি ৪০ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আর ৭ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস। এছাড়া বাজারটিতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে-গ্রামীণফোন, ােবাল ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল পলিমার, জেএমআই সিরিঞ্জ, সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স এবং বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৭৩০ পয়েন্টে। বাজারটিতে হাত বদল হওয়া ২৭৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫৬টির, কমেছে ৯৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির দাম। লেনদেন হয়েছে ৩০ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ