ঢাকা, বৃহস্পতিবার 18 July 2019, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ভিসা জটিলতায় ৮২ হজ্বযাত্রীর ফ্লাইট মিস

মিয়া হোসেন: ভিসা জটিলতার কারণে বিমানের নির্ধারিত ফ্লাইট মিস করেছেন ৮২জন হজ্বযাত্রী। তারা এখন ঢাকার আশকোনার হজ্বক্যাম্পে বসে ফ্লাইটের অপেক্ষা করছেন। হজ্ব অফিস জানিয়েছে, শীঘ্রই তাদের ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হবে। ডেডিকেটেড ফ্লাইটে ব্যবস্থা করতে না পারলে শিডিউল ফ্লাইটে পাঠানো হবে। এদিকে গতকাল পর্যন্ত ৬০ হাজার ৩২৩জন হজ্বযাত্রী সৌদি আরব গমন করেছেন বলে হজ্ব অফিস জানিয়েছে।
সূত্রমতে, গত ১৪ এবং ১৫ জুলাই অনলাইন সার্ভারের জটিলতায় সঠিক সময়ে ভিসা হাতে না পেয়ে বিমানের দু’টি ফ্লাইট মিস করেছেন তিনটি এজেন্সীর ৮২জন হজ্বযাত্রী। দু’দিন পরে মঙ্গলবার ভিসা হাতে পাওয়ার পর এখন অন্য ফ্লাইটেও কোনো সিডিউল পাচ্ছেন না তারা। ফলে কবে বা কোন ফ্লাইটে এই ৮২ হজ্বযাত্রী মক্কায় যেতে পারবেন সেটিও নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউই। তবে হজ্ব অফিস জানিয়েছে, তাদের শিগগিরই ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হবে।
গতকাল বুধবার আশকোনাস্থ হজ্বক্যাম্পে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেল তিনটি হজ্ব এজেন্সির মোট ৮২ জন হজ্বযাত্রী বিলম্বে ভিসা পাওয়ার কারণে তারা বিমানের ফ্লাইট মিস করেছেন। নির্ধারিত ফ্লাইটে তারা হজ্বে যেতে পারেননি। এর মধ্যে মিনার এয়ার ট্রাভেলসের (হজ্ব লাইসেন্স নং ১০৩০) ৬৭ জন হজ্বযাত্রীর ভিসা দূতাবাসের সার্ভারের সমস্যার কারণে সঠিক সময়ে অর্থাৎ নির্ধারিত ফ্লাইটের আগে হাতে পাননি। এই ৬৭ জন হজ্বযাত্রীর যাত্রার নির্ধারিত ফ্লাইট ছিল মঙ্গলবার বিজি ৩০৩৩ ফ্লাইটে।
এটি মঙ্গলবার সকাল ১১টা ১৫ মিনিটে ঢাকা ছেড়েছে; কিন্তু এজেন্সির পক্ষ থেকে দূতাবাসে হজ্বযাত্রীদের সব ধরনের কাগজপত্র সাবমিট করার পরেও সার্ভারে সমস্যার কারণে ফ্লাইটের নির্ধারিত সময়ের আগে ভিসা পাওয়া যায়নি। এদিকে বিমানের টিকিট আগেই কনফার্ম করার কারণে বিমানকেও নির্দিষ্ট ঐ ৬৭টি আসন খালি নিয়েই মক্কার উদ্দেশ্যে উড়াল দিতে হয়েছে। ফলে এই হজ্বযাত্রীরা মঙ্গলবার দুপুরের পরে যখন ভিসা হাতে পেয়েছেন ততক্ষণে বিমানের নির্ধারতি ঐ ফ্লাইটটি ঢাকা ছেড়ে চলে গেছে।
অন্যদিকে এফ এম ট্রাভেলস নামের (হজ্ব লাইসেন্স নং ৭৭৫) আরেকটি এজেন্সির ১১ জন হজ্বযাত্রীর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঠিক সময়ে সৌদী দূতাবাসে জমা না দেয়ার কারণে ঐ ১১ জন হজ্বযাত্রীও নির্ধারিত ফ্লাইটের আগে ভিসা পাননি। একই ভুলে সাবিব ট্যুর এন্ড ট্রাভেলস নামের আরেকটি এজেন্সির (লাইসেন্স নং ১৩৮৪) মোট ৪ জন হজ্বযাত্রী নির্ধারিত ফ্লাইটের আগে ভিসা হাতে পাননি। এই দুই এজেন্সির মোট ১৫ জন হজ্বযাত্রীর যাত্রার তারিখ ছিল বুধবার সকাল সাড়ে ছয়টায়; কিন্তু মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত তারা ভিসা হাতে না পাওয়ায় বুধবার ভোরে বিমানের নির্দিষ্ট ফ্লাইটটি (বিজি ৩০৩৫) ঐ ১৫টি আসন খালি নিয়েই মক্কার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছে।
ভিসা জটিলতায় বিমানের ফ্লাইট মিস করা তিনটি এজেন্সির এই ৮২ জন হজ্বযাত্রী এখন আশকোনাস্থ হজ্ব ক্যাম্পেই অবস্থান করছেন। অনেকে কান্নাকাটিও করছেন বলে জানিয়েছেন তাদের স্বজনরা। হজ্বক্যাম্পের ডরমেটরিতে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও দুশ্চিন্তায় অনেকে না খেয়েই সময় পার করছেন। অবশ্য তাদেরকে অন্য একটি বা দু’টি ফ্লাইটে মক্কায় পাঠানোর চেষ্টা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও ঢাকা হজ্ব অফিস।
আশকোনা হজ্ব ক্যাম্পের পরিচালক (হজ্ব অফিসার) মো: সাইফুল ইসলাম বুধবার দুপুরে দৈনিক সংগ্রামকে জানান, আমরা ফ্লাইট মিস করা হজ্বযাত্রীদের অন্য কোন ফ্লাইটে মক্কায় পাঠানোর ব্যবস্থা করবো; কিন্তু বিষয়টি একটু কঠিন ও জটিল। কেননা সব ফ্লাইটেরই তো হজ্বযাত্রীকে আগে থেকেই কনফার্ম। সবাইকে টিকিট দেয়া হয়েছে। এখন অন্য কোনো ফ্লাইটের কোনো সিট ফাঁকা থাকলে অথবা শিডিউল ফ্লাইটে তাদের পাঠানো হবে।  তবে হজ্ব অফিস বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছে বলেও তিনি জানান। কোন হজ্বযাত্রীর যাকে কোনো প্রকার কষ্ট বা দুর্ভোগ না হয় সেই চেষ্টাই হজ্ব অফিসের পক্ষ থেকে আমরা করছি। সার্ভার জটিলতা না থাকলে এ সমস্যার সৃষ্টি হতো না। এক্ষেত্রে এজেন্সীকে যেন জরিমানা না করা হয় সে বিষয়ে হজ্ব অফিস সুপারিশ করেছে বলেও তিনি জানান।
এদিকে হজ্ব অফিস জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত ৫৭ হাজার ২৮৭ জন হজ্বযাত্রী সৌদি আরব গমন করেছেন। আর গতকাল বুধবার ৯টি ফ্লাইটে আরো ৩ হাজার ৩৬জন হজ্বযাত্রী যাওয়ার কথা রয়েছে। সব মিলিয়ে ৬০ হাজার ৩২৩জন সৌদি আরব গেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ