ঢাকা, শুক্রবার 19 July 2019, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

নার্সিং পেশাকে ক্যাডারভুক্তিসহ ৪ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ বেসিক গ্রাজুয়েট স্টুডেন্ট নার্সেস এসোসিয়েশনের উদ্যোগে চারদফা দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: পুরানো কারিকুলাম বহাল রাখা, নার্সিং পেশাকে বিসিএস ক্যাডারভুক্তিসহ ৪ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ বেসিক গ্র্যাজুয়েট স্টুডেন্ট নার্সেস এসোসিয়েশন নামে নার্সদের একটি সংগঠন। এসময় ইন্টার্ন ভাতা বাড়ানো ও নার্সিং কলেজকে পূর্নাঙ্গ কলেজে রূপান্তর করার দাবি ও জানিয়েছেন তারা। 

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে নার্সিং শিক্ষার্থীরা এই দাবি জানায়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থী অন্তর বাবু, অ্যাসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক মমতা বানু, শিক্ষার্থী আবুল বারাকাত প্রমুখ। 

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষে অ্যাসোসিয়েশন সাধারণ সম্পাদক মমতা বানু দৈনিক সংগ্রামকে জানান, পুরাতন কারিকুলাম বহাল রেখে নতুন কারিকুলাম বাতিল করা, নার্সিং পেশাকে বিসিএস ক্যাডারভুক্ত করা, ইন্টার্ন ভাতা ৬ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ১২ হাজার টাকা করা, শিক্ষার্থী বৃত্তি ২ হাজার টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা করা এবং নার্সিং কলেজকে পূর্ণাঙ্গ কলেজে রূপান্তর করাই তাদের মূল দাবি।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থী আবুল বারাকাত দৈনিক সংগ্রামকে  জানান, ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে বিএসসি ইন নার্সিংয়ের জন্য কারিকুলাম প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু এ কারিকুলামটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কোন প্রেক্ষিতে এ রকম কারিকুলাম প্রণয়ন করা হয়েছে তা জানতে চাইলেও কর্তৃপক্ষ কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তাই, আমরা পুরানো কারিকুলাম বহাল রাখার দাবি জানিয়েছি আমরা। নতুন কারিকুলাম দিতে হলে তা রিভিউ করে প্রণয়ন করতে হবে।  তিনি আরও জানান, নার্সিং পেশোকে প্রোফেশনাল স্বীকৃতি হিসেবে বিসিএস সেবা ক্যাডার চালুর দাবি জানিয়েছি আমরা। এছাড়া ইন্টার্নদের ভাতা ৬ হাজার থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করার দাবি জানিয়েছি। এসময় ঢাকা নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থী অন্তর বাবু দৈনিক সংগ্রামকে জানান, নার্সিং পেশাকে জনপ্রিয় করতে এবং ক্লিনিক্যান প্র্যাকটিসের মাধ্যমে হাসপাতাল  সেবা দেয়ায় শিক্ষার্থীদের ২ হাজার টাকা বৃত্তি বা স্টাইপেন্ড দেয়া হয়। সে ভাতা বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করারর দাবি জানিয়েছি আমরা। এছাড়া আমাদের কলেজের শিক্ষকদের পদ স্থায়ী না। তাই ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক কর্মকর্তাদের দিয়ে কলেজ পরিচালিত হয়। তাই, শিক্ষক-ইনস্ট্রক্টরদের পদ সৃষ্টি করে নার্সিং কলেজগুলোকে পূর্ণাঙ্গ কলেজে রূপান্তরের দাবিও জানানো হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ