ঢাকা, শুক্রবার 19 July 2019, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

গাজীপুর থেকে ঢাকা পর্যন্ত যানজট জাতীয় সমস্যা -মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী 

 

স্টাফ রিপোর্টার: গাজীপুর থেকে ঢাকার মহাসড়কে যানজট সমস্যাকে স্থানীয় সমস্যা নয় বরং জাতীয় সমস্যা বলে উল্লেখ করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী বলেছেন, গাজীপুরের যানজট সমস্যা একটি জাতীয় সমস্যা। দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে গাজীপুর পর্যন্ত পৌঁছাতে সময় লাগে তিন থেকে চার ঘণ্টা। আর ঠিক এ গাজীপুর থেকে ঢাকায় আসতে তার থেকেও বেশি সময় লাগে। এ সমস্যা নিরসনে গাজীপুর থেকে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার প্রধান সড়কের কাজ প্রক্রিয়াধীন। চায়না কোম্পানির গাফিলতির কারণে তা একটু দেরি হচ্ছে। তবে খুব দ্রুতই এর কাজ শেষ হবে। কাজ শেষ হলে জনগণ এর সুফল পেতে থাকবেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার জাতীয় প্রেস ক্লাব ভিআইপি লাউঞ্জে গাজীপুর উন্নয়ন পরিষদের উদ্যোগে আধুনিক গাজীপুরের উন্নয়নের চ্যালেন্স ও করণীয়: জনপ্রতিনিধি ও পেশাজীবীদের ভূমিকা শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। গাজীপুরের সংসদ সদস্য শামসুন্নাহার ভূইয়া’র সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, গাজীপুর উন্নয়ন পরিষদের উপদেষ্টা ও বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল। পরিষদের আহ্বায়ক আতাউর রহমান ও যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ সালাম শান্ত এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, বি আরটিএ’র সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আইয়ূবুর রহমান খান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোঃ আনিসুর রহমান মিয়া, অধ্যাপক এম এ বারী, সমাজসেবক মোঃ শহীদুল্লাহ, ডা: আব্দুল জলিল, রাশেদ আহমেদ প্রমুখ।

এ সময় গাজীপুরের উন্নয়ন কর্মকা- নিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, বনভূমি রক্ষা, বর্জ্য নিঃসারণ এবং নদী রক্ষায় সরকার বিভিন্নভাবে গাজীপুরের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে সরকার পরিকল্পনা নিয়ে ৮ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প পাস করেছে। এখন শুধু সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে কাজগুলো করতে হবে। সিটি করপোরেশন ও গাজীপুরের স্থানীয় হাসপাতালগুলোতে জনবলের অভাব থাকার কথা উল্লেখ করে সেগুলো আগামী এক বছরের মধ্যে নিরসন করা হবে বলেও এ সময় জানান মন্ত্রী।

ঢাকার প্রধান চারটি নদীতে বর্জ্য না ফেলার জন্য শিল্পপতিদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, নদী রক্ষায় সরকার শক্ত অবস্থানে রয়েছে। নদীর নাব্যতা রক্ষায় কেবিনেটে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবং তা বাস্তবায়নের কাজ চলছে। আপনারা দেখেছেন, নদীর পাশের বসতি উচ্ছেদ করতে গিয়ে ম্যাজিস্ট্রেটদের লাঞ্ছনার মুখে পড়তে হয়েছে। তবুও ঢাকার প্রধান চারটি নদীসহ দেশের অন্য নদীগুলো রক্ষায় সরকার বদ্ধপরিকর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ