ঢাকা, শনিবার 20 July 2019, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ইসকনের সকল কার্যক্রম নিষিদ্ধ করুন -আল্লামা শফী

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ স্কুলে শিক্ষার্থীদের প্রসাদ খাওয়ালো আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ-ইসকন। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের রথযাত্রা উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী (ফুড ফর লাইফ) কর্মসূচির আড়ালে গত ১১ জুলাই থেকে নগরীর প্রায় ৩০টি স্কুলের শিক্ষার্থীর মাঝে প্রসাদ বিুরণ করা হয়। ইসকন কর্মীদের শেখানো মতে, কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মন্ত্র পাঠ করে এ প্রসাদ গ্রহণ করে। শ্লোক-মন্ত্র পাঠের মাধ্যমে মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের প্রসাদ বিুরণ বিশ্বের অন্যতম সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এ দেশে সম্প্রীতি বিনষ্টের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক উস্কানীর পাঁয়তারা করছে উগ্রবাদী সংগঠন ইসকন। গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে হেফাজত আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা) বলেন, ইসকন মুসলিম শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রসাদ বিুরণ করে মুসলিম ধর্মীয় চেতনাবোধেও মারাত্মক আঘাত করেছে। মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাসে এসব মন্ত্র মুখে উচ্চারণ করার কোনো প্রকারের বৈধতা নেই।হিন্দু সম্প্রদায় পুণ্যের আশায় দেবুার নামে উৎসর্গকৃত খাবারই হলো প্রসাদ। এ প্রসাদ আহার করা মুসলমানদের জন্য হারাম। সংবিধান অনুযায়ী প্রত্যেক ধর্মাবলম্বী নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করতে পারবেন। তবে নিজেদের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান অন্য ধর্মের কারও উপর চাপিয়ে দেয়া ধর্মীয় অধিকার ও অনুভূতিতে হস্তক্ষেপের শামিল,যা সংবিধান পরিপন্থী ও সুস্পষ্ট সংবিধান লঙ্ঘন।
হেফাজত আমীর আরও বলেন, মুসলিম অধ্যুষিত দেশে কোমলমতি মুসলিম শিক্ষার্থীদের (হরে কৃষ্ণ হরে রাম,মাতাজি প্রসাদ কি জয়) শব্দ উচ্চারণ করিয়ে সুক্ষ্মভাবে ঈমান হরণের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এদেশে সকল ধর্মের মানুষের সহাবস্থান নিশ্চিত করতে এমন ঘৃণ্য কর্মকান্ডে জড়িতদের দ্রুত শাস্তি নিশ্চিত করে উগ্রবাদী সংগঠন “ইসকন” এর সকল কার্যক্রম নিষিদ্ধ করুন। মূলতঃ ইসকন তাদের হীনকর্মকা-ের মাধ্যমে বাংলাদেশে সম্প্রীতি বিনষ্টে উস্কানি দিচ্ছে। ভারতের মতো এদেশেও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে। ইতোমধ্যে এ উগ্র সংগঠনটি দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় উস্কানীসহ নানাভাবে উত্তেজনা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে যাচ্ছে। আমি মনে করি সংগঠনটি বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জন্য হুমকি ।তাই স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় ইসকনকে নিষিদ্ধ করে তাদের সকল কার্যক্রম বন্ধ করতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। অন্যথায় এই উগ্র গোষ্টির এহেন কর্মকা-ের জন্য সরকারকেই চরম মূল্য দিতে হবে।
আল্লামা আহমদ শাহ শফী কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন- অনতিবিলম্বে এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ ও ইসকনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।তা নাহলে আমাদের ঈমান আকিদা রক্ষা ও দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে ইসকনসহ এধরনের উগ্রবাদি সংগঠনের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে হেফাজতে ইসলাম এ দেশের সর্বস্তরের তৌহিদী জনতাকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষনা করতে বাধ্য হবে।
ইসলামী ফ্রন্ট : গতকাল বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ঢাকা মহানগরের উদ্যোগে ইহুদীবাদী সংগঠন ইসকন কর্তৃক মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাসাদ খাওয়ানোর নামে ‘‘হরে কৃষ্ণ হরে রাম’’ স্লোগানের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি নষ্টের প্রতিবাদে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর কর্তৃক আয়োজিত জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মুখে সকাল ১০ টায় প্রতিবাদী মানববন্ধন সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আব্দুল হাকিমের সঞ্চালনায় ও সভাপতি অধ্যক্ষ আবু জাফর মুহাম্মদ হেলাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
বক্তারা বলেন-আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘ ‘ইসকন’ সম্প্রতি বাংলাদেশের বিভিন্ন স্কুলে "ফুড ফর লাইফ" কর্মসূচির অধীনে খাবার বিুরণের নামে স্কুলের মুসলিম শিক্ষার্থীদের "হরে কৃষ্ণ, হরে রাম, মাতাজি প্রসাদ কি জয়" ধ্বনিগুলোর মাধ্যমে শান্তিময় সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতির দেশে জঙ্গিবাদের বিষপাষ্প ছড়ানো এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার উসকানির কৌশল বলে মনে করি।
মানববন্ধনে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা, ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আ ন ম মাসউদ হোসাইন আল-কাদরী, মোহাম্মদ আব্দুল মতিন, মাহমুদুল হাসান আনসারী, এড. মোখতার আহমদ সিদ্দিকী মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন নূরী, মোহাম্মদ আব্দুল হাই, মুহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, হাফেজ মোহাম্মদ উমর ফারুক, মুহাম্মদ মাসউদ হোসাইন, মোহাম্মদ আবুল কালাম মাইজভান্ডারি, ছাত্রনেতা খাজা মুহাম্মাদ সাইফু হক আকন্দ, ছাত্রনেতা দিদার হোসাইন রাকিব, যুবনেতা মুহাম্মদ দিদার হোসেন, হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

চট্টগ্রামে বিভিন্ন সংগঠনের মিছিল মানববন্ধন
চট্টগ্রাম ব্যুরো: সম্প্রতি চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুলে জঙ্গির হিন্দু সংগঠন ইসকন এর উদ্যোগে হিন্দু পূজার রথযাত্রা উপলক্ষে কৃষ্ণ প্রসাদ খাওয়ানো এবং কোমলমতি মুসলিম ছাত্রদের দ্বারা হরে রাম ও হরে কৃষ্ণ স্লোগান দেওয়ার প্রতিবাদে গতকাল শুক্রবার বাদে জুমা চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে ইসলামী ঐক্যজোট ও ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম মহানগর এর যৌথ উদ্যোগে এক প্রতিবাদী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও ইসলামি ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব এবং চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী বলেন, এদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, এই দেশে হিন্দু মুসলিম খৃষ্টান সহবস্থান এ দেশের ঐতিহ্য কিন্তু হঠাৎ করে বহিঃর্বিশ্বের কোন এক শক্তিধর রাষ্ট্রের পৃষ্টপোষকতায় ইসকন নামের হিন্দুত্ববাদী জঙ্গি সংগঠনের উৎপত্তি করে হিন্দু সম্প্রদায়ের নিয়ম নীতি ব্যতিরেকে তারা নতুন হিন্দুত্ববাদ সৃষ্টি করে এ দেশে ফ্যাসাদ লাগাতে চায়। আমরা তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি এবং জঙ্গি সংগঠন ইসকনকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানাচ্ছি।
মাওলানা রুহী বলেন, ইসকন কার্যক্রম আমরা খুবই গুরুত্ব দিয়ে উপলব্ধি করেছি, তারা হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ধর্মীয় গোঁড়ামি চড়িয়ে হিন্দুদেরকে মুসলমানদের মুখোমুখি দাঁড় করাতে চায়। তারা আগামীতে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য হুমকি স্বরূপ দেশের অভ্যন্তরে অরাজকতা সৃষ্টি করে দেশকে অকার্যকর এবং সাম্প্রদায়িক বানাতে চাই। আমরা তা হতে দিব না ইনশাআল্লাহ। রুহী আরো বলেন, আগামী সপ্তাহের মধ্যে জঙ্গি সংগঠন ইসকনের কুচক্রীদের গ্রেফতার ও শাস্তির আওতায় আনতে হবে। তা না হলে আগামী সপ্তাহে বৃহত্তর কর্মসূচির মাধ্যমে চট্টগ্রাম অচল হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ। সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা ওসমান কাসেমী বলেন, ইসকন আসলে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছে তাই এদের অনবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে। ইসকন বিদেশী প্রভুদের খুশি করার জন্য মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক বীজ বপন করতে চায়। ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ওসমান কাসেমীর সভাপতিত্বে ও মহানগর সেক্রেটারি আবুল কাসেমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, ইসলামী ঐক্যজোট চট্টগ্রাম মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা হাজী মুজাম্মেল হক, সহ-সভাপতি মাওলানা আমিন শরীফ, মাওলানা মুহাম্মদ আলি, মাওলানা আলমগির, মাওলানা মনসুরুল হক, যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা আ ন ম আহমদ উল্লাহ, মাওলানা ইউনছু, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা শিবলী নোমানী, ইসলামী ছাত্র খেলাফত কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ইকবাল খলিল, কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান হাকীম, ইসলামী ছাত্র খেলাফত চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সেক্রেটারি এরশাদ সিকদার।
এদিকে গত বাদ জুমা চট্টগ্রাম আন্দরকিল্লা জুমা মসজিদ চত্বর থেকে ইসলামী শাসনতনএ ছাএ আন্দোলন এক বিশাল প্রতিবাদ মিছিল বের করে।এ সময় তারা ইসকনকে নিষিদ্ধ করার দাবী জানায়। পরে নগরীর কোতওয়ালী মোড়ে গিয়ে তারা সমাবেশ করে। এ সময় কড়া পুলিশী নিরাপওা ব্যবস্থা ছিল।
ইসকনের দুঃখ প্রকাশ--হিন্দু বৈষ্ণব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ বা ইসকনের পক্ষ থেকে শিশুদের মধ্যে খাবার বিুরণের একটি ভিডিও নিয়ে নানা সমালোচনার পর বিষয়টি নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছে সংগঠনটি। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে এই দুঃখ প্রকাশ করা হয়। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে আরও সতর্কতার সঙ্গে কার্যক্রম পরিচালনা করারও অঙ্গীকার করেছে ইসকন। সিএমপি কমিশনার মাহাবুবুর রহমানকে লেখা ওই চিঠিটি ইসকন প্রর্বুক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক দারুব্রহ্ম জগন্নাথ দাস স্বাক্ষরিত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ