ঢাকা, রোববার 21 July 2019, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আরামবাগ ও শেখ জামালের সহজ জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারিয়ে জয়ের ধারায় ফিরেছে শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব। অপর ম্যাচে রহমতগঞ্জকে হারিয়ে সহজ জয় পেয়েছে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। গতকাল শনিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত লিগের ফিরতি পর্বের ম্যাচে ২-০ গোলে জয় পেয়েছে সাবেক চ্যাম্পিয়ন শেখ জামাল। প্রথম পর্বে দুই দল গোলশূন্য ড্র করেছিল।ম্যাচের প্রথমার্ধেই দুই গোলের দেখা পায় ধানমন্ডির ক্লাবটি। বিজয়ী দলের পক্ষে গাম্বিয়ার ফরোয়ার্ড এবু কান্তে ও সলোমন কিং একটি করে গোলে করেন। শক্তির বিচারে তুলনামূলক এগিয়ে থাকা ধানমন্ডির এই ক্লাবটির সাথে শুরু থেকেই পিছিয়ে ছিল চট্টগ্রাম আবাহনী। প্রধান্য নিয়ে খেলতে থাকা দলটি গোলে দেখা পায় ম্যাচের মাত্র ৫ মিনিটের সময়।

আগের ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিংয়ের কাছে হেরে আসা শেখ জামালকে গোল উপহার দেন এবু কান্তে। সলোমন কিংয়ের শট বারে লেগে ফিরলে আসে। ফরতি শটে জাল খুঁজে নেন গাম্বিয়ার ফরোয়ার্ড এবু কান্তে। ম্যাচের ৩৭ মিনিটে শাখাওয়াত হোসেন রনির ব্যাক পাস ধরে ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো কোনাকুনি শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সলোমন কিং।চট্টগ্রাম আবাহনী যে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেনি তা কিন্তু নয়। গোল লাভের মত একাধিক সুযোগ তাদের সামনে ও এসেছিল। কিন্তু ভাগ্য ফেভার করেনি। প্রথমার্ধের শেষ দিকে চট্টগ্রাম আবাহনীর সোহেল মিয়ার শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। দ্বিতীয়ার্ধেও দলটিকে কাঙিক্ষত গোল এনে দিতে পারেননি ফরোয়ার্ডরা। ২২ ম্যাচ শেষে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের সংগ্রহ সাত জয় ও ছয় ড্রয়ে ২৭ পয়েন্ট । অপরদিকে ২১ ম্যাচে অষ্টম হারের স্বাদ পাওয়া চট্টগ্রাম আবাহনীর পয়েন্ট ২৩।

এদিকে ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত অপর ম্যাচে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ৬-৩ গোলের সহজ পার্থক্যে রহমতগঞ্জকে হারিয়েছে। রহমতগঞ্জের জন্য ম্যাচটি ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জিততে না পারুক, আরামবাগের কাছ থেকে একটি পয়েন্ট ছিনিয়ে আনতে পারলেও সেটা তাদের অবনমন এড়ানোর লড়াইয়ে যোগ হতো জ্বালানি হিসেবে। সে সম্ভাবনা তৈরিও করেছিল পুরনো ঢাকার ক্লাবটি। প্রথমার্ধে ২-১ গোলে এগিয়ে থেকে মহা মূল্যবান পয়েন্ট পাওয়ার আশা জেগেছিল তাদের। তবে শেষ পর্যন্ত দশম হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের।ম্যাচের ১৬ মিনিটে নাইজেরিয়ান ম্যাথু চিনেদুর গোলে এগিয়ে যায় আরামবাগ। কিন্তু গোল খেয়ে যেন তেঁতে ওঠে রহমতগঞ্জ। ২৮ মিনিটে কঙ্গোর সিয়ো জুনাপিও এবং ৪১ মিনিটে সোহেল রানা গোল করলে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় রহমতগঞ্জ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই রহমতগঞ্জের রক্ষণে ঝড় বইয়ে দিতে থাকে মারুফুল হকের দল। ৪৭ মিনিটে চিনেদু গোল করে সমতা আনেন। তারপর রীতিমতো গোল উৎসব স্বাগতিক দলের।ক্যামেরুনের পল এমিল ৫৪ মিনিটে এবং জালাল মিয়া ৬৭ মিনিটে গোল করে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেন রহমতগঞ্জকে। ৭৬ মিনিটে উজবেকিস্তানের বাবাখানভ ও পরের মিনিটে পল এমিলি গোল করলে ব্যবধান ৬-২ হয় আরামবাগের। ৮৬ মিনিটে জুনাপিও পেনাল্টি থেকে গোল করলে রহমতগঞ্জের হারের ব্যবধানটাই কমে।২২ ম্যাচে এটি নবম জয় আরামবাগের। ৩০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পঞ্চম স্থানে মারুফুল হকের দল। আর ২১ ম্যাচে দশম হারে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে দশম স্থানে রহমতগঞ্জ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ