ঢাকা, রোববার 21 July 2019, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

দায়-দায়িত্বহীন বক্তব্য দিয়ে তিনি দেশেরই ক্ষতি করেছেন -মিয়া গোলাম পরওয়ার

বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা গত ১৮ জুলাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে সাক্ষাত করে “বাংলাদেশে মুসলিম মৌলবাদীরা হিন্দুদের জায়গা-জমি দখল ও ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে” মর্মে যে মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছেন তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা ‘বাংলাদেশে মুসলিম মৌলবাদীরা হিন্দুদের জায়গা-জমি দখল ও বাড়ি-ঘর পুড়িয়ে দিয়েছেন’ মর্মে যে মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছেন আমি তার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তার এ বক্তব্য সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য-প্রণোদিত।
গতকাল শনিবার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশের বিরুদ্ধে এ ধরনের দায়-দায়িত্বহীন বক্তব্য দিয়ে তিনি দেশেরই ক্ষতি করেছেন। তার এ ধরনের তৎপরতা অনাকাক্সিক্ষত ও অনভিপ্রেত। তিনি মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে বাংলাদেশের ভাবমর্যাদা ক্ষুণ্ন করেছেন।
মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, বাংলাদেশ সম্প্রদায়িক-সম্প্রীতির দেশ। এ দেশে সকল সংখ্যালঘুই সুখে-শান্তিতে বসবাস করছে। সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি বিনষ্টের হীন উদ্দেশ্যেই তিনি বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের সম্পর্কে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে পরিস্থিতি ঘোলা করার অপচেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে বাংলাদেশকে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা চালিয়েছেন। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন মহল তার ঐ মিথ্যা বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তিনি এ মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে নিজের ব্যক্তি স্বার্থে দেশের ক্ষতি করেছেন।
তিনি তার বক্তব্যে বলেছেন যে, ‘বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লক্ষ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানকে গুম করা হয়েছে।’ এত অধিক সংখ্যক সংখ্যালঘু তো বাংলাদেশে ছিলই না। তাহলে এত অধিক সংখ্যক সংখ্যালঘু গুম হল কীভাবে? এতেই স্পষ্টভাবে বুঝা যাচ্ছে যে, তার এ বক্তব্যটি নির্জলা মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই নয়। তার এই বক্তব্য রাষ্ট্রদ্রোহীর শামিল। সুতরাং সরকারকে তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ