ঢাকা, বুধবার 24 July 2019, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

রুশ বিমান লক্ষ্য করে কয়েকশ সতর্কতামূলক গুলী ছুঁড়লো দক্ষিণ কোরিয়া 

২৩ জুলাই, আরআইএ, রয়টার্স : রুশ ও চীনা বিমানের বিরুদ্ধে দক্ষিণ কোরিয়ার আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছে সিউল। রাশিয়ার একটি সামরিক বিমান লক্ষ্য করে দক্ষিণ কোরীয় বিমান থেকে কয়েক শ’ রাউন্ড সতর্কতামূলক গুলীও ছোড়া হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গতকাল মঙ্গলবার তাদের দেশের যুদ্ধবিমান থেকে গুলীগুলো ছোড়া হয়। তবে আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ অস্বীকার করে রাশিয়া বলছে, দক্ষিণ কোরিয়ার পাইলটরা বেপরোয়া আচরণ করছে। আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে চীনও।

দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা সিউলে বলেন, প্রথমবারের মতো একটি রুশ সামরিক বিমান দক্ষিণ কোরীয় আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রণালয় দাবি করে, এদিন সকালে দুইটি রুশ ও দুইটি চীনা বোমারু বিমান একসঙ্গে কোরিয়া এয়ার ডিফেন্স আইডিন্টিফিকেশন জোন (কাডিজ) এ প্রবেশ করে। আবার সকাল ৯টার পর পর আলাদা একটি রুশ বিমান ডোকডো দ্বীপের উপর দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার আকাশসীমায় প্রবেশ করে। ডোকডো দ্বীপটি দক্ষিণ কোরিয়ার নিয়ন্ত্রণাধীন। তবে জাপানও এর মালিকানা দাবি করে থাকে এবং একে ডাকে তাকেশিমা নামে।

রুশ বার্তা সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় নিজেদের কৌশলগত বোমারু বিমানের দক্ষিণ কোরীয় আকাশসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, দক্ষিণ কোরীয় সামরিক বিমান হঠাৎ রুশ বোমারু বিমানের কাছাকাছি চলে এসেছিল এবং তাদের মধ্যে কোনও যোগাযোগ হয়নি।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, দক্ষিণ কোরিয়ার এয়ার ডিফেন্স আইডেন্টিফিকেশন জোন কোনও রাষ্ট্রাধীন আকাশসীমা নয়। সেখানে সব দেশের বিমানেরই চলাচলের স্বাধীনতা রয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ-এর এক কর্মকর্তা জানান, রুশ বিমান লক্ষ্য করে তার দেশের যুদ্ধবিমান থেকে ৩৬০ রাউন্ড গুলী ছোড়া হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, রাশিয়ার বিমান কোনও হুমকিমূলক জবাব দেয়নি। বিমানটি দক্ষিণ কোরিয়ার আকাশসীমা ছেড়ে গিয়েছিল। তবে ২০ মিনিট পর আবার সেটি প্রবেশ করে। এতে আরও বেশি করে সতর্কতামূলক গুলী ছুড়তে বাধ্য হয় সিউল।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কার্যালয় জানিয়েছে, সেদেশের শীর্ষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা চুং ইউই ইয়ং রুশ নিরাপত্তা পরিষদের সেক্রেটারি নিকোলাই পাত্রুশেভের কাছে আকাশসীমা লঙ্ঘনের ব্যাপারে কঠোর আপত্তি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমরা এ ঘটনাকে গভীরভাবে আমলে নিয়েছি। যদি এ ধরনের পরিস্থিতির পুনরাবৃত্তি ঘটে, তবে আমরা আরও কঠোর ব্যবস্থা নেব।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ