ঢাকা, বুধবার 24 July 2019, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ জিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

লুটের রাজত্ব কায়েম রাখতেই ক্ষমতাসীন আ’লীগ খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী রেখেছে

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীতে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: লুটের রাজত্ব কায়েম রাখতেই ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকার দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীতে এক বিক্ষোভ সমাবেশে একথা বলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহল কবির রিজভী। তিনি বলেন, অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতার জোরে ‘গণতন্ত্রের মা’ জনগণের প্রাণপ্রিয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করে রেখেছেন। এই সরকার যে ভোট চুরির মাধ্যমে ক্ষমতা জবরদখল করেছে তা শুধু দেশবাসী নয়, গোটা বিশ্ববাসীও সেটি জানে। তিনি হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, অবিলম্বে বেগম জিয়াকে মুক্তি দেয়া না হলে গণআন্দোলনের মাধ্যমেই তাকে মুক্ত করা হবে।
দলের চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল বেলা ৪টায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনসমূহের একটি বিক্ষোভ মিছিল নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারও কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিকট এসে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। মিছিলে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ গ্রহণ করেন।
মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, জনগণের কল্যাণ নয়, বরং লুটের রাজত্ব কায়েম রাখতেই বর্তমান মিডনাইট নির্বাচনের অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতার জোরে ‘গণতন্ত্রের মা’ জনগণের প্রাণপ্রিয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করে রেখেছেন। এই সরকার যে ভোট চুরির মাধ্যমে ক্ষমতা জবরদখল করেছে তা শুধু দেশবাসী নয়, গোটা বিশ্ববাসীও সেটি জানে। মধ্যরাতের ভোটের সরকার বলেই বর্তমান অবৈধ শাসকগোষ্ঠী জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকারকে কবর দিয়ে বিএনপিসহ সকল বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে একদলীয় বাকশালী শাসন প্রতিষ্ঠা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কিন্তু জনগণ আওয়ামী শাসকগোষ্ঠীর এই স্বপ্ন কোনদিনই পূরণ হতে দেবে না। দেশের আপামর জনগণের আস্থাভাজন নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি দৃঢ় অঙ্গীকারাবদ্ধ।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, গরীবের টাকা চুরি ও তাদের পেটে লাথি মারতে এখন ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের উপরও করের বোঝা চাপাচ্ছে জনবিদ্বেষী সরকার। ইতোমধ্যে প্রায় পৌনে দুই শ পণ্য উৎপাদন, সরবরাহ ও সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে ব্যবসায় নিবন্ধন নেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, যা ভ্যাট নিবন্ধন হিসেবে পরিচিত। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবি আর) গত রোববার এই আদেশ দিয়েছে। ভ্যাট নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ছোট ব্যবসার তালিকায় আছে রেস্তোরাঁ, মিষ্টির দোকান, আসবাব বিক্রেতা, কোচিং সেন্টার, শরীরচর্চা কেন্দ্র (জিম), বিউটি পারলার, মোটর ওয়ার্কশপ, ডেকোরেটরের দোকান, যানবাহন ভাড়া প্রদানকারী ইত্যাদি। তিনি বলেন, আমি অবৈধ সরকার কর্তৃক ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ওপর ভ্যাট আরোপের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এধরণের গণবিরোধী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।
দেশের অর্থনীতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে এক দিনেই চার হাজার কোটি টাকার বেশি দর হারিয়েছে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর। এখন  বিনিয়োগকারীদের মাথায় হাত। এক দিনেই ৪ হাজার ৩৫৮ কোটি টাকার লোকসান গুনতে হয়েছে বিনিয়োগকারীদের। এতে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছেন ঋণগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা। এখন সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক বেড়েছে।
গণমাধ্যমের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, গত ৩০ জুন চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পাস হওয়ার পর থেকে গত সোমবার পর্যন্ত মাত্র ১৫ কার্যদিবসে বিনিয়োগকারীদের লোকসান হয়েছে প্রায় ২৭ হাজার কোটি টাকা। শেয়ারের মূল্যমান কমে যাওয়ায় প্রায় ৪ লাখ কোটি টাকা থেকে ডিএসইর বাজার মূলধন নেমে এসেছে ৩ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকায়। রুহুল কবির রিজভী শেয়ার বাজারে এই ব্যাপক ধ্বসের জন্য সরকারকে দায়ী করে অবিলম্বে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জোর আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ