ঢাকা, শনিবার 21 September 2019, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

টুথব্রাশ জীবাণু মুক্ত রাখার সহজ উপায়

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: মুখ ও দাঁতকে জীবাণু মুক্ত রাখতেই আমরা টুথব্রাশ ব্যবহার করি।কিন্তু সেই টুথব্রাশ যদি জীবাণুতে পরিপূর্ণ থাকে, তবে সুস্থতার বদলে অসুস্থতাই ঘিরে ধরবে শরীরকে। এজন্যই, শুধু দাঁত নয়, টুথব্রাশেরও যত্ন নেয়া এবং সেটাকে জীবাণুমুক্ত রাখা প্রয়োজন। কিছু সহজ উপায়ে টুথব্রাশ জীবাণুমুক্ত রাখা সম্ভব। যেমন:

খোলামেলা, আলো বাতাসযুক্ত শুকনো স্থানে টুথব্রাস রাখুন।

ভেজা, স্যাঁতস্যাঁতে জায়গায় বা বন্ধ কন্টেইনারে টুথব্রাশ রাখলে তাতে জীবাণু আক্রমণের সম্ভাবনা থাকে বেশি।

প্রতি সপ্তাহে একবার মিনিট দুয়েকের জন্য গরম পানিতে আপনার ব্রাশটি ভিজিয়ে রাখুন। এতে ব্রাশ জীবাণু মুক্ত থাকবে।

ব্যবহারের আগে ও পরে ট্যাপের পানির ধারায় টুথব্রাশ ধরে রেখে পরিষ্কার আঙ্গুল দিয়ে ব্রিসলগুলো ঘষে ধুয়ে নিন। এরপর ব্রাশ থেকে অতিরিক্ত পানি ঝেড়ে ফেলে দিন। প্রতিদিন ব্রাশ শেষে ব্রাশটি ভালো করে পরিষ্কার করুন।

একজনের টুথব্রাশ আরেকজনের সঙ্গে শেয়ার করা যাবে না। এতে তার শরীরের জীবাণুসমূহ আপনার শরীরে প্রবেশ করে আপনাকে রোগাক্রান্ত করতে পারে।

টুথব্রাশ যদি ৫ মিনিটের বেশি মেঝেতে পড়ে থাকে তবে জীবাণু সেখানে ছড়িয়ে যায় এবং আমাদের পায়ের পাতার মধ্যে দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে। তাই, খুব সাবধানে রাখুন নিজের টুথব্রাশকে।

টুথব্রাশ ব্যবহারের পর তা একটি লম্বাকৃতির কন্টেইনারে এমনভাবে খাড়া করে রাখতে হবে, যেন একটি টুথব্রাশের সঙ্গে অপরটি স্পর্শ না করে।

দাঁতে অতিরিক্ত জোরে টুথব্রাশ ঘষা উচিত নয়। এটি দাঁতের জন্য যেমন ক্ষতিকর, তেমনি টুথব্রাশের জন্যও।

সাধারণত প্রতি ৩ থেকে ৪ মাস পরপর টুথব্রাশ পরিবর্তনের নির্দেশনা দেয়া হলেও, ব্রিসল এর অগ্রভাগ বেঁকে যেতে শুরু করলেই টুথব্রাশ পরিবর্তন করা উচিত। ব্রিসল এর আকার বিকৃত হয়ে গেলে তা দিয়ে দাঁত ভালোভাবে পরিষ্কার হওয়া সম্ভব নয়।

ভ্রমণে যাওয়ার সময় টুথব্রাশের ব্রিসলের অংশটুকু ঢেকে রাখে এমন কাভার ব্যবহার করুন। তবে ঢাকা অবস্থায়ও যাতে আলো বাতাস চলাচল করতে পারে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

উল্লেখ্য, নিয়মিত দাঁত ব্রাশ না করলে বা যত্ন না নিলে শুধু যে মুখে দুর্গন্ধ ও দাঁতের ক্ষতি হয় তাই নয়; দাঁত ও মুখের জীবানু সারা দেহে ছড়িয়ে পড়ে নানা অসুখ-বিসুখেরও জন্ম দেয়।তাই নিয়মিত দাঁত ব্রাশ সহ যতটা সম্ভব দাঁতের যত্ন নেয়া উচিত।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ