ঢাকা, শনিবার 3 August 2019, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ১ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে হচ্ছে আধুনিক কিচেন মার্কেট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম নগরে হালিশহরের ফইল্যাতলীতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত কিচেন মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। ওই মার্কেটে তরি-তরকারি, মাছ-মাংস, রান্নার বিভিন্ন উপকরণসহ যাবতীয় খাদ্য সামগ্রী পাওয়া যাবে। বিভিন্ন দেশে এ ধরনের কিচেন মার্কেট রয়েছে। বাংলাদেশের ঢাকায়ও রয়েছে কিচেন মার্কেট। চট্টগ্রামে এ প্রথম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এ প্রকল্প নিয়েছেন। ২০২০ সালের মার্চ মাসের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হবে।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সূত্র জানায়, ৩০ দশমিক ৮৪ গন্ডা জমির ওপর ওই কিচেন মার্কেটটি হবে ১০তলা বিশিষ্ট। বাণিজ্যিক এ ভবনটি নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ২০ কোটি ৬৯ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকা। ৯০ শতাংশ বিশ্ব ব্যাংকের এজেন্সি ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডা) থেকে ঋণ হিসেবে দিচ্ছে। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ মঞ্জুরিকৃত। বাকি ১০ শতাংশ চসিক তার নিজস্ব তহবিল থেকে খরচ করবে। প্রকল্পের সার্ভিস চার্জ ধরা হয়েছে ১ দশমিক ৫ শতাংশ ও ইন্টারেস্ট ৫ শতাংশ হারে।
কিচেন মার্কেটে থাকছে বেসমেন্ট পার্কিং, গ্রাউন্ড ফ্লোরে স্পোর্টস, এটিএমবুথ, ব্যাংক স্পেস, ফার্স্ট ফ্লোরে দোকান, এটিএম বুথ, ব্যাংক স্পেস, সেকেন্ড ফ্লোরে শপ ও সুপার শপ ইত্যাদি। এই কিচেন মার্কেট নির্মিত হলে নগরের লোকজন অত্যন্ত স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে ফরমালিনমুক্ত খাবার ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কেনা-বেচা করতে পারবে বলে জানিয়েছে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।
বাংলাদেশ মিউনিসিপল ডেভেলপমেন্ট ফান্ড’র (বিএমডিএফ) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ হাসিনুর রহমান বলেন, বিশ্বব্যাংকের টাকায় প্রকল্প বাস্তবায়নে সময় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়ে আমরা সচেষ্ট থাকবো। একইসঙ্গে কাজের মানে আপস করা যাবে না। প্রকল্প সঠিক সময়ে সুন্দরভাবে সম্পন্ন হলে আগামীতে চসিকের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থায়ন করবে বিশ্বব্যাংক আশাবাদ সৈয়দ হাসিনুর রহমানের।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, পরিবেশ সম্মত বিশ্বমানের নগর গড়তে নতুন নতুন পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। এর একটি কিচেন মার্কেট। আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত এই কিচেন মার্কেট নির্মিত হলে একই ছাদের নিচে রান্না সামগ্রীসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কিনতে পারবেন। মেয়র আরো বলেন, নগরের মূল সড়কসহ অলি-গলিতে ভ্রাম্যমাণ বাজার বসে যানজট, অপরিচ্ছন্নতাসহ নানামুখী জটিলতা সৃষ্টি করছে। এসব সমস্যা নিরসনে জনগুরুত্বপূর্ণ ৪টি স্থানে প্রকল্প নিয়েছে চসিক। সব প্রকল্প নির্ধারিত সময়ে সমাপ্ত হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ