ঢাকা, সোমবার 23 September 2019, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বরগুনায় সড়কের ওপরেই পশুর হাট!

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:বরগুনা-বাকেরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের বেতাগী উপজেলার কাজিরাবাদ বাজার সংলগ্ন রাস্তার ওপরেই বসেছে পশুর হাট। এতে যান চলাচল বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পথচারীরা। রয়েছে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা।

শনিবার (১০ আগস্ট) ১১টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বরগুনা-বাকেরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের বেতাগী উপজেলার কাজিরাবাদ বাজার সংলগ্ন রাস্তার ওপরে বসেছে পশুর হাট। দুই পাশে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখা হচ্ছে পশু। রাস্তার ওপরেই চলছে কেনাবেচা। 

এতে বিঘ্নিত হচ্ছে চলাচল। এতে মাত্র তিনশ মিটার পথ পার হতে লাগে দীর্ঘ সময়।

এ সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী বেতাগী উপজেলার স্কুলশিক্ষক মো. আল-আমিন জানান, অন্যান্য সময়ে এ রাস্তায় কোনো সমস্যা হয় না। কিন্তু কোরবানির পশুর হাট বসায় ভোগান্তিতে পোহাতে হয়। পশুর মলমূত্রে পুরো রাস্তাটি যেন ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। গায়ে-পোশাকে ময়লা লেগে যাচ্ছে।

যাত্রীবাহী বাসের চালক আব্বাস মিয়া বলেন, কাজিরাবাদ পশুর হাটে অনেক সময় নিয়ে সামান্য রাস্তা অতিক্রম করতে হয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছাতে না পারলে জরিমানা গুণতে হয়। 

কাজিরাবাদ বাজারের নিয়মিত ক্রেতা-বিক্রেতাদেরও একই অভিযোগ। রাস্তার ওপর পশুর হাট বসার কারণে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে শুক্রবার (৯ আগস্ট) থেকে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত কাজিবাদ পশুর বাজারে কোরবানির পশু কেনাবেচা চলে। এছাড়াও প্রতি সপ্তাহের রবি ও বুধবার এখানে পশু কেনাবেচা করা হয়।

উল্লেখ্য, বেতাগী উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের কাজিরহাট বাজারটি বাংলা ১৪২৬ সালে ১৯ লাখ ৯৩ হাজার টাকায় ইজারা দেওয়া হয়। তবে বাজারের ভেতরে না বসিয়ে পশুর হাট বসানো হয় বরগুনা-বেতাগী আঞ্চলিক সড়ক ঘেঁষে। পশুর হাটের কাছেই রয়েছে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। মাত্র কয়েক গজ এগিয়ে গেলে আরও একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাজিরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও জামে মসজিদ ।

কাজিরাবাদ পশুর হাটের ইজারাদার কাজী পলাশ জানান, পশুর হাটের জন্য জায়গার সংকট থাকায় বাধ্য হয়ে রাস্তার দুই পাশের জায়গা ব্যবহার করতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রাজীব আহসান বলেন, সড়কের ওপর যাতে পশুর হাট না বসে সেজন্য ইতোমধ্যে ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ নির্দেশনা অমান্য করলে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ