ঢাকা, শুক্রবার 6 December 2019, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৮ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

চামড়ার বাজার অস্থিতিশীলতার জন্য বিটিএ ও  বিসিক দায়ী: শাহীন আহমেদ

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: চামড়ার বাজার অস্থিতিশীলতার জন্য নিজেদের দায় স্বীকার করে নিয়েছেন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ।সেই সাথে তিনি বর্তমান পরিস্থিতির জন্য বিসিককেও দোষারোপ করেছেন।তিনি বলেছেন, চামড়ার বাজার অস্থিতিশীলের জন্য আমরাও দায়ী, বিসিকও দায়ী । কারণ বিসিক ভবিষ্যৎপরিকল্পনা করেনি । আমরা এখান থেকে শিফটিং হয়েছি, পরিবেশবান্ধব চামড়া শিল্পনগরী করবো, কিন্তু সেটা এখন পর্যন্ত পরিপূর্ণ হয়নি, যার কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে আমরা প্রোডাক্ট সেল করতে পারছি না। রপ্তানি ফল্ট করছে। 

শাহীন আহমেদ বলেন, তিন বছর ধরে ট্যানারি স্থানান্তরের কারণে অনেক ট্যানারি উৎপাদনে যেতে পারেনি। মৌসুমী ব্যবসায়ীদেরও দুই-তিন বছর ধরে লোকসান হচ্ছে। তারা ২০০-৪০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে চামড়া সংগ্রহ করে তা বিক্রি করে। এই সিজনাল ব্যবসায়ীরা এবার বিনিয়োগ না করায় বাজারে তার প্রভাব পড়েছে।

বিটিএ সভাপতি বলেন, প্রতি বছর ঈদের ১০-১৫ দিন পর থেকে লবনযুক্ত চামড়া কেনা হলেও এবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ একটু আগেই কেনা শুরু হবে।

তিনি বলেন, বাজার স্থিতিশীল করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চামড়া রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু চামড়া রপ্তানি করা হলে উল্টো চামাড়া বাজারের পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে। তবে পরিস্থিতি বিবেচনাপূর্বক সেটা রিভউর সুযাগ আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদি বাজার ঠিক থাকে তাহলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সে আদেশ প্রত্যাহার করে নিতে পারে। আর যদি বাজারের অবস্থা একান্তই এ রকম থাকে তাহলে আবার বসে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে কাঁচা চামড়া রপ্তানি করা হবে নাকি ওয়েট ব্লু রপ্তানি করা যায়, সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারে সরকার।

শাহীন আহমেদ বলেন, হাজারীবাগে কিছু প্লট সরকারের কাছ থেকে লিজ নেয়া, অন্যগুলো ব্যক্তিমালিকানার। ৯৯ বছরের জন্য লিজ নেয়া হাজারিবাগের প্লটগুলো এখন ব্যক্তিমালিকনাধীন হয়ে গেছে। আর সাভারের ট্যানারি পল্লীতে আমরা জায়গা কিনে নিয়েছি। ব্যাংকগুলো ট্যানারি মালিকদের বড় ধরনের বিনিয়োগ করেনি দাবি করে তিনি বলেন, ব্যাংকগুলো যে ৬০০-৬৫০ কোটি টাকা যা দিয়েছে, তা এই সেক্টরের জন্য পর্যাপ্ত না।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ