ঢাকা, বৃহস্পতিবার 22 August 2019, ৭ ভাদ্র ১৪২৬, ২০ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিএনপির ১৪ শীর্ষ নেতাকে দুই সপ্তাহের মধ্যে আত্মসমর্পণ করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার: উসকানিমূলক বক্তব্য এবং পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ শীর্ষ ১৪ নেতার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে পুলিশের করা মামলায় সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের রায় বিচারিক আদালতে পৌঁছেছে। গতকাল বুধবার বিকালে সাড়ে ৪ টার দিকে বিচারিক আদালতে (জুডিশিয়াল মুন্সিখানা) রায়ের এই অনুলিপি পৌঁছেছে বলে জানান বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান।
এর আগে ৩১ জনকে হাইকোর্টের দেয়া আগাম জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা লিভ টু আপিল নিষ্পত্তি করে বেশকিছু পর্যবেক্ষণ ও নির্দেশনাসহ ওই রায় ঘোষণা করেন আপিল বিভাগ। প্রকাশিত রায়ে হাইকোর্টকে কেবল ব্যতিক্রমী মামলার ক্ষেত্রে সতর্কতার সঙ্গে আগাম জামিন বিবেচনা করতে বলা হয়। এ ছাড়া মামলার চার্জশিট হয়ে গেলে আগাম জামিন আর কার্যকর থাকবে না এবং আগাম জামিনের কোনো অপব্যবহার হলে সেই জামিন বাতিল হয়ে যাবে বলেও রায়ে উল্লেখ করেন আপিল বিভাগ। সেই সঙ্গে যেকোনো মামলায় কাউকে ৮ সপ্তাহের বেশি আগাম জামিন দেয়া যাবে না বলেও নির্দেশনা দেয়া হয়। আগাম জামিন দেয়ার পর সেটা কোনোভাবেই মামলায় অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিলের পর তা কার্যকর থাকবে না।
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ৭ সদস্যের বেঞ্চ ওই রায় দিয়েছিলেন। পরে বিচারপতিদের স্বাক্ষরের পর ওই রায়ের ৪৪ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ অনুলিপিতে এসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, যা সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। গত ১৮ এপ্রিল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৩১ নেতার জামিন বহাল রেখে সংক্ষিপ্ত আদেশ দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। পরে গত সপ্তাহে এরই পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হয়। এসব নেতার নামে ২০১৮ সালের বিভিন্ন মামলায় হাইকোর্টের দেয়া জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন নিষ্পত্তি করে ওই রায় দেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে এই রায়ের কপি পাওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে বিএনপি মহাসচিবসহ শীর্ষ ১৪ নেতাকে নিম্ন (বিচারিক) আদালতে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।
জানা গেছে, এই মামলায় সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের রায় প্রকাশের (১৮ এপ্রিল) পর তা বিচারিক আদালতে পৌছার দিন থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে বিএনপি নেতাদের আতœসমর্পন করার জন্য বলা হয়েছে। সে হিসেব নাশকতার মামলায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ শীর্ষ নেতাদের আতœসমর্পনের দিন গতকাল বুধবার বিকাল থেকে গণণা শুরু হয়েছে বলে জানান এই আইনজীবী। কিন্তু কবে আতœসমর্পন করবেন বিএনপির ১৪ নেতা তা নিশ্চিত করেননি আইনজীবী।
যে ১৬ জনকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে তারা হলেন- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, খন্দকার মাহবুব হোসেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, মঞ্জুর মোরশেদ, বরকতউল্লাহ বুলু, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মো. শাহজাহান, অ্যাডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন, হাজী সালাহউদ্দিন ও মো. আমিনুর রহমান। তবে, আত্মসমর্পণের পর এই ব্যক্তিরা জামিনের আবেদন করলে সংশ্লিষ্ট আদালত আইন ও তথ্য অনুসারে জামিনের জন্য তাদের প্রার্থনা বিবেচনা করার জন্য আদালতকে বলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ