ঢাকা, শনিবার 24 August 2019, ৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৬ জনের কবর জিয়ারত ও  নগদ অর্থ প্রদান করলেন জামায়াত নেতৃবৃন্দ

কুমিল্লা অফিস : কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের লালমাইয়ে গত রোববার বাস ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ৮ জন নিহতের ঘটনায় একই পরিবারের ৬ জনের কবর জিয়ারত ও নগদ অর্থ সাহায্য প্রদান করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নেতৃবৃন্দ। বৃহস্পতিবার বিকেলে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা পশ্চিম ইউনিয়নের ঘোড়াময়দান গ্রামে নিহতদের কবর জিয়ারত ও দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই পরিবারের বেঁচে যাওয়া একমাত্র সদস্য রিপাত হোসেনের (১০) চিকিৎসার জন্য নগদ অর্থ প্রদান করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন নাঙ্গলকোট উপজেলা (উত্তর) আমীর এস এম মহি উদ্দীন, উপজেলা (দক্ষিণ) সেক্রেটারি জামাল উদ্দীন, জোড্ডা ইউনিয়ন জামায়াত নেতা ডাক্তার মোহাম্মদ আলী আমু প্রমূখ।এসময় জামায়াত নেতৃবৃন্দ নিহতদের শোক সন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানান।

উল্লেখ্য, গত রোববার দুপুরে কুমিল্লার লালমাই উপজেলার জামতলি এলাকায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লাকসামগামী তিশা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ও লাকসাম থেকে কুমিল্লা গামী সিএনজি চালিত একটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে অটোরিকশায় থাকা দুই নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬জন ও অটোরিকশার চালক এবং নিহত জসিমের দোকান কর্মচারী নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত রিপাত নামের ৮ বছর বয়সী এক শিশু ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, কুমিল্লা নগরীর গোয়ালপট্টির বন্ধন নামের খাবার হোটেলের মালিক ও জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা পশ্চিম ইউনিয়নের ঘোড়াময়দান গ্রামের আবদুল জাব্বারের ছেলে জসিম উদ্দিন (৪৮), তার স্ত্রী শিরিন আক্তার (৪০), মা ছকিনা বেগম (৬৫), ছেলে শিপন (১৯), হৃদয় (১৬), তার মেয়ে নিপু (১২), দোকান কর্মচারী একই উপজেলার পাটোয়ার গ্রামের মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে সাইমুন (১৪) ও করপাতি গ্রামের জিতু মিয়ার ছেলে অটোরিকশা চালক জামাল উদ্দিন (৩৫)।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ