ঢাকা, বৃহস্পতিবার 29 August 2019, ১৪ ভাদ্র ১৪২৬, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

গাজায় ইসরাইলী বিমান হামলায় আরও ২ ফিলিস্তিনী শহীদ

২৮ অক্টোবর, বিবিসি: অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিমান হামলায় দুই ফিলিস্তিনী শহীদ ও অন্তত তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা গাজার পুলিশ বাহিনীর সদস্য। অবরুদ্ধ গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আশরাফ আল কিদরা এক বিবৃতিতে বলেছেন, মঙ্গলবার রাতের বিমান হামলায় দুই ফিলিস্তিনী শাহাদাত বরণ করেছেন। এছাড়া এক মহিলাসহ তিন জন আহত হয়েছেন। তিনি বলেন, শহীদ দুই ফিলিস্তিনীরই বয়স ৩২ বছর এবং তারা গাজার পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তা। গাজার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, উপত্যকার দক্ষিণের দাহদু এলাকায় ইসরাইল জঙ্গিবিমানের সাহায্যে বোমাবর্ষণ করলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। গাজার মধ্যাঞ্চলে হামাসের একটি অবস্থানে ইসরাইলি জঙ্গী বিমানের হামলার কয়েক ঘণ্টা পরই ওই দুই পুলিশকে হত্যা করা হয়। ইসরাইলি সেনাবাহিনী দাবি করেছে, তারা হামাসের একটি তল্লাশি চৌকিতে হামলা চালিয়েছে। সেখানে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে কি না সে বিষয়ে এখনও কোন খবর পাওয়া যায়নি। গাজা থেকে রকেট ছোড়ার জবাবে বিমান হামলা করা হচ্ছে বলে ইসরাইল দাবি করেছে।

 দুটি চেকপয়েন্টে আত্মঘাতী হামলায় নিহত ৩ : ফিলিস্তিনের গাজা ভূখণ্ডের দুটি পুলিশ চেক পয়েন্টে আত্মঘাতী হামলায় তিন ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। ফিলিস্তিনি নিরাপত্তা সূত্রগুলো জানিয়েছে, জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) অনুগত আত্মঘাতী হামলাকারীরা এসব হামলা চালিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। 

সম্প্রতি গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক গোষ্ঠী হামাস আইএসের সঙ্গে সম্পর্ক আছে এমন জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছিল, এর কয়েকদিনের মধ্যেই এসব হামলা চালানো হল। গত মঙ্গলবারের এ হামলার সঙ্গে জড়িত আত্মঘাতীদের একজনকে এর আগে আটক করা হয়েছিল বলে ফিলিস্তিনি একটি নিরাপত্তা সূত্র বিবিসিকে জানিয়েছে। প্রথম বোমা হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত ও একজন ফিলিস্তিনি আহত হন। পুলিশ চেকপয়েন্টের কাছে একটি মোটরসাইকেল থেকে বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এর প্রায় এক ঘণ্টা পর পৃথক আরেকটি চেকপয়েন্ট দ্বিতীয় বিস্ফোরণটি ঘটে। এতে আরেকজন কর্মকর্তা নিহত ও বেশ কয়েকজন লোক আহত হন বলে হামাসের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। হামলার পর গাজা ভূখণ্ডজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করে নিরাপত্তা বাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে। গাজার প্রধান সড়কগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর শত শত সদস্যকে মোতায়েন করা হয়েছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ