ঢাকা, বৃহস্পতিবার 29 August 2019, ১৪ ভাদ্র ১৪২৬, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সোনারগাঁওয়ে মসজিদের ইমাম হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা : আর্থিক লেনদেনের কারণে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের মসজিদের ইমাম হত্যা করেছে তার বন্ধু। মামলার আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার ভোরে ইমাম দিদারুল ইসলাম মামলার প্রধান আসামী ওহিদুর জামানকে (২৮) মাদারিপুরের শিবচর এলাকার একটি বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে সোনারগাঁ থানা পুলিশ। গ্রেফতারের পর হত্যাকা-ের ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকা-ে ব্যবহৃত একটি লুঙ্গি ও দু’টি কোকের বোতল উদ্ধার করে পুলিশ। এ ছাড়াও ঘটনার পরদিন পুলিশ একটি রক্তমাখা চাপাতি ও একটি চিরকুট উদ্ধার করে। গ্রেফতারকৃত ওহিদুর রহমান খুলনার নড়াইল কালিয়া কলাবাড়ীয়া পশ্চিম পাড়া গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক টুকু শেখের ছেলে। হত্যাকা-ের পর তদন্তে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে আসামীকে শনাক্ত করে। গ্রেফতারকৃত আসামী গতকাল বুধবার পুলিশের কাছে ইমামকে হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। এর আগে গতকাল বুধবার দুপুরে তার স্বীকারোক্তিতে ঘটনাস্থল নারায়ণদিয়া এলাকার বায়তুল জালাল জামে মসজিদের পাশের একটি পুকুর থেকে ২টি কোমল পানীয় কোকের বোতল ও একটি লুঙ্গি উদ্ধার করে।
সূত্রমতে, আর্থিক লেনদেন নিয়েই হত্যাকা-ের শিকার হন ইমাম দিদারুল ইসলাম। তার সাথে বিভিন্ন ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে আর্থিক লেনদেন হয় তার ঘনিষ্ট বন্ধু ওহিদুর রহমানের। পরবর্তীতে দিদারুল জানতে পারে যে ব্যবসা তার বন্ধু করতে চায় এসব ব্যবসা বৈধ নয়। তার ব্যবসা স্বর্ণের বারের ব্যবসা। তাই সে ওই ব্যবসা থেকে সরে আসতে চায় এবং তার বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে দেয়া টাকা সে ফেরত চায়। এতেই তাকে হত্যা করতে পরিকল্পনা সাজায় বন্ধু ওহিদুর জামান। পরিকল্পনা মতে হত্যাকান্ডের আগের দিনও দিদারুলের সাথে দেখা করে তার সাথে চা খেয়ে হত্যার পরিকল্পনা সাজিয়ে যায় বন্ধু ওয়াহিদুর জামান। পরে হত্যাকান্ডের দিন এশার নামাজের পর রাতের খাবার প্রস্তুত করার সময় দিদারুলকে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশ্রিত কোমল পানীয় খাওয়ানো হয়। এতেই দিদারুল অচেতন হয়ে পড়েন। দিদারুল অচেতন হয়ে পড়লে তাকে চাপাতি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে বিষয়টি ভিন্নখাতে নেয়ার জন্য একটি চিরকুট লিখে ফেলে রেখে দরজায় তালা ঝুলিয়ে ঘাতক পালিয়ে যায়।
দিদারুলের পারিবারিক সূত্র জানায়, দিদারুল তার এক বন্ধুর সঙ্গে ব্যবসা করবে বলে বিনিয়োগের জন্য দু’টি গবাদীপশু কিছুদিন আগে বিক্রি করে। এছাড়াও সব মিলিয়ে প্রায় তিন লাখ টাকার কাছাকাছি সে বিনিয়োগ করবে বলে পরিবারকে জানিয়েছিল। নিহত দিদারুল খুলনার তেরখাদা থানার রাজাপুর এলাকার আফতাব ফরাজির ছেলে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সোনারগাঁ থানার (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, ক্লু-লেস (কোনো ক্লু ছাড়াই) এ মামলার তদন্তে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে এ হত্যার প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। পরে তার স্বীকারোক্তিতে ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী একটি পুকুর থেকে ২টি কোকের বোতল ও একটি লুঙ্গি উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, গ্রেফতারকৃত আসামী শিবচর এলাকার ছোট কেশব জামে মসজিদের ইমামতি করেন। 
সোনারগাঁ থানার ওসি মো: মনিরুজ্জামান জানান, ইমাম হত্যাকা-ের ঘটনায় প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করে ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। বিকেলে  জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষে তাকে আজ বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানো হবে। 
নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ জানান, স্বর্ণের বার কিনে ব্যবসা করার জন্য নিহত ইমাম দিদারুল ইসলামের কাছ থেকে গ্রেফতারকৃত ওহিদুর জামানকে ব্যবসার বিনিয়োগের জন্য কয়েক দফায় লক্ষাধিক টাকা দিয়েছিল। এ টাকা ফেরত চাওয়ায় চতুর পরিকল্পনা করে চেতনানাশক ঔষধ কোকের সাথে মিলিয়ে খাইয়ে অচেতন করে তাকে চাপাতি দিয়ে গলাকেটে হত্যা করা হয়। মামলাটি ক্লুলেস হলেও পুলিশের তৎপরতায় হত্যাকারীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ