ঢাকা, রোববার 8 September 2019, ২৪ ভাদ্র ১৪২৬, ৮ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

বর্তমান সরকার মাদ্রাসা শিক্ষার উন্নয়নে আন্তরিক

গতকাল শনিবার নিজস্ব মিলনায়তনে তা’মীরুল মিল্লাত কামিল মাদরাসা টঙ্গি শাখার উদ্যোগে কৃতী ছাত্র সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয় -সংগ্রাম

তা’মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা টঙ্গীতে গতকাল শনিবার কৃতি ছাত্র সংবর্ধনা-২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এম.পি বলেন, আমি সংবর্ধনা প্রাপ্ত কিছু ছাত্রকে কৃতি ছাত্র মনে করি না বরং এই মাদ্রাসার সকল ছাত্রই কৃতি ছাত্র। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল ও বুয়েটসহ দেশের প্রতিটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে এ মাদ্রাসার ছাত্ররা কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখছে। সারাদেশ থেকে এ মাদ্রাসায় ছাত্ররা লেখাপড়া করছে। এতোবড় একটি সুন্দর মাদ্রাসা আমাদের এলাকায় রয়েছে, এটা আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। তিনি বর্তমান সরকারের ধর্মীয় অঙ্গনে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, বর্তমান সরকার মাদ্রাসা শিক্ষার উন্নয়নে আন্তরিক। এ উন্নয়নের ধারা স্বাধীন বাংলার অভ্যুদয়ের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান শুরু করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমি উদ্যোগে সারা দেশে ৫৬০টি মসজিদ নির্মাণের প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন।
তা’মীরুল মিল্লাত ট্রাস্ট ও গভর্নিংবডির সভাপতি প্রফেসর ড. মো: কোরবান আলীর সভাপতিত্বে ও মাওলানা আব্দুল কাইয়ূমের সঞ্চলানায় উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তা’মীরুল মিল্লাত ট্রাস্টের সেক্রেটারি অধ্যক্ষ মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মশিউর রহমান, ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী আবু বকর সিদ্দিক, মো: নাসির উদ্দিন মোল্লা প্রমুখ। গাজীপুর জেলার সহকারী পুলিশ কমিশনার আহসানুল হক, অধ্যক্ষ ড. মাওলানা আবু ইউসুফ খান, অধ্যক্ষ মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান, গাজীপুরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ, প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন অঙ্গনের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানটি মুখরিত হয়ে উঠে। সূচনাতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের পর সমবেত জাতীয় সংগীত ও কৃতি ছাত্রদের আরবী ও ইংরেজি উপস্থাপনায় এক নান্দনিক পরিবেশ তৈরি হয়।
প্রধান অতিথি মো. জাহিদ আহসান রাসেল আরো বলেন, এ মাদ্রাসার অনার্স প্রাপ্তি ও যে কোন উন্নয়নে আমি সার্বিক সহযোগিতা করবো।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মশিউর রহমান বলেন, শান্তির ধর্ম ইসলাম যেন কোনভাবে বিতর্কিত না হয় সে জন্য তা’মীরুল মিল্লাতের শিক্ষার্থীদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। এই শিক্ষাকে আধুনিক উপায়ে বিশ্বের দরবারে উপস্থাপনের জন্য আপনারা যে নিরলস প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন আমি তাতে মুগ্ধ।
অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন বলেন, এই মাদ্রাসা ২০১৪ সাল হতে ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে পূর্ণাঙ্গ মাদ্রাসা হিসাবে পরিচালিত হচ্ছে। ইসলামের সাথে জঙ্গীবাদের কোনো সম্পর্ক নেই। জঙ্গীবাদ ও ইসলামকে গুলিয়ে ফেলে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করে কিছু লোক মুসলমানদের ক্ষতি করতে চায়। সারাদেশের ছাত্ররা তা’মীরুল মিল্লাতে অধ্যয়ন করতে আগ্রহী। আমরা ফাউন্ডেশন ক্লাসের মাধ্যমে তাদেরকে যোগ্য করে গড়ে তুলি।
স্বাগত বক্তব্যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা মিজানুর রহমান বলেন, বর্তমান দুনিয়ায় নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য তা’মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা সৎ ও যোগ্য হিসাবে প্রজন্মকে গড়ে তোলার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ড. কোরবান আলী সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলেন, তা’মীরুল মিল্লাত মাদ্রাসা আজ একটি স্বনামধন্য মাদ্রাসা। আজকের প্রতিযোগিতাময় বিশ্বে এগিয়ে যাওয়ার জন্য এ দেশকে সুন্দর করার জন্য তোমাদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে।
উল্লেখ্য, অনুষ্ঠান শেষে ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবক ম-লীর আনন্দঘন উপস্থিতিতে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিদেরকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয় এবং কৃতি ছাত্রদের মাঝে বই ও ক্রেস্ট বিতরণ করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ