ঢাকা, সোমবার 9 September 2019, ২৫ ভাদ্র ১৪২৬, ৯ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

রাবিতে শব্দকলা আন্তর্জাতিক লেখক উৎসব অনুষ্ঠিত

গত শনিবার, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ কলাভবনের ৩০৬ গ্যালারিতে দিনব্যাপী ‘শব্দকলা আন্তর্জাতিক লেখক উৎসব’ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল দশটায় অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন রাবি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফখরুল ইসলাম। বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ প্রফেসর ড. আবদুর রহমানের সভাপতিত্বে এ পর্বে অতিথি ছিলেন প্রফেসর ড. জিএম শফিউর রহমান, ড. কাঞ্চন কুমার ভৌমিক, শিল্পী মুকুল চক্রবর্তী, কবি আলমগীর কবির হৃদয় প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শব্দকলাপ্রধান ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ। দ্বিতীয়পর্বে ‘সাহিত্যে নান্দনিকতা ও মূল্যবোধ’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মুহিবউল্যাহ ছিদ্দিকীর সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক ছিলেন কথাশিল্পী নাজিব ওয়াদুদ। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রফেসর ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ। আলোচক হিসেবে ছিলেন প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন, বিশিষ্ট লেখক জিয়াউল হক, নির্ঝর সম্পাদক কবি জাইদুর রহমান, প্রফেসর ড. এএইচএম তাহমিদুর রহমান, ড. গোবিন্দ প্রসাদ কর প্রমুখ। সেমিনারে বক্তাগণ বলেন, বিশ্বায়নের প্রভাবে বাংলাভাষা চর্চার যেমন অবারিত সুযোগ তৈরি হয়েছে তেমনি নানামুখি সংকটের মুখোমুখি হবার ঝুঁকিও বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেইসাথে মানবিক মূল্যবোধ তৈরি ও ক্ষয়িষ্ণুতার ক্ষেত্রেও বিশ্বায়নের এ প্রভাব অত্যন্ত প্রবল। তাই সমাজসচেতন নাগরিক হিসেবে বাংলা ভাষাভাষী প্রত্যেক লেখককে দায়বদ্ধতা কাঁধে নিয়ে নান্দনিক সাহিত্যসৃষ্টির মাধ্যমে মূল্যবোধ তৈরির জন্য নিষ্ঠার সাথে শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতিচর্চায় আত্মনিয়োজিত থাকতে হবে। 

মধ্যাহ্নভোজের পরে শুরু হয় লেখা পাঠ। এ্যালবাম সম্পাদক কবি মনজু রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন কবি মুকুল কেশরী, কবি প্রত্যয় হামিদ, কবি কামরুল আজাদ, গল্পকার আসাদুল্লাহ মামুন, কবি সোহেল মাহবুব, কবি ইসাহাক আলী, কথাকার সুকেস কুমার মণ্ডল, কবি পুস্পিতা চট্টপাধ্যায় প্রমুখ। শব্দকলা সাহিত্য পদক বিতরণ ও সমাপনী পর্বে সভাপতি ছিলেন প্রফেসর ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ। প্রধান অতিথি ছিলেন রাবি কলা অনুষেদের ডীন প্রফেসর ড. মো. ফজলুল হক। অতিথি ছিলেন প্রফেসর ড. আবদুর রহমান, প্রফেসর ড. কাজী মো. মোস্তাফিজুর রহমান, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর স্বপন, কবি আলাউদ্দিন আহমেদ, ড. সীমা শারমিন, কবি অনু চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতের মোট বাইশজন বিশিষ্ট ব্যক্তিকেকে বিভিন্ন বিষয়ে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ শব্দকলা সাহিত্য পদক প্রদান করা হয়। ইতিহাস গবেষণায় প্রফেসর ইমেরিটাস ড. এ কে এম ইয়াকুব আলী, স্থানীয় ইতিহাস গবেষণায় মাহবুব সিদ্দিকী ও ড. গোবিন্দ প্রসাদ কর, ইসলামী অর্থনীতিতে প্রফেসর শাহ মুহাম্মদ হাবীবুর রহমান, সাহিত্য গবেষণায় প্রফেসর ড. লায়েক আলী খান, প্রফেসর ড. তাহমিনা বেগম, মানববিদ্যা গবেষণায় ড. চিত্তরঞ্জন মাইতি ও ড. কাঞ্চন কুমার ভৌমিক,  কথাসাহিত্যে হাসান ওয়াহিদ, সুকেস কুমার মণ্ডল, মাতিউর রাহমান,  কবিতায় পুস্পিতা চট্টপাধ্যায়, জালাল উদ্দিন সিদ্দিক, আবদুল কাইয়ুম, কবি পিনাকী বসু, কবি তাপস সাহা, শিশুসাহিত্যে আসাদুল্লাহ মামুন, ছড়াসাহিত্যে অভি মণ্ডল, আবদুল হাই ইদ্রিছী, সম্পাদনায় আশরাফুল হক পলাশ, কবি প্রতীক ওমর, সঙ্গীতে মুকুল চক্রবর্তী এবং আবদুস শাকুর তুহিন।

অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি ফারহানা শরমিন জেনী, কবি মঞ্জিলা শরিফ, কবি জামাল দ্বীন সুমন, কবি এরফান আলী এনাফ, কবি সাবের রাহী, কবি ও গীতিকার সানারুল ইসলাম বাহার, কবি ও সম্পাদক রেহেনা সুলতানা শিল্পী, কবি মিনুয়ারা খাতুন, কবি শাহানা ইয়াসমিন মুক্তা আমিন মোহাম্মদ, ফৌরদৌস আরা বেগম, সোহেল রানা জীবন, জসিম উদদীন বিজয়, নাহিদ আকতার নদী, তৌহিদ সরকার, শফিকুল ইসলাম শফিক, তানিম আলআমিন, তাহমিনা মোল্লা, আরাফাত শাহীন, ইমরান আজিম উদ্দিন, তানিয়া আনজু, সুলতান মাহমুদ রুপোশ, নূরুল হুদা সিদ্দিকী, আল মারুফ, হাম্মাদ নূর, সাদরুকা আফরিন, প্রমুখ। গান পরিবেশন করেন ওয়াহিদুল হক পরাগ, প্রমুখসহ বাংলাদেশ এবং ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত দেড়শতাধিক লেখক। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ