ঢাকা, বৃহস্পতিবার 12 September 2019, ২৮ ভাদ্র ১৪২৬, ১২ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

দুই দিনে ডেঙ্গুতে ৭ জনের মৃত্যু

ইবরাহীম খলিল : ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত দুই দিনে ৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। খুলনা, যশোর, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর এবং কুষ্টিয়াতে এদের মৃত্যু ঘটে। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৬৩৪ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন।
জানা গেছে, মঙ্গলবার রাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত এক নারী মারা গেছেন। তার নাম রহিমা বেগম।  আবাসিক চিকিৎসক ডা. শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস এই মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। রহিমা বেগম সাতক্ষীরার তালা উপজেলার আজরাইল গ্রামের রফিকুল ইসলাম মোড়লের স্ত্রী। সোমবার বিকেলে তাকে ডেঙ্গু ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ নিয়ে খুলনায় ডেঙ্গুতে মোট ১১ জনের মৃত্যু হলো। এদিকে যশোরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন, মণিরামপুর উপজেলার আবদুল কাদেরের স্ত্রী জাহিদা বেগম (৩৫) এবং একই উপজেলার মশ্মিমনগর গ্রামের ইনতাজ আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫)। জাহিদা বেগম বুধবার ভোরে এবং জাহানারা বেগম মঙ্গলবার রাতে মারা যান।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুর রহিম মোড়ল জানান, সোমবার দুপুরে শরীরে প্রচন্ড জ্বর নিয়ে জাহিদা বেগম হাসপাতালে ভর্তি হন। পরীক্ষার পর দেখা যায়, তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত। বুধবার ভোরে রক্তের প্লাটিলেট কমে যাওয়ায় ৬ টা ২৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়। অপরদিকে, গত সোমবার দুপুরে জাহানারা বেগম ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এ সময় তার ডায়েবেটিস নিয়ন্ত্রণ ছিল না। তারপর রক্তের প্লাটিলেট ১ লাখ ৪০ হাজার এসে দাঁড়ালে মঙ্গলবার রাতে ২টা ৩৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।
এ পর্যন্ত যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা. দিলীপ কুমার রায়।
এদিকে গতকালের আগের দিন ফরিদপুর ও কুষ্টিয়ায় ডেঙ্গৃ জ্বরে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ২ জনের মৃত্যু হয় বলে জানা গেছে। তারা হলেন- সিদ্দিক মিয়া ও রিনা খাতুন। আক্রান্ত হয়ে সোমবার রাতে ফরিদপুরে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিদ্দিক মিয়া ও মঙ্গলবার সকাল ৬টায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিনা খাতুনের (২২) মৃত্যু হয়। মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার কবিরাজপুর গ্রামে সিদ্দিক মিয়ার বাড়ি আর কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের কাজীহাটা গ্রামের রায়হান আলীর স্ত্রী রিনা খাতুন।
সিদ্দিক মিয়ার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক জানান, ৭ দিন ধরে ডেঙ্গুতে ভুগে সোমবার সকাল ১০টায় ফরিদপুরে মেডিকেল কলেজে ভর্তি হলে রাত ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়। অন্যদিকে ভেড়ামারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, শুক্রবার ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন রিনা খাতুন। মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়।
অপরদিকে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ফাতেমা খাতুনের মৃত্যু হয়েছে। গত ৩ সেপ্টেম্বর ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে ফাতেমা খাতুন ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ১১ নাম্বার ওয়ার্ডে ভর্তি হন।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে প্রাপ্ত প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ( ১০ সেপ্টম্বর সকাল ৮ টা থেকে ১১ সেপ্টম্বর সকাল ৮টা) পর্যন্ত নতুন করে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাপসাতালে ভর্তি হয়েছেন ৬৩৪ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ২২১ জন এবং ঢাকার বাহিরে ৪১৩ জন। এ যাবত ডেঙ্গু রোগে ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গত ২৪ ঘন্টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪৯, মিটফোর্ড হাসপাতালে ৩০, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ৩, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ২৪, বিএসএমএমইউতে ১১, পুলিশ হাসপাতাল রাজারবাগে ১, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২৫, সম্মলিত সামরিক হাসপাতালে ৪জন এবং কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ২৯ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন।
ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে (ঢাকা শহর ব্যতীত) ৮৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৫১ জন, খুলনা বিভাগে ১৩৮ জন, রংপুর বিভাগে ১২ জন, রাজশাহী বিভাগে ৪৪ জন, বরিশাল বিভাগে ৬৭ জন, সিলেট বিভাগে ৫ জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে ৭ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগী ভর্তি হন।
আগের দিনের প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার পর্যন্ত নতুন রোগীদের মধ্যে রাজধানীতে ভর্তি হয়েছেন ২৯৪ জন। এছাড়া ঢাকায় বাইরে হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ৪৫৯। কন্ট্রোল রুম আরও জানায়, সারাদেশে বর্তমানে হাসপাতালগুলোতে ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭২ জন। এর মধ্যে ঢাকার ভেতরে ১ হাজার ৪৯৮ জন, ঢাকার বাইরে ১ হাজার ৫৭৪ জন।
এদিকে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর ১৯৭টি ঘটনা পর্যালোচনা করার জন্য রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে ( আইইডিসিআর) পাঠানো হয়। এর মধ্যে থেকে ১০১টি ঘটনা পর্যালোচনা করে ৬০টি ডেঙ্গুজনিত বলে নিশ্চিত করেছে তারা। এই হিসাব অনুযায়ী এপ্রিলে ২ জন, জুনে ৫ জন, জুলাইয়ে ২৮ জন এবং আগস্টে ২৫ জন ডেঙ্গুতে মারা গেছেন।
খুলনা অফিস : ডেঙ্গু জ্বরে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রহিমা বেগম (৫০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১ টার দিকে তার মৃত্যু হয়। রহিমা সাতক্ষীরার তালা উপজের আজরাইল গ্রামের রফিকুল ইসলাম মোড়লের স্ত্রী বলে জানা গেছে। এ নিয়ে খুলনায় ডেঙ্গুতে মোট ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে
মৃত রহিমা বেগমের ছেলে হারুন মোড়ল জানান, মা ডায়বেটিকস রোগে ভুগছিলেন। এর মধ্যে হঠাৎ করে প্রচ- জ্বর হয়। জ্বর কমতে না থাকলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা নিরীক্ষা করলে গত বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) মায়ের ডেঙ্গু জ্বর ধরা পড়ে।
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক ফিজিসিয়ান (আরপি) ডা. শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস বলেন, রহিমা বেগমকে গত সোমবার বিকেলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডেঙ্গু ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে নেয়া হয়। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।
ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা : কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মিনা খাতুন (২৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সে ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের কাজিহাটা গ্রামের রায়হান আলীর স্ত্রী। মঙ্গলবার ভোর ৬টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নুরুল আমীন মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গত শুক্রবার স্থানীয়ভাবে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হলে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। ধরমপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জাকির হোসাইন জানিয়েছেন, নিজ বাড়িতেই ডেঙ্গু জরে আক্রান্ত হয়ে মিনা খাতুন ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি হয়। সেখানেই ৩ দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ৬/৭ বছর আগে সে বিবাহ বন্ধনে অবদ্ধ হলেও সে নিঃসন্তান ছিলেন। সূত্র জানায়, ডেঙ্গু জরে আক্রান্ত হয়ে এর আগে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জোসনা খাতুন নামে এক নারী আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। গত ২৪ ঘণ্টায় কুষ্টিয়ার বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ২০জন। চিকিৎসাধীন রয়ছেন ৬৮জন। আর এ পর্যন্ত ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে ৮০৫ জন।
ময়মনসিংহ সংবাদদাতা :  ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে   গতকাল মঙ্গলবার সকালে ফাতেমা খাতুন নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। গৃহবধুর বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলায়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ নারায়ন মজুমদার জানান, গত ৩ সেপ্টম্বর ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার নাজমুল হকের স্ত্রী গৃহবধু ফাতেমা খাতুন(৫০) ময়মনসিংহ মেডিকেলে ভর্তি হয়। তার অবস্থার অবনতি হলে ৭ সেপ্টেম্বর থেকে আইসিইউ সাপোর্টে ছিল। মঙ্গলবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আইসিইউতে তিনি মৃত্যুকরণ করেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত এ নিয়ে ময়মনসিংহে ৭জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে এদিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। গত ২৪ ঘন্টায় এখানে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৭জন ভর্তি হয়েছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৫৯ জন। গত ২৪ জুলাই থেকে মঙ্গলবার  পর্যন্ত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক হাজার তিনশত ৬৩ জন ভর্তি হয়েছেন। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য হয়ে এক হাজার দুইশত ৯৭ জন বাড়ি ফিরেছেন এবং ৭ জন মারা গেছেন বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।
বরিশাল : বরিশালে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে বুধবার দুপুরে জিহাদ (১৪) নামে এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। মৃত জিহাদ বরিশালের মুলাদী উপজেলার চরলক্ষ্মীপুর এলাকার বাবুল হাওলাদারের ছেলে এবং এলাকার চরলক্ষ্মীপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র।
বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিট-এর কর্তব্যরত চিকিৎসক অসীত ভূষণ দাস জানান, দুপুর দেড়টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জিহাদের মৃত্যু হয়।
তিনি আর জানান, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় হাসপাতালে ভর্তি হয় জিহাদ। এরপর তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। সূত্র: ইউএনবি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ