ঢাকা, মঙ্গলবার 17 September 2019, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

ইবিতে “ডেঙ্গু বিস্তারের কারণ ও করণীয়” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পরমানু বিজ্ঞানী ড. এম ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান অনুষদের নিচতলায় বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আয়োজনে গতকাল সোমবার “ডেঙ্গু বিস্তারের কারণ ও করণীয়” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. তপন কুমার জোয়াদ্দারের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন উর রশিদ আসকারী (ড. রাশিদ আসকারী) বলেন, মশা-মাছি মানব প্রজাতির ক্ষুদ্রতম শুক্র। একটি  এডিস মশা একবারে ১৩০টি ডিম পাড়ে। তাই কিভাবে এডিস মশার ডিমটি নষ্ট করা যায় সে ব্যাপারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাথা ব্যাথার কারন হয়ে দাড়িয়েছে। এটা নিরসনে নিরন্তন গবেষনা চলছে। তিনি বলেন, বৈশিক উষ্ণতার কারণে আবহাওয়ার পরিবর্তন হচ্ছে। শীত প্রধান অঞ্চলের কোথাও কোথাও আজ মরুভুমিতে পরিণত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, মানবজাতির এই ক্ষুদ্র  শক্রকে সমুলে নিধন করা যায় কিনা এ ব্যাপারে ব্যাপক জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, বাড়িতে মাছ না থাকলে যেমন বিড়াল থাকে না ঠিক তেমনি এডিস মশা বিস্তারের জায়গা না থাকলে এডিস মশা বংশ বিস্তার করবে না। এজন্য প্রথমত সচেতনতার সৃষ্টি করতে হবে কোথায় কোন পরিবেশে এডিস মশা বংশ বিস্তার করে সেই জায়াগাগুলোকে আগে থেকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হবে। বাঁচতে হলে যার যার বাড়ির আশে পাশে নিজ দায়িত্বে পরিস্কার করতে হবে এবং ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও নিরাময়ে জনসচেতনার সৃষ্টি করতে হবে। অপর বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের মানুষ আতঙ্কে আছে ডেঙ্গু সমস্যা নিয়ে। তাই ডেঙ্গু প্রতিরোধ সম্পর্কে জনসম্পৃক্ততা ও জনসচেতনতা বাড়িয়ে আমরা এই বৈশিক চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলা করতে পারবো। তিনি বলেন, আমরা অনেক বড় বড় চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলা করে  সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। সেমিনারে অপর বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি অনুষদের  ডিন প্রফেসর ড. মমতাজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহ্বুবর রহমান, প্রফেসর ড. মোঃ জাকারিয়া রহমান, প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহান মন্ডল, প্রফেসর ড. মোঃ মিজানুর রহমান, প্রফেসর ড. মোঃ আনোয়ারুল হক, ডাঃ নজরুল ইসলাম, মোঃ আতাউর রহমান, ড. নওয়াব আলী খান বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ। সেমিনারটি উপস্থাপনা করেন বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক মোঃ রবিউল ইসলাম। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ