ঢাকা, বুধবার 23 October 2019, ৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

মোহাম্মদপুরে বৃদ্ধার ১২ লাখ টাকার গরু নিয়ে গেল যুবলীগ-কৃষকলীগ নেতারা!

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: কৃষকলীগ ও যুবলীগের নাম ব্যবহার করে মোহাম্মদপুর ও আদাবর থানায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে সন্ত্রাসী ফালান মিয়া ও সাগর।অবৈধভাবে সূদের কারবারি ফালান ও সাগর গং দুই মাসের সুদের টাকা পরিশোধ না করায় মোহাম্মদপুরে ঢাকা উদ্যানের একতা হাউজিং এলাকায় অশিতীপর এক বৃদ্ধার বাড়িতে চরাও হয়ে পরিবারের সদস্যদের মারধর সহ গরুর খামার থেকে চারটি গরু লুট করে নিয়ে যায়।খবর কালের কণ্ঠের।

গত সোমবার দিবাগত রাত ১২টায় আদাবর থানা কৃষক লীগ নেতা ফালান মিয়া ও ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা মো. সাগরসহ স্থানীয় ক্যাডাররা রাতে খামার থেকে ১২ লাখ টাকার গরু লুটে নিয়ে যায়। ওই সময় বৃদ্ধা জরিনা বেগমের (৭৮) পুত্রবধূ শাহনাজ বেগম বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে তাকে মারধরও করা হয়। 

এছাড়া এ ঘটনার কথা বাইরে গিয়ে যাতে কাউকে না বলতে পারে সেজন্য সকালে খামারের পাশেই বৃদ্ধার বসত ঘরে দরজায় দুটি তালা মেরে দেয় সন্ত্রাসীরা। অল্প কিছু সুদের টাকার জন্য এভাবে রাতের বেলায় গরুর খামার থেকে গরু লুটে নিয়ে যাওয়া ও বসত ঘরের দরজায় তালা মেরে দেয়ায় আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে নিরীহ এই পরিবারটি। বৃদ্ধাকে ঘর থেকে বের হতে ও খেতেও দিচ্ছে না।

ওই ঘটনার পর আজ মঙ্গলবার সকালে শাহনাজ বেগম মোহাম্মদপুর থানায় গিয়ে মামলা করতে চাইলেও পুলিশ জিডি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেন। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নিজেকে আদাবর থানা কৃষকলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে ফালান মিয়া বলেন, টাকা পাই বলেই গরু নিয়েছি, টাকা দিলে গরু ফেরত দিবো। 

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন ব্যাপারীর ক্যাডার হিসেবে পরিচিত যুবলীগের মো. সাগর। কাগজে কলমে এখনও কোন পদে না থাকলেও ওয়ার্ড যুবলীগের পদ পেতেই দৌড় ঝাপ করছেন সাগর।

দেলোয়ার হোসেন বলেন, সুদের টাকা দুই মাস দিতে পারিনি বলে আমার খামার থেকে ১২ থেকে ১৩ লাখ টাকার গরু লুটে নিয়ে যায় মো. সাগর ও ফালান মিয়া ও তমাল। 

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ