ঢাকা, শুক্রবার 20 September 2019, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২০ মহররম ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

কর্ণফুলীবাসী সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত

এস,এম,সালাহ্উদ্দীন আনোয়ারা (চট্টগ্রাম)সংবাদদাতা : চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় প্রতিটি ইউনিয়নে এখন সন্ধ্যা নামলেই জ্বলে উঠছে সৌর বিদ্যুতের আলো। ফলে উপজেলার মেঠোপথও এখন আলোকিত হয়ে উঠছে। সন্ধ্যা নামলেই বিভিন্ন গ্রামের মসজিদ, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মোড় ও ছোটখাটো বাজারের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে জ্বলে উঠছে সৌর বিদ্যুতের আলো। উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে ২০০টি সোলার প্যানেলের বাতি বসানো হয়েছে। অথচ একটা সময় ছিল সন্ধ্যা নামলেই গ্রামের মেঠোপথ মানেই ছিল অন্ধকারাচ্ছন্ন। জানা গেছে, উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর কর্তৃক গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচির আওতায় এ পর্যন্ত ২০০টি স্থানে সোলার হোম সিস্টেম (ডিসি), সোলার এসি সিস্টেম ও স্টিট সৌর বিদ্যুতের বাতি বসানো হয়েছে। এসব বাতির আলোয় আলোকিত উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল। যার সুফল পাচ্ছেন কর্ণফুলীবাসী। প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার অঙ্গীকার এখন গ্রামীণ সড়কে সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করছে। বড়উঠান ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাজ্জাদ খান সুমন বলেন, আমার এলাকার যেখানে মানুষের চলাচল রয়েছে সেসব স্থানে সৌর প্যানেলের মাধ্যমে আলো পৌঁছানো হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত এ ওয়ার্ডে মসজিদ ও গ্রামের ১১টি সৌর প্যানেল বসানো হয়েছে। রাতের আঁধারে সৌর বিদ্যুতের আলোয় নিরাপদে মানুষ চলাচল করছে। রাস্তাগুলো আলোকিত হওয়ায় এখন রাতে অপরাধ প্রবণতা অনেকাংশেই কমে গেছে। এখন রাত নামলেই আলোয় আলোকিত হচ্ছে গ্রামের মেঠোপথ। এ ব্যাপারে কর্ণফুলী উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) জামিরুল ইসলাম বলেন, উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান গুলোতে সোলার প্যানেলের বাতি বসানো হয়েছে। এ কাজ চলমান থাকবে। কর্ণফুলী উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার অঙ্গীকার। আমার রাজনৈতিক অভিভাবক ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপির সহযোগিতায় এ উপজেলার গ্রামীণ সড়কে সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের সোলার স্থাপন প্রকল্পটি একটি যুগান্তকারী প্রকল্প। নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহারে মানুষের পাশাপাশি পরিবেশও উপকৃত হচ্ছে। সৌর বিদ্যুৎ পরিবেশবান্ধব, সাশ্রয়ী ও নিরাপদ। উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ওই সব লাইট স্থাপন করা হয়েছে। এতে উপজেলাবাসী নিরাপত্তাসহ নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতে পারছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ